রাজিবপুরে প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করে ব্রহ্মপুত্র পাড়ের মানুষ

pani-11-7-13 আলতাফ হোসেন সরকার, রাজিবপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি :
রাজিবপুর উপজেলার বহ্মপুত্র পাড়ের দুঃস্থ মানুষ প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকে। প্রকৃতির রুদ্র রোষে প্রতিনিয়ত স্বাভাবিক জীবনের ছন্দপতন ঘটে। যদিও আধুনিক জীবন ও নাগরিক নানা সুযোগ-সুবিধা থেকে এরা বঞ্চিত। এই উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩টি ইউনিয়ন রাক্ষুসে ব্রহ্মপুত্রের করাল-গ্রাসে ক্ষতিগ্রস্থ। ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার জনসংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। এর মধ্যে গৃহহীন ও দুঃস্থ মানুষের সংখ্যা অর্ধেকেরও বেশী। বন্যা, খরা, নদীভাঙ্গনসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে অভাব-অনটন এসব মানুষের নিত্যদিনের সাথী। প্রতি বছর ভয়াবহ নদীভাঙ্গনে ভিটেমাটি, জমিজমা সবকিছু হারিয়ে অন্য চরে ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখে ওরা। নতুন চর জেগে উঠলে দলবদ্ধভাবে ঘর বেঁধে নতুন জীবন শুরু করে। এক চর ভেঙ্গে গেলে আবার অন্য চরে গিয়ে ঘর বাঁধে। আর্থিক দীনতার কারণে যাযাবরের মত জীবন কাটে এদের। অভাবের কারণে অনাহার-অর্ধাহারে দিন কাটায়। কুঁড়ে ঘর ও ঝুপড়ি ঘরেই এদের বসবাস। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সহযোগিতা এদের কপালে খুব কমই জোটে। প্রকৃতির সাথে সংগ্রাম করেই েেবঁচে থাকে ভুক্তভোগী গরীব মানুষেরা। মোহনগঞ্জ ইউনিয়নের বড়বেড় গ্রামের সামছুল হক (৭৫) জানান, আজ থেকে কুড়ি বছর আগে আমি সন্যাসিকান্দি গ্রামে বসবাস করতাম। তখন আমার গোয়ালভরা গরু ছিল। ছিল মহিশের বাতান।  ধান-পাটের আবাদ বাদেই কুইসারের আবাদ ছিল ১ শ’ বিঘা জমিতে। বছর মেয়াদী কামলা ছিল ১২ জন। ১৯৮৮ সালে নদীতে বাড়ি ভাঙার পর এ পর্যন্ত নদীতে বাড়ি ভাঙ্গে ৩০ বার। এখন এই বড়বেড় চরে অন্যের এক ফালি জমিতে কোনোমতে আশ্রয় নিয়ে আছি। না আছে কোন রাস্তা, না আছে কোন বাজার-ঘাট। এক প্রকারের বনবাসের জীবন যাপন করছি এইবুড়া বয়সে। অসুখ-বেসুখে রাজিবপুর হাসপাতালে যাইতে হলে নৌকা ছাড়া যাবার উপায় নাই। সিরিয়াল ছাড়া নৌকা পাওয়াও খুবই মুশকিল। তিনি দু:খ করে বলেন, বাবারে এই বুড়া বয়সে কাজ-কামও করবার পারিনা ঠিক মতন। তাই কামলাও নিতে চায় না মানুষ আমাকে। তার মতো শত শত লোক এই আজাহারির চরের জীবন বেছে নিয়েছেন কোনোমতো বাঁচার তাগিদে। এই কষ্ট যেন জীবন থাকতে তাদের আর শেষ হবে না।
মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সভাপতি ও ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মাষ্টার শহিদুল্লাহ জানান, আমি নিজেও কয়েক বার নদী ভাঙার কবলে পড়ে এখন এই বড়বেড় দ্বীপচরে বসবাস করছি। এই বড়বেড় চরের চার পাশেই বহ্মপুত্র নদ। জরুরী কোন অসুখ-বেসুখে সদরে যেতে হলে সিরিয়ালের খেয়া নৌকা ছাড়া বিকল্প কোন রাস্তা নেই। যদি ঘূর্নিঝড়-জলোচ্ছাসের মতো বিপদ আসে তাহলে এই ২০-২৫ পাড়ায় হাজার হাজার মানুষ, গবাদিপশু বেঁচে থাকার জন্য নেই কোন আশ্রায়ন প্রকল্প। তারা মরে ফেসে গেলে লাশ উদ্ধার করার লোকও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তিনি আরো জানান, ঈদের আগের দিন গত বৃহস্পতিবারে আমার ওয়ার্ডের লোকজন ভিজিএফ’র চাউল আনার জন্য নৌ-পথে মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদে যাবার পথে নৌকা ডুবে ধলাগাছা নামক চরে  শিশুসহ ৬ জন লোক নিখোঁজ হয়। তাদের উদ্ধার ও খোঁজ-খবর নেওয়ার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন উদ্যোগ গ্রহন করা হয়নি আজ পর্যন্ত। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় এ পর্যন্ত ৪ জনের লাশ খুঁজে পেলেও বাকী ২ জনের  হদিস পাওয়া যায়নি এখনও।
ওই এলাকার সাবেক মেম্বার ও মুক্তিযোদ্ধা নুরনবী জানান, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা ভিটেমাটি হারিয়ে এই চরে বসবাস করছি প্রায় ১০ বছর যাবৎ। পত্রিকার মাধ্যমে এলাকাবাসীর পক্ষে আমার এই চরে একটি মাধ্যমিক স্কুল, আশ্রায়ন প্রকল্প ও যাতায়াতের জন্য সরকারীভাবে একটি ছোট ফেরীর ব্যবস্থা করলে আমরা কোন মতে নাগরিক অধিকার টুকু পেতাম। দেশ স্বাধীনের ৪২ বছরেও একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সরকারের কাছে কোন ব্যক্তিগত আবদার করিনি, আজ মুক্তিযোদ্ধার স্বপক্ষের শক্তি দেশ পরিচালনা করছে আমাদের বেঁচে থাকার  দাবীটুকু অবশ্যই সরকার ভেবে দেখবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪