বিশ্বখাদ্য কর্মসূচীর নীতিমালা উপেক্ষা করে নারী স্থলে পুরুষ শ্রমিক খাটানো হচ্ছে পলাশবাড়ীতে ই.আর প্রকল্পের কাজ নিয়ে শুভংকরের ফাঁকি

আরিফ উদ্দিন, পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা) থেকে: গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলায় বেসরকারী সংস্থা ইএসডিও এবং এলজিইডি’র যোগসাজসে ই.আর প্রকল্পের কাজে শুভংকরের ফাঁকি চলছে। বিশ্বখাদ্য কর্মসূচীর নীতিমালা অনুযায়ী গৃহিত ই.আর প্রকল্পের আওতায় মাটির কাজে হতদরিদ্র নারী শ্রমিক নিয়োজিত থাকার কথা। কিন্তু তা উপেক্ষা করে নারী শ্রমিকের স্থলে পুরুষ শ্রমিক দিয়ে ভূয়া তালিকায় মজুরি প্রদানের নামে চলছে হরিলুট বাণিজ্য। এমন অভিযোগ এনে সংশ্লিষ্ট এলাকার লোকজন জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে পৃথক আবেদন জানিয়েও কোন প্রতিকার না পাওয়ার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার ২টি ইউনিয়নে গত ২০১১-২০১২ অর্থ বছর থেকে চলতি ২০১২-২০১৩ অর্থ বছর পর্যন্ত বিশ্বখাদ্য কর্মসূচীর সহায়তায় এবং এলজিইডি’র অর্থায়নে ই.আর প্রকল্পের আওতায় মাটির কাজ পরিচালিত হচ্ছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব পেয়েছে বেসরকারী সংস্থা ইএসডিও এবং তদারকি করছেন সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রকৌশল শাখা। বিশ্বখাদ্য কর্মসূচীর নীতিমালা অনুযায়ী হতদরিদ্র নারী শ্রমিক নিয়োগ, দৈনিক মজুরি খাতে মাথা প্রতি ২ কেজি চাল, ১শ’ গ্রাম ভোজ্য তেল, ২শ’ গ্রাম ডাল ও নগদ ৫৮ টাকা করে বিতরণের নিয়ম। এই পরিমাণ মজুরির বিনিময়ে প্রকল্পে নিয়োজিত নারী শ্রমিকদের দ্বারা দেড় কিউব মাটির কাজ করার কথা। কিন্তু মাঠ পর্যায়ে পাওয়া যায় বিপরীত চিত্র। হতদরিদ্র নারী শ্রমিকদের স্থলে পুরুষ শ্রমিকের উপস্থিতি পাওয়া গেলেও সংখ্যায় খুব কম। তালিকাভূক্ত নারী শ্রমিকের অনুপস্থিতিতে ভূয়া পুরুষ শ্রমিকের নামে মজুরি বিতরণের অভিযোগ চোখে পড়ে। এভাবে গত ২০১২ সালে নানা গোঁজা মিলে প্রকল্পের কাজ শেষে চলতি ২০১৩ সালের ২ মার্চ থেকে কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের বেলের ঘাট রাস্তায় এবং হরিনাথপুর ইউনিয়নে প্রকল্পের কাজ শুরু হলেও খাতা-কলমে ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। কিশোরগাড়ী ইউনিয়নে ১ হাজার নারী শ্রমিকের স্থলে দৈনিক মাত্র ২শ’ ৫০ থেকে ৩শ’ জন নারী-পুরুষের উপস্থিতি এবং হরিনাথপুর ইউনিয়নে ৫শ’ নারী শ্রমিকের স্থলে ২শ’ ৫০ শ্রমিকের উপস্থিতি থাকলেও বিতরণ তালিকায় সবার নামে পারিশ্রমিক প্রদানের নজির মেলে। এর বাইরেও বিতরণ বৈষম্য, ওজনে কম, শ্রমিক তালিকা প্রণয়নকালে মাথা পিচু ১ হাজর থেকে ২ হাজার টাকার উৎকোচ আদায়ের পাশাপাশি ভূয়া শ্রমিকের তালিকায় ভূয়া মজুরি বিতরণের বিচ্ছিন্ন অভিযোগ পাওয়া যায়। তালিকা প্রণয়নে স্বজনপ্রীতি, স্বচ্ছল, অবস্থাপন্ন ব্যক্তির নামেও মজুরি বিতরণ দেখিয়ে একটি গোপন সিন্ডিকেট অন্যায় সুবিধা অর্জন করেন। এ সব অনিয়ম দূর্ণীতি খতিয়ে দেখার দাবিতে এলাকাবাসী জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়ে পৃথক আবেদন করেছেন। কিন্তু এখনো প্রতিকার না পেয়ে অভিযোগকারীরা ক্ষোভ-অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। ই.আর প্রকল্পের শ্রমিক দিয়ে ৪০ দিনের কর্মসৃজন কাজে করতে দেখা যায়।
এদিকে ইএসডিও প্রকল্প সমন্বয়কারী হায়দার আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রকল্পের অনিয়ম-দূর্ণীতির অভিযোগ সরাসরি অস্বীকার করেন। অন্যদিকে উপজেলা প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করা হলে একটি লিখিত অভিযোগ প্রাপ্তির সত্যতা স্বীকার করে বলা হয়, মাঠ পর্যায়ে তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪