এক দফায় বিএনপি!

image_3168.bnp-flag-03স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস: নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবি না মানলে এক দফা দাবিতে কঠোর আন্দোলনের ডাক দেবে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। বিরোধীদলীয় নেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এরই মধ্যে এ রকম হুমকি দিয়েছেন। আন্দোলনের কৌশল ও রূপরেখা ঠিক করতে বুধবার দলের নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক ডাকা হয়েছে। পরদিন বৃহস্পতিবার ১৮ দলীয় জোটের শরিক দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন খালেদা জিয়া।
বিএনপির একাধিক নেতা জানান, এই সরকারকে কোনো ছাড় দেবেন না তাঁরা। সরকারবিরোধী কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার প্রক্রিয়া চলছে। এরই মধ্যে বিএনপির প্রধান মিত্র জামায়াতে ইসলামী ১৩ ও ১৪ আগস্ট হরতাল আহ্বান করেছে। এই হরতালের পর বুধবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক হবে। পরদিন রাতে জোটের শরিকদের সঙ্গে বৈঠক করবেন খালেদা জিয়া।
জানতে চাইলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের একমাত্র দাবি নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার পদ্ধতি প্রবর্তন। জনগণের এই দাবি নিয়ে আমরা আন্দোলন করছি।’ তিনি বলেন, দাবি মেনে না নেওয়া হলে সরকার পতনের আন্দোলন শুরু হবে।
দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার কালের কণ্ঠকে বলেন, স্থায়ী কমিটিতে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে আন্দোলনের বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। জোটের শরিক নেতাদের সঙ্গেও এ নিয়ে আলোচনা হবে। আলোচনার পরই চূড়ান্ত হবে কর্মসূচি।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, দেশের ৯০ শতাংশ মানুষ চায় নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হোক। জনগণের এই দাবি আদায়ে আন্দোলনের রূপরেখা নিয়ে আলোচনা হতে পারে বৈঠকে। কর্মসূচি কী হবে তা বৈঠকের আগে বলা কঠিন।
দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ বলেন, বৈঠকে আন্দোলনের কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা হবে। অক্টোবরের মধ্যে সরকার দাবি না মানলে সরকার পতনের আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে।
খালেদা জিয়ার সঙ্গে মজিনার সাক্ষাৎ আজ : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডাব্লিউ মজিনা সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন আজ সোমবার রাতে। বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয় সূত্র এ তথ্য জানায়।
কূটনীতিক ও বিশিষ্টজনদের সঙ্গে খালেদার শুভেচ্ছা বিনিময় : গত শুক্রবার পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন দুপুরে কূটনীতিক ও বিশিষ্ট নাগরিকদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া। পরে তিনি দলের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। অতিথিদের জর্দা, সেমাই ও মিষ্টি দিয়ে আপ্যায়ন করান তিনি। শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। ওই সময় সরকারের উদ্দেশে খালেদা জিয়া বলেন, ‘এখনো সময় আছে, দেশ ও জনগণকে যদি আপনারা ভালোবাসেন, তাহলে সংসদে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের বিল পাস করে নির্বাচন দিন। দাবি মানলে আমরা আর আন্দোলন করব না। ওই নির্বাচনে যে ফলাফল হবে, তা মেনে নেব। আর যদি নির্দলীয় সরকারের দাবি মেনে নেওয়া না হয় তাহলে এক দফার আন্দোলনে যাব।’ তিনি বলেন, ‘আমরা দেশের স্থিতিশীলতা ও উন্নয়ন চাই। বিএনপি বিভক্তির রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। আমরা ঐক্যের রাজনীতি চাই।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘সরকার রাষ্ট্রীয় কোষাগারের অর্থ খরচ করে উন্নয়নের কথা বলার নামে মিথ্যা প্রচারণা চালাচ্ছে। সরকারকে বলব, মিথ্যা প্রচার বন্ধ করে সোজা পথে আসুন।’
খালেদা জিয়া বলেন, বিদ্যুৎ খাতে সরকার ব্যাপক অগ্রগতির দাবি করলেও সমস্যার সমাধান এখনো হয়নি। শহরে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান হয়নি। গ্রামের মানুষও বিদ্যুৎ পাচ্ছে না। তিনি বলেন, এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। তারা বিচার বিভাগ, জনপ্রশাসন ও নির্বাচন কমিশন দলীয়করণ করে ফেলেছে। বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। সরকার যা বলে তারা সেভাবেই কাজ করে।
খালেদা জিয়া বলেন, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অবস্থার কারণে দেশের মানুষ সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে রোজা ও ঈদ উদ্‌যাপন করতে পারেনি। জনগণ দুঃসময়ের মধ্যে দিন অতিবাহিত করছে। নির্বাচন সামনে রেখে নতুন প্রজন্মকেও নিজেদের পক্ষে ডাকেন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, ‘তোমরা আমাদের সঙ্গে এসো। তোমাদের সঙ্গে নিয়ে আমরা এগিয়ে যাব। সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নেব।’
লন্ডনে অবস্থানরত বড় ছেলে তারেক রহমান এবং ব্যাংককে থাকা ছোট ছেলে আরাফাত রহমানের সঙ্গে কথা হয়েছে কি না জানতে চাইলে খালেদা জিয়া বলেন, ‘আমার পরিবারের সদস্যরা দেশের বাইরে আছে- সেই বেদনা তো আছেই। তবে তাদের সঙ্গে টেলিফোনে শুভেচ্ছা বিনিয়ম ও কথা হয়েছে। আমি মনে করি, পরিবারের সদস্যরা বাইরে থাকলেও গোটা দেশের জনগণই আমার পরিবার। তাদের সঙ্গে আমি ঈদ করেছি।’
খালেদা জিয়ার সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নেন ঢাকায় কূটনীতিক কোরের ডিন শাহের মোহাম্মদ, সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত আবদুল্লাহ বিন নাসের আল বুশাইরি, পাকিস্তানের হাইকমিশনার আফরাসিয়াব হাশেমি মেহেদি কোরেশি, যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান ডাব্লিউ মজিনা, যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন, ভারতের হাইকমিশনার পংকজ শরণসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার ও তাঁদের প্রতিনিধিরা। বিরোধীদলীয় নেতার পক্ষ থেকে কূটনীতিকদের জন্য আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মধ্যাহ্নভোজের আয়োজন করা হয়। ওই সময় বিএনপি নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এম মোরশেদ খান, রিয়াজ রহমান, শমসের মবিন চৌধুরী প্রমুখ।
শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট নাগরিক ও রাজনীতিকদের মধ্যে অংশ নেন সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এম এ রউফ, অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ, অধ্যাপক মাহবুবউল্লাহ, অধ্যাপক এস এম এ ফায়েজ, অধ্যাপক জিন্নাতুন নেসা তাহমিনা বেগম, অধ্যাপক সদরুল আমিন, অধ্যাপক আ ফ ম ইউসুফ হায়দার, জামায়াতে ইসলামীর সৈয়দ আবদুল্লাহ মো. তাহের, বিকল্প ধারার মেজর (অব.) আবদুল মান্নান, জাগপার শফিউল আলম প্রধান, কবি আবু সালেহ, মাহমুদ শফিক, আবদুল হাই শিকদার, চলচ্চিত্রকার চাষী নজরুল ইসলাম, গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার, চিত্রনায়ক আশরাফউদ্দিন উজ্জল, হেলাল খান, কণ্ঠশিল্পী রিজিয়া পারভীন, হাসান চৌধুরী, সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ, বিএফইউজে একাংশের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, ডিইউজে একাংশের সভাপতি আবদুস শহীদ, ব্যবসায়ী নেতা মীর নাসির হোসেন, এ কে আজাদ, আনিসুল হক, মোহাম্মদ আলী, আতিকুল ইসলাম প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে খালেদার পাশে ছিলেন বিএনপি নেতা ড. আর এ গণি, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, এম কে আনোয়ার, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, এম মোরশেদ খান, হান্নান শাহ, সারোয়ারী রহমান, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সাদেক হোসেন খোকা, রিয়াজ রহমান, শমসের মবিন চৌধুরী, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, সেলিমা রহমান, শাহজাহান ওমর, আমানউল্লাহ আমান, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, খায়রুল কবীর খোকন, নিতাই রায় চৌধুরী, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নূরে আরা সাফা, শিরিন সুলতানা প্রমুখ।
ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে খালেদা জিয়া তাঁর স্বামী ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত জিয়াউর রহমানের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। সেখানে তিনি দোয়া ও মোনাজাত করেন। ওই সময় দলের সিনিয়র নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪