আলীমের আমৃত্যু কারাদণ্ড

04_Abdul+Alim_091013ঢাকা অফিস: মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সাবেক মন্ত্রী বিএনপি নেতা আব্দুল আলীমকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।
বুধবার আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে ১৭টি অভিযোগের মধ্যে হত্যা-গণহত্যার ৯টি অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হলেও শারীরিক-মানসিক অক্ষমতার কারণে মৃত্যুদণ্ডের পরিবর্তে এ রায় ঘোষণা করেন ট্রাইব্যুনাল।

অন্যদিকে ৬টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি এবং বাকি দু’টিতে প্রসিকিউশন কোনো সাক্ষী হাজির না করায় সেগুলোতে কোনো মতামত দেওয়া হয়নি।
অভিযোগগুলোর মধ্যে ১, ২, ৬, ৭, ৮, ৯, ১০, ১২ ও ১৪ নম্বর অভিযোগ প্রমাণিত এবং ৩, ১১, ১৩, ১৫ ও ১৬নং অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি বলে রায়ে উল্লেখ করেছেন ট্রাইব্যুনাল। এছাড়া ৪ ও ৫ নং অভিযোগে প্রসিকিউশন কোনো সাক্ষী না আনায় সেগুলোতে কোনো মন্তব্য করেননি ট্রাইব্যুনাল। এগুলোর মধ্যে ২, ৮, ১০ ও ১৪ নম্বর অভিযোগে যাবজ্জীবন (আমৃত্যু কারাদণ্ড), ৬, ৭, ৯ ও ১২ নম্বর অভিযোগে ২০ বছর করে এবং ১ নম্বর অভিযোগে ১০ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয় আব্দুল আলীমকে।
চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের ট্রাইব্যুনাল তারা রায়ে উল্লেখ করেছেন, আব্দুল আলীমের অপরাধ মৃত্যুদণ্ডযোগ্য হলেও শারীরিক-মানসিক অক্ষমতার কারণে তাকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেওয়া হলো। রায়ে বলা হয়, তিনি বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ও শারীরিকভাবে খুবই অসুস্থ। পঙ্গুত্ব বরণ করায় হুইল চেয়ার ও অন্যের সহায়তা ছাড়া নড়তে পারেন না। নিজে নিজে নড়তে পারেন না।

এ রকম একজন শারীরিক-মানসিকভাবে অক্ষম ব্যক্তিকে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড দেওয়া উচিৎ হবে না বলেও ট্রাইব্যুনাল তার রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেন।
বুধবার সকাল ১০টা ৪৭ মিনিটে রায় পড়া শুরু করে ১২টা ৩৫ মিনিটে শেষ করেন ট্রাইব্যুনালের বিচারপতিরা। ৬৮৮ অনুচ্ছেদের মোট ১৯১ পৃষ্ঠার রায়ের মধ্যে সার-সংক্ষেপ ১৩৭ অনুচ্ছেদ পাঠ করা হয়।
রায়ের প্রথম অংশ পাঠ করেন ট্রাইব্যুনাল সদস্য বিচারপতি শাহিনুর ইসলাম। তিনি পড়েন ১ থেকে ৫৬ অনুচ্ছেদ। দ্বিতীয় অংশ পাঠ করেন অন্য সদস্য বিচারপতি মোঃ মুজিবুর রহমান মিয়া। তিনি পড়েন ৫৭ থেকে ১০৭ অনুচ্ছেদ। সবশেষে ১০৮ থেকে ১৩৭ অনুচ্ছেদ রায়ের মূল অংশ পাঠ করেন চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।

ট্রাইব্যুনাল-২ এ স্থান সংকুলান না হওয়ায় ট্রাইব্যুনাল-১ এর এজলাসকক্ষে রায় ঘোষণা করা হয়। সকাল দশটা ৪২ মিনিটে একে একে ট্রাইব্যুনালে আসন গ্রহণ করেন বিচারপতিরা। এরপর ট্রাইব্যুনাল চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান সংক্ষিপ্ত সূচনা বক্তব্য দেন। তিনি তার বক্তব্যে পূর্ণাঙ্গ রায় না পড়ে কোনো মন্তব্য না করার অনুরোধ জানান সকলের প্রতি। চেয়ারম্যান বলেন, কোনো মামলার সম্পূর্ণ রায়ই পড়া হয় না। পড়া হয় রায়ের সংক্ষিপ্ত সার-সংক্ষেপ। অ্যাটর্নি জেনারেলের মাধ্যমে আমি পূর্ণাঙ্গ রায় না পড়ে কোনো মন্তব্য না করার অনুরোধ জানাচ্ছি। এটি করা আইনের জন্য ক্ষতিকর।
সকাল ১০টা ৩৩ মিনিটে আলীমকে তোলা হয় কাঠগড়ায়। পৌণে দশটার দিকে আলীমকে একটি সাদা অ্যাম্বুলেন্সে করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের প্রিজন সেল থেকে ট্রাইব্যুনালে আনা হয়।

প্রমাণিত অভিযোগ
প্রমাণিত অভিযোগগুলোর মধ্যে ৮টিই রয়েছে হত্যা-গণহত্যা এবং একটি অপহরণ-নির্যাতনের। এগুলো হচ্ছে  জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থানার দমদমা গ্রামের মেহের উদ্দিনের বাড়িতে লুটপাট-আগুন দিয়ে তাকে দেশান্তরিত হতে বাধ্য করা (১নং অভিযোগ), কড়ই কাঁদিপুরে গণহত্যা চালিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৩৭০ জনকে গুলি করে হত্যা (২ নম্বর অভিযোগ), আক্কেলপুরে ৯ জনকে হত্যা(৬ নম্বর অভিযোগ), নওদা গ্রামে ৪ জনকে হত্যা(৭ নম্বর অভিযোগ), ক্ষেতলাল থানার উত্তরহাট শহর গ্রামের ৯ জনকে হত্যা(৮ নম্বর অভিযোগ), পশ্চিম আমাত্রা গ্রামের গণহত্যা (৯ নম্বর অভিযোগ), ২৬ মুক্তিযোদ্ধা হত্যা(১০ নম্বর অভিযোগ), আওয়ামী লীগ নেতা ডা. আবুল কাশেম হত্যা (১২ নম্বর অভিযোগ) এবং ফজলুল করিমসহ ৩ মুক্তিযোদ্ধা হত্যা (১৪ নম্বর অভিযোগ)
মেহের উদ্দিনের বাড়িতে লুটপাট-আগুন দিয়ে তাকে দেশান্তরিত হতে বাধ্য করার বিষয়ে প্রথম অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরের ২০ এপ্রিল বিকেলে আলীম পাকিস্তানি সেনাদের নিয়ে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থানার দমদমা গ্রামের মেহের উদ্দিন চৌধুরীর (মৃত) বাড়িতে হামলা চালান। ওই বাড়িতে লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। যার ফলে তিনি দেশান্তরিত হতে বাধ্য হন।
কড়ই কাঁদিপুরে গণহত্যা চালিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৩৭০ জনকে গুলি করে হত্যা সংক্রান্ত দ্বিতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে,  একাত্তরের ২৬ এপ্রিল আলীম পূর্বপরিকল্পনা অনুসারে মেজর আফজাল, পাকিস্তানি সেনা ও শান্তি কমিটির সদস্যদের নিয়ে কড়ই কাঁদিপুর এলাকার হিন্দু অধ্যুষিত গ্রাম কড়ই, কাঁদিপুর, চকপাড়া, সোনারপাড়া, পালপাড়া, মুন্সিপাড়া গ্রামে অতর্কিতে সশস্ত্র হামলা চালান। হামলায় হিন্দুদের বাড়িঘরে লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগের পর ৩৭০ জন নিরস্ত্র হিন্দুকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে হত্যা করা হয়। অশ্বিনী কুমার দেবনাথ নামের এক ব্যক্তিকে জীবন্ত কবর দেওয়া হয়।
আক্কেলপুরে ৯ জনকে হত্যা সংক্রান্ত প্রমাণিত ষষ্ঠ অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরের মে মাসের প্রথম দিকে আক্কেলপুরের আবদুস সালাম ও আরও নয়জন নিরস্ত্র ব্যক্তি ভারত যাওয়ার পথে নূরপুর গ্রামে পৌঁছানোর পরে বেলা ১১টার দিকে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকাররা তাদের ধরে স্থানীয় সৈয়দ আলীর বাড়িতে আটকে রাখে। পরে তাদের আক্কেলপুর রেলস্টেশনের বিশ্রামকক্ষে নিয়ে যাওয়ার পর বিষয়টি আলীমকে জানানো হলে তিনি তাদের শেষ করে দেওয়ার নির্দেশ দেন। তাদের পাকিস্তানি সেনাদের হাতে তুলে দেওয়া হলে কোকতারা গ্রামের বকুলতলা এলাকায় নয়জনকে হত্যা করা হয়। মোফাজ্জল নামের এক ব্যক্তি পালিয়ে যেতে সক্ষম হন।
নওদা গ্রামে ৪ জনকে হত্যা সংক্রান্ত সপ্তম অভিযোগে বলা হয়েছে, ২৬ মে আলীমের পরামর্শ ও নির্দেশ অনুসারে রাজাকার ও পাকিস্তানি সেনারা জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থানার নওদা গ্রামে অভিযান চালিয়ে ইলিয়াস উদ্দিন সর্দার, ইউসুফ উদ্দিন সর্দার, ইউনুস উদ্দিন সর্দার এবং আবদুল কাদের মণ্ডল নামের চারজন নিরস্ত্র মানুষকে ধরে বালিঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) কার্যালয়ে আটকে রাখে। পরে তাদের কালীপুকুরের পাশে নিয়ে হত্যা করা হয়।
ক্ষেতলাল থানার উত্তরহাট শহর গ্রামের ৯ জনকে হত্যার বিষয়ে অষ্টম অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরের মে মাসের প্রথম দিকে আলীম পাকিস্তানি মেজর আফজালকে সঙ্গে নিয়ে ক্ষেতলাল থানার উত্তরহাট শহর নামের একটি স্থানে পাঁচ-সাতশ’ জনের একটি সমাবেশে যান। সেখানে তিনি বলেন, ‘হিন্দুদের ক্ষমা করা যাবে না। এদের যা পাও লুট করে নাও।’

এই উস্কানিমূলক বক্তব্যের পরে মে মাসের শেষদিকে হিন্দুপল্লী, উত্তরহাট শহর, হারুনজাহাট এলাকায় হিন্দু জনগণের ওপর হামলা ও লুটপাট চালানো হয়। ওই এলাকা থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের ১০ জন লোককে ধরে শাওনলাল বাজলার গদিঘরে স্থাপিত শান্তি কমিটির কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হলে আলীম তাঁদের হত্যার নির্দেশ দেন। পরে ওই ১০ জনকে খঞ্জনপুর কুঠিবাড়ি ঘাট এলাকায় নিয়ে হত্যা করা হয়।
পশ্চিম আমাত্রা গ্রামের গণহত্যা সংক্রান্ত প্রমাণিত নবম অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৪ জুন শান্তি কমিটির সদস্যরা মুক্তিযোদ্ধা সন্দেহে ১৫ জন যুবককে ধরে নিয়ে শাওনলাল বাজলার গদিঘরে শান্তি কমিটির অফিসে আটকে রাখেন। সেখানে মেজর আফজালের সঙ্গে পরামর্শ করে আলীম তাদের হত্যার সিদ্ধান্ত নেন। পরে ওই সিদ্ধান্ত অনুসারে তাদের পশ্চিম আমাত্রা গ্রামে নিয়ে নির্যাতন শেষে হত্যা করে গণকবর দেওয়া হয়।
২৬ মুক্তিযোদ্ধাকে অপহরণ করে নির্যাতন ও  হত্যার বিষয়ে দশম অভিযোগে বলা হয়েছে, জুনের শেষ দিকে আলীমের সিদ্ধান্ত অনুসারে রাজাকার ও শান্তি কমিটির সদস্যরা ২৬ জন মুক্তিযোদ্ধাকে ধরে একটি ট্রাকে করে জয়পুরহাট রেলস্টেশনে নিয়ে যান। এ সময় আলোখেলা স্টুডিওর মালিক মোতাসিম বিল্লাহ নামের এক ব্যক্তিকে আলীম নিয়ে আসেন এবং তিনি ওই ২৬ জন আটক ব্যক্তির সঙ্গে আলীমের ছবি তোলেন। পরে তাদের জয়পুরহাট কলেজে নিয়ে হত্যা করা হয়।

আওয়ামী লীগ নেতা ডা. আবুল কাশেম হত্যা সংক্রান্ত ১২তম অভিযোগে বলা হয়েছে, ২৪ জুলাই আলীমের নির্দেশে জয়পুরহাটের কাজিপাড়া থেকে আওয়ামী লীগ নেতা ডা. আবুল কাশেমকে আটক করে নির্যাতন চালায় রাজাকার ও পাকিস্তানি সেনারা। ২৬ জুলাই সন্ধ্যায় ডা. আবুল কাশেমকে খানজানপুর কুঠিবাড়ি ব্রিজের কাছে নিয়ে হত্যা করা হয়।

ফজলুল করিমসহ ৩ মুক্তিযোদ্ধা হত্যার বিষয়ে প্রমাণিত ১৪তম অভিযোগে বলা হয়েছে, ৭ অক্টোবর আলীমের আদেশে জয়পুরহাটের সিও অফিসের সামনে থেকে মৃত আলহাজ আব্দুর রহিমের ছেলে মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল করিম ও অন্য দু’জনকে ধরে নিয়ে যায় শান্তি কমিটির সদস্য, রাজাকার ও পাকিস্তানি সেনারা। পরে আলীমের নির্দেশে ও উপস্থিতিতে তাদের খানজাহানপুর কুঠিবাড়ি ঘাটে নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। তাদের মরদেহও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

প্রমাণিত হয়নি অভিযোগ

আলীমের বিরুদ্ধে যে ৬টি অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়নি সেগুলো হচ্ছে- পাহনন্দায় গণহত্যা চালিয়ে ২২ জনকে হত্যা (৩ নম্বর অভিযোগ), গাড়োয়াল সম্প্রদায়ের ২৬ জনকে হত্যা (১১ নম্বর অভিযোগ), ১১ যুবককে হত্যা (১৩ নম্বর অভিযোগ), জয়পুরহাট চিনিকলে হত্যা (১৫ নম্বর অভিযোগ), আক্কেলপুরের বিভিন্ন স্থানে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেওয়া (১৬ নম্বর অভিযোগ) এবং মুক্তিযোদ্ধা জব্বল হত্যার বিষয়ে (১৭ নম্বর অভিযোগ)।

পাহনন্দায় গণহত্যা চালিয়ে ২২ জনকে হত্যা সংক্রান্ত প্রমাণিত না হওয়া তৃতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরের ১৮ জুন আলীমের নির্দেশ ও প্ররোচনা অনুসারে, শান্তি কমিটির সদস্য রিয়াজ মৃধা ১১ জন পাকিস্তানি সেনা নিয়ে জুমার নামাজের আগে ও পরে ২২ জন মুসল্লিকে ধরে আনেন। মসজিদের আশপাশের নওপাড়া, চরবরকতপুর ও চিলোরা গ্রাম থেকে তারা আরও পাঁচশ’ নিরস্ত্র মানুষকে ধরে এনে জনৈক আফাজের বাড়ির উঠানে তিনটি সারিতে দাঁড় করায়। রিয়াজ মৃধা পাকিস্তানি সেনাদের আলীমের দেওয়া একটি তালিকা দেন, যা অনুসরণ করে সেনারা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ও আওয়ামীপন্থী ২৮ জনকে চিহ্নিত করে। বাকিদের চলে যেতে দেওয়া হয়। এরপর চিহ্নিত ২৮ জনকে হাত বেঁধে একটি মাটির ঘরে নিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। ২২ জন মারা যান, বাকিরা পালিয়ে যেতে সমর্থ হন।

গাড়োয়াল সম্প্রদায়ের ২৬ জনকে হত্যার বিষয়ে ১১তম অভিযোগে বলা হয়েছে, ২৫ জুন থেকে ৩০ জুনের মধ্যে কোনো একদিন ভারতগামী স্থানীয় গাড়োয়াল সম্প্রদায়ের ২৬ জনকে আটক করে আলীমের সহযোগী ও পাকিস্তানি সেনা সদস্যরা। আটককৃতদের প্রথমের আলীমের বাড়িতে ও পরে শাওনাল বাজলার গদি ঘরে শান্তি কমিটির অফিসে আনা হয়। পরে আলীমের নির্দেশে খঞ্জনপুর কুঠিবাড়ি ব্রিজের কাছে তাদের গুলি করে হত্যা করা হয় এবং তাদের মৃতদেহগুলো নদীতে ফেলে দেওয়া হয়।

১১ যুবককে হত্যা সংক্রান্ত ১৩তম অভিযোগে বলা হয়েছে, সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী জয়পুরহাট সরকারি ডিগ্রি কলেজ থেকে ১১ জন যুবককে ধরে নিয়ে ট্রাকে করে বারঘাটির কাছে একটি জায়গায় নিয়ে যায়। আলীম তখন সেখানে গিয়ে তাদের হত্যার নির্দেশ দেন। পরে ১১ যুবককে ট্রাক থেকে বারঘাটি পুকুরের দক্ষিণ পাশে নিয়ে গুলি করে হত্যা করে।

চিনিকিলে হত্যার বিষয়ে ১৫তম অভিযোগে বলা হয়েছে, আলীমের নির্দেশে ২৫ অক্টোবর ২৫ জন বাঙালিকে আটক করে জয়পুরহাট সুগার মিলের কাছে পাকিস্তানি সেনা ক্যাম্পে নেওয়া হয়। তাদেরকে ৮ রাত আটক রাখার পর আলীমের নির্দেশে হত্যা করা হয়। নির্যাতিত পাঁচবিবি থানার সোলায়মান আলী ফকির, আব্দুল খালেক, আব্দুস সামাদ ও আফতাব হোসেন দেশান্তরি হতে বাধ্য হন আলীমের কারণে।

আক্কেলপুরের বিভিন্ন স্থানে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেওয়া সংক্রান্ত ১৬তম অভিযোগে বলা হয়েছে, আব্দুল আলীম একাত্তরে আক্কেলপুরের বিভিন্ন স্থানে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে মানবতাবিরোধী অপরাধ করেন। তিনি সোলায়মান আলী ফকিরের মিল প্রাঙ্গণ, আক্কেলপুর রেলওয়ে স্টেশন, বিভিন্ন মাদ্রাসায় স্থাপিত সেনাক্যাম্প, শান্তি কমিটির অফিস ও দুর্গাবাবুর দালানঘরে উসকানিমূলক বক্তব্য রাখেন। এতে করে রাজাকার ও শান্তি কমিটির সদস্যরা মানবতাবিরোধী অপরাধে উৎসাহিত হয়।

মুক্তিযোদ্ধা জব্বল হত্যার বিষয়ে ১৭তম অভিযোগে বলা হয়েছে, নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে বীর মুক্তিযোদ্ধা ইপিআরের ১৭ উইংয়ের সুবেদার মেজর জব্বল হোসেন গুরুতর আঘাত পেয়ে জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি থানার ধূরইল গ্রামের নাজিম উদ্দিনের বাড়িতে আশ্রয় নেন। খবর পেয়ে আলীম পাকিস্তানি সেনা, স্থানীয় শান্তি কমিটি ও রাজাকার বাহিনীর সহায়তায় ঈদুল ফিতরের দিন নাজিম উদ্দিনের বাড়িতে হামলা করে জব্বল হোসেনকে ধরে জয়পুরহাটের শাওনাল বাজলার গদি ঘরে শান্তি কমিটির অফিসে নিয়ে আসেন। পরে আলীম তাকে হত্যা করেন।

সাক্ষী নেই অভিযোগের

আলীমের বিরুদ্ধে পাঁচবিবিতে ১৯ জনকে হত্যা ও দক্ষিণ পাহনন্দা গ্রামের মিশন স্কুলে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৬৭ জনকে গুলি করে হত্যার অভিযোগ আনা হয় যথাক্রমে ৪ ও ৫ নম্বর অভিযোগে। এ দু’টি অভিযোগে প্রসিকিউশন কোনো সাক্ষী না আনায় কোনো মতামত দেননি ট্রাইব্যুনাল।

পাঁচবিবিতে ১৯ জনকে হত্যা সংক্রান্ত চতুর্থ অভিযোগে বলা হয়েছে, মে মাসের প্রথম দিকে একদিন সকালে আলীমের নির্দেশ অনুসারে পাকিস্তানি সেনাদের শান্তি কমিটি ও রাজাকার বাহিনীর সদস্যরা রেলগাড়িতে করে বকুলতলা নামক স্থানে যান। সেখান থেকে তারা দু’টি ভাগে বিভক্ত হয়ে কোকতারা, ঘোড়াপা, বাগজানা, কোটাহারা গ্রামের নিরস্ত্র নিরীহ মানুষের ওপর হামলা ও লুটপাট চালায়। এ সময় ১৯ জন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোককে হত্যা করা হয়।

দক্ষিণ পাহনন্দা গ্রামের মিশন স্কুলে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৬৭ জনকে গুলি করে হত্যা সংক্রান্ত পঞ্চম অভিযোগে বলা হয়েছে, মে মাসের ৯ থেকে ১৫ তারিখের মধ্যে আলীমের নির্দেশ ও উস্কানিতে রাজাকার, শান্তি কমিটির সদস্য ও পাকিস্তানি সেনারা জয়পুরহাটের দক্ষিণ পাহনন্দা গ্রামের মিশন স্কুলে যায়। সেখানে ৫০-৬০ জন আলীমের নির্দেশে ও প্ররোচনায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ৬৭ জনকে গুলি করে হত্যা করে। এর মধ্যে সাতজনকে গ্রামবাসীর উপস্থিতিতে হত্যা করা হয়েছিল। বাকিরা পাগলা দেওয়ান নামক জায়গায় গিয়ে কয়েকজন গ্রামবাসীকে ডেকে তাদের দিয়ে কয়েকটি গর্ত খনন করায়। ওই গর্তে হিন্দু সম্প্রদায়ে অপরিচিত ওই ৬৭ জন নিরস্ত্র লোককে মাটিচাপা দেওয়া হয়।
উল্লেখ্য, আলীমের বিরুদ্ধে ১৭টি অভিযোগের মধ্যে ১৫টিতে বিভিন্ন ঘটনায় মোট ৫৮৫ জনকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে। বাকি দু’টি অভিযোগ আনা হয়েছে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, আটক ও দেশান্তরে বাধ্য করার ঘটনায়। এসব অভিযোগ আনা হয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনালস) আইন’১৯৭৩ এর ৩(১), ৩(২)(এ), ৩(২)(সি), ৩(২)(জি), ৩(২)(আই), ২০ (২) এবং ৪ (১) ও ৪ (২) ধারা অনুসারে।
হত্যার অভিযোগের ১৫টি ঘটনার মধ্যে তিনটি গণহত্যার অভিযোগ রয়েছে, যাতে মোট ৪০৬ জনকে হত্যা করা হয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে। শহীদদের বেশিরভাগই ছিলেন হিন্দু সম্প্রদায়ের।

এছাড়া যুদ্ধাপরাধের ঘটনায় ‘সুপিরিয়র রেসপনসিবিলিটির’ জন্যও অভিযুক্ত হয়েছেন আব্দুল আলীম।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪