রাজিবপুরে নৌকাডুবিতে বড়বেড় চরে শোকের মাতম, লাশ উদ্ধারে প্রশাসনের উদ্যোগ নেই

রাজিবপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি :
কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলায় ব্রহ্মপুত্র নদে যাত্রীবাহী খেয়া নৌকাডুবির ঘটনায় দুই লাশ উদ্ধার হলেও বৃহস্পতিবার পর্যন্ত আরো চারজন নিখোঁজ রয়েছে। গত ঈদের আগের দিন বৃহস্পতিবার নৌকাডুবির পর নিখোঁজ চারজনের লাশ উদ্ধারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো প্রকার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি।
নৌকাডুবির ১ সপ্তাহ পর বৃহস্পতিবার সরেজমিনে রাজিবপুরের বড়বেড় চরের নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়িতে গিয়ে স্বজনদের বুকফাটা আহাজারির চিত্র দেখা গেছে।
বড়বেড় চরের ভ্যানগাড়ির চালক সাজু আহমেদের স্ত্রী লিপি আক্তার (৩০) ও সন্তান সুমন মিয়া (৫) খেয়া নৌকায় নয়াচর যাচ্ছিলেন ভিজিএফের চাল আনার জন্য। নৌকাডুবির পর সন্তান সুমনের লাশ ওই দিনই পাওয়া গেলেও স্ত্রীর লাশ এখনো পাননি। তাঁদের ঘরে আরো এক সন্তান আছে। তার নাম লিটন মিয়া (৭)। সুমনের লাশ দাফন করার পরপরই স্ত্রীর লাশের খোঁজে বের হয় সাজু আহমেদ। সংসারের আয়-রোজগারের জন্য নিজের একমাত্র ভ্যানগাড়িটা বিক্রি করে ওই টাকায় নৌকা ভাড়া করে সাজু দিন-রাত ছুটে চলেছেন স্ত্রীর খোঁজে। সাজু বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ। চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা কেউ আমগরে দেহে না। গাড়ি বেইচ্যা যে ট্যাহা পাইছিলাম তা শ্যাষ এহন ট্যাহা পামু কনে। আমি স্ত্রীর লাশটা চাই।’
ওই চরের নদীভাঙ্গা পরিবারের কর্তা আনিছুর রহমান (৪০)। ১২ বার নদীভাঙনের কবলে পড়ে নিঃস্ব। ঈদের আগের দিন তিনি ভিজিএফের চালের জন্য খেয়ানৌকায় ছিলেন। নৌকাডুবির ঘটনার পর থেকে তাঁর লাশ আর পাওয়া যায়নি। তাঁর ঘরে তিন সন্তান রয়েছে। অবুঝ সন্তানরা বাবার জন্য কাঁদছে।
দুই হাতের ওপর জীবিকা নির্বাহ করা পরিবার। এ পরিবারের কর্তা দিনমজুর আজাদ হোসেন। তাঁদের ঘরে চার সন্তান। আজাদ হোসেনের স্ত্রী ওমেচা খাতুন (৪০) ভিজিএফের চাল নেওয়ার জন্য খেয়ানৌকায় নয়াচর ইউনিয়ন পরিষদে যাওয়ার সময় ব্রহ্মপুত্র নদে ডুবে যান। কিন্তু ওমেচার লাশ এখনো উদ্ধার করা যায়নি। আজাদ হোসেন বলেন, ‘স্ত্রীর লাশের জন্য ফুলছরি, ইসলামপুর, বাহাদুরাবাদ ও সিরাজগঞ্জ পর্যন্ত নৌকায় ঘুরে এসেছি। কিন্তু কোথাও লাশ ভেসে ওঠার খবর পাইনি। এহন কী করমু। ছোট ছোট বাচ্চাঘরোক নিয়া বিপদে আছি।’
ওই চরের বাসিন্দা ফয়জার হোসেন (৭০)। ওই দিন খেয়ানৌকায় তিনিও যাচ্ছিলেন ভিজিএফের চালের জন্য। নৌকাডুবির পর থেকে তাঁরও কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তাঁর সন্তান দেলোয়ার হোসেন জানান, ছয় দিন ধরে ব্রহ্মপুত্রে খোঁজাখুঁজি করা হচ্ছে কিন্তু লাশ পাওয়া যায়নি।
নিহত ও নিখোঁজ পরিবারগুলো সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সরকারিভাবে পরিবারপ্রতি দুই হাজার করে টাকা সাহায্য করেছেন। কিন্তু নিখোঁজ ব্যক্তিদের উদ্ধারের জন্য কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি।
মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আনু বলেন, ‘লাশ উদ্ধারের জন্য ইউএনও ও ডিসি স্যারকে মোবাইল ফোনে অনুরোধ জানানো হয়েছে। কিন্তু কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।’
লাশ উদ্ধার প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল লতিফ খান বলেন, ‘এ ব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।’

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪