রাজিবপুর ও রৌমারীর কোরবানিরহাটে গরুর দাম কম

আলতাফ হোসেন সরকার (রাজিবপুর) কুড়িগ্রাম থেকে :
কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে জেলার অন্যতম বড় পশুরহাট রাজিবপুর ও রৌমারী হাটে প্রচুর গরু আমদানি হচ্ছে। কিন্তু আমদানির তুলনায় ক্রেতা কম হওয়ায় খামারি ও চরাঞ্চলের ক্ষুদ্র কৃষকেরা গরু বিক্রি করতে পারছেন না। এছাড়া গরুর দাম কমে যাওয়ায় বড়বেড়চর, কির্তনটারী, লালসেমারচর, জিগাবাড়িরচর, বড়চর, মানুষমারারচর, গো-খামারি ও পালনকারীরা লোকসানের মুখে পড়েছেন। বৈধ ও অবৈধ পথে ভারতীয় গরুর অবাধ আমদানিতে গো-খামারি ও পালনকারীদের লোকসানের পাল্লা আরো ভারী হবে বলে অনেক খামারি ও গরু পালনকারী কৃষকেরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।
রাজিবপুর  উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা যায়, কোরবানীর ঈদ সামনে রেখে রাজিবপুর ও রৌমারী এই ২  উপজেলার ৫০ হাজার ক্ষুদ্র কৃষক গরু পালনকারী ও গো খামারীরা রাজিবপুর, রৌমারী জাফরগঞ্জ, সোনাপুর, খেয়ারচর, কাউনিয়ারচর, সানন্দবাড়ি হাটে গরু-ছাগল নিয়ে বেপারীদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জেলায় কয়েক লক্ষ গরু সরবরাহ করে থাকেন। প্রতি বছর ঈদের আগে গরু ব্যবসায়ীরা খামারিদের বাড়ি থেকে গরু কিনে নিয়ে যান। কিন্তু এ বছর পাইকাররা খামারিদের বাড়ি থেকে গরু কিনছেন না। হাটে প্রচুর দেশি গরু-ছাগল আমদানি হচ্ছে। আমদানির তুলনায় গরুর পাইকার কম। স্থানীয় ক্রেতাদের ছোট গরু কেনার প্রতি ঝোঁক বেশি। অস্ট্রেলিয়ান জাতের বড় গরুর চাহিদা ও বিক্রি হচ্ছে খুবই কম। ফলে এ অঞ্চলের গো-খামারি ও পালনকারীরা ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়েছেন বলে জানা গেছে।
ব্রহ্মপুত্র নদ বিছিন্ন রাজিবপুর ও রৌমারী সংলগ্ন তহশীলদার অফিসের পাশে  গড়ে উঠেছে রৌমারী বড় গরুর হাট অপর দিকে রাজিবপুরে আগের গরু হাটে জায়গা সংকুলান না হওয়ায় উপজেলা শিশুপার্কে লাগানো হয়েছে কুরবানীর গরুর হাট। তারপরেই সদরের খেয়ারচর, জাফরগঞ্জ, সোনাপুর, দাতভাঙা হাট রয়েছে। তার মধ্যে খেয়ারচর বাজারে সড়ক ও নৌপথে যোগাযোগের সুন্দর ব্যবস্থা থাকার জন্য গরুর পাইকার ও ব্যবসায়ীদের কাছে দিন দিন হাটটির গুরুত্ব বেড়েছে। শুধু এলাকার গরু ব্যবসায়ীরাই নন, কুড়িগ্রাম ও জামালপুর জেলার বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ী গরু বিক্রির জন্য এই হাটে নিয়ে থাকেন। আবার ঢাকা, চট্রগ্রাম, সিলেটসহ পূর্বাঞ্চলের গরু ব্যবসায়ীরা রাজিবপুর ও রৌমারী হাট থেকে নিজেদের পছন্দের গরু খরিদ করেন বিক্রির জন্য। রাজিবপুরহাটে সপ্তাহের শনিবার ও মঙ্গলবার এবং বৃহস্পতিবার তিনদিন হাট বসলেও  গরুর হাট বসে মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার। আর রৌমারী হাটে শুক্রবার ও সোমবার গরুরহাট বসে। এসব হাটে কোরবানী ঈদের পাঁচ দিন আগে থেকে প্রতিদিন গরুর হাট বসবে বলে হাট কমিটি সূত্র জানিয়েছে।
মঙ্গলবার হাট সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, গরুর হাটে দূর-দূরান্ত থেকে গরু ব্যবসায়ী ও খামারিরা ট্রাক, নসিমন, করিমন ও নৌকায় করে হাজার হাজার গরু নিয়ে আসছেন। হাটের মধ্যে জায়গা না হওয়ায় শিশুপার্কসহ উপজেলার পরিষদের খোলা জায়গায় ওপর পশুর হাট বসেছে। ছোট, বড় ও মাঝারি সব ধরনের গরু আমদানি হয়েছে। বড় ও মাঝারি আকারের গরুর চাহিদা কম। তবে ছোট গরুর চাহিদা বেশি রয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন।
গরুর দাম কমার কারণ হিসেবে ব্যবসা-বাণিজ্যে মন্দা, রাজনৈতিক অস্থিরতা, কৃষিজপণ্যের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় গ্রামীণ অর্থনীতিতে স্থবিরতা এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণীর হাতে টাকা না থাকাকে ব্যবসায়ীরা দায়ী করেছেন। অভিযোগ উঠেছে, হাট ইজারাদারের প্রতিনিধিরা নিজেদের ইচ্ছামতো খাজনা আদায় করছেন। প্রতিবাদ করলে অনেক সময় প্রতিবাদকারীকে লাঞ্ছিত হতে হয়। হাটে খাজনা আদায়ের চার্ট টানানোর নিয়ম থাকলেও তা মানা হয়নি। শুধু ক্রেতার কাছ থেকে খাজনা নেয়ার নিয়ম রয়েছে। অথচ ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের কাছ থেকেই খাজনা নেয়া হচ্ছে। এ বিক্রেতাকে খাজনার রশিদ দেয়া হচ্ছে না। অতিরিক্ত খাজনা আদায়েরও অভিযোগ রয়েছে।
কুমারেরচর  গ্রামের খামারি খলিলুর রহমান জানান, রাজিবপুরহাটে তার অস্ট্রেলিয়ান জাতের গরুর দাম উঠেছে ৭৫ হাজার টাকা, বিক্রি না করে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন। কারণ গত বছর এ ধরনের একটি গরুর দাম ছিল কমপক্ষে  লাখ টাকা। রাজিবপুর সদর ইউনিয়নের মুন্সীপাড়া গ্রামের মহর আলী গোয়াল জানান, তিনি হাটে গরু এনে বিপাকে পড়েছেন। আমদানির তুলনায় গরুর ক্রেতা কম। ক্রেতারা তার গরুর দাম ৫৫ হাজার টাকা বলছে। এ দামে গরু বিক্রি করলে লোকসান হবে। পাথরেরচরের গরু ব্যবসায়ী হযরত আলী মতে, ভারত থেকে চোরাপথে গরু আমদানি হচ্ছে। তিনি কুড়িগ্রামের যাত্রাপুর হাট থেকে ১৪টি ভারতীয় গরু নৌকা করে রাজিবপুরহাটে বিক্রির জন্য নিয়ে এসেছেন।  রৌমারী বাজার হাট ইজারাদার এম মমিন ঠিকাদার বলেন, হাটে প্রচুর দেশি গরু আমদানি হয়েছে। ভারতীয় গরুও আমদানি হচ্ছে, তবে গত বছরের তুলনায় কম। হাটে গরুর বেচাকেনা তুলনামূলকভাবে অনেক কম। দু’চার দিনের মধ্যে গরু বেচাকেনা পুরোদমে শুরু হতে পারে। কারণ হিসেবে তিনি জানান, পর্যাপ্ত পরিমানে গো খাদ্য সংকট এজন্য মানুষ আগে গরু কিনছে না। টোল আদায়ের বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪