বাবা-মা হত্যার দায় স্বীকার ঐশীর

image_1362_168546ঢাকা অফিস :
রাজধানীর ২ নং চামেলীবাগের নিজ বাসায় স্ত্রী স্বপ্নাসহ পুলিশের বিশেষ শাখায় (এসবি) কর্মরত পরিদর্শক মাহফুজুর হত্যাকান্ডে তাদের একমাত্র মেয়ে ঐশী জড়িত। সে বাবা-মাকে খুনের দায় স্বীকার করে ইতোমধ্যেই স্বীকারোক্তি দিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) মনিরুল ইসলাম। তবে কেন কি কারণে এ হত্যাকান্ড তা তিনি জানাননি। এ ঘটনায় ঐশী ও তাদের গৃহকর্মী সুমি এবং ঐশীর বান্ধবী তৃষ্ণাসহ ৬ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। এদিকে হত্যাকান্ডের পর ঐশী নিখোঁজ থাকলেও গতকাল শনিবার দুপুরে সে নিজেই পল্টন থানায় এসে ‘আত্মসমর্পণ’ করেন। পরে তাকে হেফাজতে নেয় পুলিশ। অন্যদিকে গতকাল শনিবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে নিহত দম্পতির মৃতদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। তাদের হত্যা করার আগে চেতনানাশক কিছু খাওয়ানো হয়েছিল কিনা তা জানতে মৃতদেহের বিভিন্ন আলামত রাসায়নিক পরীক্ষার জন্য সিআইডিতে পাঠানো হয়েছে। তবে পুলিশ কর্মকর্তার চেয়েও তার স্ত্রীর উপর খুনিদের আক্রোশ বেশি ছিল বলে ধারণা ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক সোহেল মাহমুদের। তিনি জানান, ‘যে ছুরি দিয়ে তাদের হত্যা করা হয় সেটির দু’পাশেই ধার ছিল। পুলিশ কর্মকর্তাকে ২টি ও তার স্ত্রীকে ১১টি ছুরিকাঘাত করা হয়। শুক্রবার রাজধানীর চামেলীবাগের বাসা থেকে পুলিশ পরিদর্শক মাহফুজ ও তার স্ত্রী স্বপ্নার ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধারের পর থেকে মেয়ে ঐশীর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।
ঐশীর নাটকীয়তা : হত্যাকান্ডের পর থেকে বাবা মাহফুজুর রহমান ও মা স্বপ্না বেগমের রক্তাক্ত লাশ পাওয়ার সময় থেকে তাদের একমাত্র মেয়ে ঐশী নিখোঁজ ছিল। পরে শনিবার দুপুরে নিজেই তিনি পল্টন থানায় যান বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। পুলিশ জানায়, দুপুরে পল্টন থানায় এসে ঐশী ডিউটি অফিসারের কাছে গিয়ে তার পরিচয় দেন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে ওসির কক্ষে নেয়া হয়। ওসি এরপর
তাকে নিয়ে যান কাছেই মতিঝিল জোনের উপকমিশনারের অফিসে। সেখান থেকে ঐশীকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে মিন্টো রোডের গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে। ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার মাসুদুর রহমান বলেন, ‘ঐশী আমাদের হেফাজতে রয়েছে।’ মাহফুজের দুই সন্তানের মধ্যে বড় ঐশী একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ‘ও’ লেভেলের ছাত্রী। বৃহস্পতিবার সকালে ঐশী সাত বছর বয়সী ছোট ভাই ঐহী ও গৃহকর্মী সুমিকে নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় বলে ওই বাড়ির তত্ত্বাবধায়ক জানিয়েছেন। শুক্রবার সকালে একটি রিকশায় করে ঐহীকে এক আত্মীয়ের বাসায় পাঠানো হয়। এর আগে টেলিফোনে স্বজনদের সঙ্গে ঐশীর কথাবার্তা সন্দেহজনক বলে পুলিশের কাছে মনে হয়েছে। ঐশী থানায় এসেছে একাই, গৃহকর্মী সুমিকে তার সঙ্গে দেখা যায়নি। জানা গেছে, ঐশী মাদকাসক্ত ছিল। সে উচ্ছৃঙ্খল জীবন যাপনে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছিল। যা তার বাবা-মা মেনে নেননি। একপর্যায়ে ঐশী যাতে একা বাসা থেকে বের না হতে পারে সে জন্য বাসার দারোয়ানদের কড়া নির্দেশ দিয়েছিলেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।
ময়নাতদন্ত : স্ত্রীসহ পুলিশ কর্মকর্তা খুনের ঘটনায় কমপক্ষে দুই জনের বেশি খুনি অংশ নিয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তাকে ২টি এবং তার স্ত্রীকে ১১টি ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়। পুলিশ কর্মকর্তার চেয়ে তার স্ত্রীর প্রতি খুনিদের আক্রোশ বেশি ছিল বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ময়নাতদন্তকারী সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। তবে খুনিরা প্রথমে পুলিশ কর্মকর্তাকে হত্যার চেষ্টা করে এবং তাকে বাঁচাতে এসে তার স্ত্রী আক্রোশের শিকার হয়ে থাকতে পারেন বলেও ধারণা করা হচ্ছে। গতকাল শনিবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে মাহফুজ ও স্বপ্না দম্পতির লাশের ময়না তদন্ত হয়। ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ছুরির আঘাতে মাহফুজ ও তার স্ত্রী মারা গেছেন। মাহফুজুরের দেহে দুটি এবং তার স্ত্রীর দেহে ১১টি ছুরিকাঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এই হত্যাকান্ডে একাধিক ব্যক্তি জড়িত ছিলেন বলে ধারণা ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদের। তিনি জানান, ‘কমপক্ষে দুই থেকে ততোধিক ব্যক্তি এই হত্যাকা ঘটিয়েছে।’
ভাইয়ের মামলা : এ জোড়া হত্যার ঘটনায় নিহত পুলিশ কর্মকর্তা মাহফুজুরের ভাই মনসুর রহমান বাদী হয়ে শনিবার মতিঝিল থানায় মামলা করেছেন। এতে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪