গ্রামীণ অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে পল্লীসঞ্চয় ব্যাংক গঠন করা হবে- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

PM1_9402-2-2ঢাকা অফিস: একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের সফল অংশগ্রহণকারীদের পুরস্কার বিতরণী এবং এ প্রকল্পের উপকারভোগীদের মধ্যে ডিজিটাল লেনদেন কার্যক্রমের উদ্বোধন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে বুধবার এ কথা জানান তিনি। গ্রামের প্রতিটি দরিদ্র পরিবাকে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করে দারিদ্র্য দূর করার লক্ষ্যে এর আগের আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্প শুরু করলেও ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় এসে তা বন্ধ করে দেয়। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসে এ প্রকল্প আবার চালু করার পর ইতোমধ্যে ১৭ হাজার ৩০০ গ্রামের দশ লাখ ৩৮ হাজার পরিবারকে এক হাজার ৩৩২ কোটি টাকার তহবিল গঠন করে দেওয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানের শুরুতেই এ প্রকল্পের সুবিধাভোগী খুলনার বেগম দণিকা মিস্ত্রী ও আব্দুল গণি মাতবর এ প্রকল্পের জন্য একটি বিশেষায়িত ব্যাংক গঠনের আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যের শেষ দিকে এ ব্যাংকের বিষয়টি উল্লেখ করলে উপস্থিত সবাই হাততালি দিয়ে ওঠেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি তো এখনো ঘোষণা দিইনি। দেখেন কি বলি…।” তারপর শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা মনে করি, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প দ্রারিদ্রতা হ্রাসের পথ দেখাচ্ছে, সেখানে পল্লীসঞ্চয় ব্যাংক হওয়া দরকার।” প্রধানমন্ত্রীর ভাষায়, এই ব্যাংক হবে গরীব মানুষের জন্য। “এটা নিয়ে কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে, তা নিশ্চিত করতে হবে। তবে এজন্য অর্থমন্ত্রণালয়কে বোঝাতে হবে। কারণ এটা নতুন কনসেপ্ট।” প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমরা কর্মসংস্থান ব্যাংক এবং প্রবাসী ব্যাংক করেছি। দারিদ্র্য দূর করে আমরা মানুষকে উন্নত জীবন দেব।” প্রধানমন্ত্রী কারো নাম উল্লেখ না করে ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের দিকে ইংগিত করে বলেন, “এক জায়গা থেকে ঋণ নিচ্ছে। তার সুদ দিতে দিতে আবার ঋণ নিতে হচ্ছে। সুদের বোঝা নিয়ে ঋণের বোঝায় জর্জরিত হয়ে ঋণের বোঝা থেকে মুক্ত হচ্ছে না। “আমরা চাই আমাদের গ্রামের মানুষরা নিজেরাই উৎপাদন করবে, দারিদ্রের হাত থেকে মুক্তি পাবে।” প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একটি সূত্র জানায়, প্রতিটি উপজেলায় এই পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক গড়ে তোলার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। এ ব্যাংকের মালিক হবেন গ্রামের দরিদ্র জনগণ। এ ব্যাংক থেকে যে মুনাফা আসবে তার পুরাটাই সদস্যরা নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিতে পারবেন।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে ‘সোনার ডিম পাড়া হাঁসের’ গল্প মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, “একটি বাড়ি একটি প্রকল্পকে অত্যন্ত মনোযোগ দিয়ে করতে হবে। হটাৎ বড়লোক হওয়ার চিন্তায় একে যেনো ধ্বংস করা না হয়।” শেখ হাসিনার মতে, ‘একটু’ সফল হওয়ার পর অনেকেই ‘সোনার ডিম পাড়া হাঁসের মতো’ সমবায় থেকে সব নিয়ে নেয় বলেই সমবায় আন্দোলন সাফল্য পায়নি। “সমবায় ছাড়া উৎপাদন বাড়াতে পারব না, অর্থনৈতিক উন্নয়ন আনতে পারব না। হটাৎ বড়লোক না হওয়ার চিন্তা বাদ দিয়ে আস্তে আস্তে স্বাবলম্বী হতে হবে।” খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ‘প্রতি ইঞ্চি’ জমিতে আবাদ করার তাগিদ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, গ্রামে যারা অনাবাসী তাদের জমিও যেনো অনাবাদী না থাকে। গ্রামে কৃষিজাত পণ্য প্রক্রিয়াজাত করতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প গড়ে তোলা হলে রপ্তানি পণ্য বৃদ্ধির পাশাপাশি গ্রামগুলো স্বাবলম্বী হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি দেন, আওয়ামী লীগ আবারো ক্ষমতায় গেলে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্য়ন্ত নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করা হবে। “আবাসিক প্লট দেওয়া হবে। সকল সুবিধা দেওয়া হবে। গ্রামের মানুষ উন্নত জীবন পাবে।” একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের আরো যত্নবান হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “এটা সম্পূর্ণ আমার চিন্তা থেকে। দেখেন এটা যেনো ধ্বংস না হয়।” সরকারপ্রধান আশা প্রকাশ করেন, এই প্রকল্পের মাধ্যমে গ্রামের প্রতিটি পরিবার দারিদ্রের হাত থেকে মুক্তি পাবে, উন্নত জীবন পাবে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম তার বক্তব্যে আওয়ামী লীগের আবরো নির্বাচিত করার পক্ষে যুক্তি দিয়ে বলেন, “শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী হতে হবে এই কারণে, বাংলাদেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। উনি ৯৬ সালে যে উন্নয়ন শুরু করেছিলেন- আরেকটা টার্ম থাকলে বাংলাদেশের এ অবস্থা হতো না। “২০০১ সালের নির্বাচনে আমিও প্রার্থী ছিলাম। ১৯৭১ সালে পাকিস্তান আর্মির যে বর্বরতা হয়েছিল, সেরকম বর্বরতা করা হয়েছিল। ইলেকশনের দিন একজন মুক্তিযোদ্ধা মুক্তিযুদ্ধের গেঞ্জি পড়ে ভোট দিতে যাচ্ছিলেন। তাকে ভোট দিতে যেতে দেয়া হয়নি। শেখ হাসিনাকে সেবার নির্বাচিত হতে দেয়নি। এবার যেন তা না হয়।” জনগণ স্বাধীনভাবে ভোট দিতে পারলে আওয়ামী লীগ আবারো নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে বলে আশা প্রকাশ করেন দলের সাধারণ সম্পাদক।

“প্রধানমন্ত্রী দুই দুইবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। আমাদের শেখ হাসিনাকে দরকার। দেশকে এগিয়ে নিতে দরকার শেখ হাসিনা সরকার”- এই বলে আশরাফ তার বক্তব্য শেষ করেন।

স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, “বাংলাদেশকে বেগম খালেদা জিয়া জঙ্গি রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। খালেদা জিয়া বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানাতে চায়। যে পাকিস্তানে মানুষ মসজিদে নামাজ পড়তে গেলে লাশ হয়ে ফেরে। আপনারা কী সেই পাকিস্তান চান?” বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের জন্য অন-লাইন ডিজিটাল লেনদেন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এছাড়া এ প্রকল্পের সফল অংশগ্রহণকারীদের পুরস্কৃত করেন।

মাদারীপুরের তসলিমা বেগম ও চুয়াডাঙ্গার আলী হোসেন শ্রেষ্ঠ উপকারভোগী; খুলনার দণিকা মিস্ত্রি ও শরিয়তপুরের গণি মাতবর শ্রেষ্ঠ ম্যানেজার, ঝিনাইদহের জোলখা বেগম ও সাতক্ষীরার মিজানুর রহমান শ্রেষ্ঠ সভাপতি; যশোরের রত্না রায় ও ঝিনাইদহের রাশেদুল হক শ্রেষ্ঠ মাঠ সংগঠক; রংপুরের লেবু মিয়া শ্রেষ্ঠ উপজেলা সমন্বয়কারী; যশোরের শাহানারা বেগম শ্রেষ্ঠ পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা; পাবনার রায়হান উদ্দিন শ্রেষ্ঠ উপজেলা কর্মকর্তা, নরসিংদীর ইউনিস আলী ভূইয়া শ্রেষ্ঠ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান; নারায়ণগঞ্জের ফারহানা কাওনাইন শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পুরস্কার পান।

১২ ক্যাটাগরিতে মোট ১৯ জনের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠান শুরুর আগে প্রধানমন্ত্রী ‘একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের’ মাঠ পর্যায়ের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে খোঁজ-খবর নেন। তৃণমূল এলাকায় উঠোন বৈঠকের কার্যক্রমও প্রধানমন্ত্রীকে দেখানো হয়। সম্মেলন কেন্দ্র প্রাঙ্গণে একটি উঠোন বৈঠকেও অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের সঙ্গে মতবিনিময়ও করেন। পরে এ প্রকল্পের আওতায় নেয়া বয়োগ্যাস উৎপাদন কেন্দ্র, সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ফল ও সবজির খামার, মহিলাদের পরিচালনায় ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন কার্যক্রমের মডেল ঘুরে ঘুরে দেখেন তিনি। এ সময় ফলের খামার থেকে প্রধানমন্ত্রীকে একটি পেঁপে এবং সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে একটি শাড়ি উপহার দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী মিলনায়তনে আসার পর পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের ওপর একটি প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়। স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন বিভাগের সচিব এম এ কাদের সরকারের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে প্রকল্প পরিচালক প্রশান্ত কুমার রায় ‘একটি বাড়ি একটি ফামার’ প্রকল্পের কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত করেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪