**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সরকারি প্রাথমিক শিক্ষকদের পদমর্যাদা বাড়ছে লাগবে ৬০০ কোটি টাকা

dpe_logoযুগের খবর ডেস্ক:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তার পদমর্যাদা এবং সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল উন্নীত হচ্ছে। দেশের ৩৭ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছাড়াও নতুন করে জাতীয়করণ করা ২৬ হাজার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা এই সুবিধা পাবেন। এতে সরকারের প্রায় ৬০০ কোটি টাকার প্রয়োজন হবে।
জানা গেছে, জনপ্রসাশন মন্ত্রণালয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পদমর্যাদা উন্নীতকরণে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে এর সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে চলতি সপ্তাহে পাঠানো হতে পারে। পরবর্তীতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সবুজ সঙ্কেত মিললে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে প্রজ্ঞাপন জারি করবে। শিক্ষকদের পদমর্যাদা বৃদ্ধিতে প্রধানমন্ত্রীর মনোভাব ইতিবাচক। তাই অর্থ মন্ত্রণালয় আপত্তি তুলবে না, এমনাটা ধরেই প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় দ্রুত বাস্তবায়নের কাজ করে যাচ্ছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় বেতন স্কেল-২০০৯ অনুযায়ী বর্তমানে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত) ১৩তম গ্রেডে বেতন ও সুবিধাদি পাচ্ছেন। প্রশিক্ষণবিহীন প্রধান শিক্ষক পাচ্ছেন ১৪তম গ্রেডে। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষক ১৫তম গ্রেড এবং প্রশিক্ষণবিহীন সহকারী শিক্ষক ১৬তম গ্রেডে বেতন ও সুবিধাদি পাচ্ছেন।
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তার পদমর্যাদা দেয়া হলে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ১০ম এবং প্রশিক্ষণবিহীন প্রধান শিক্ষক ১১তম গ্রেডে বেতন ও সুবিধাদি পাবেন। এছাড়া সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল উন্নীত হলে সেক্ষেত্রে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষক ১৩তম গ্রেড এবং প্রশিক্ষণবিহীন সহকারী শিক্ষক ১৪তম গ্রেডে বেতন ও সুবিধাদি পাবেন। এতে করে সরকারের অতিরিক্ত ৬০০ কোটি টাকার প্রয়োজন হবে।
দেশের ৩৭ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছাড়াও নতুন করে জাতীয়করণ করা ২৬ হাজার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা এ সুবিধা পাবেন। নতুন করে জাতীয়করণ করা বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষকদের চাকরি সরকারিকরণের প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়নি। প্রজ্ঞাপন জারির পর শিক্ষকরা পদমর্যাদা উন্নীতকরণের সুবিধা পাবেন। এ প্রসঙ্গে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-সচিব সন্তোষ কুমার অধিকারী বলেন, জনপ্রসাশন মন্ত্রণালয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পদমর্যাদা উন্নীতকরণে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তার পদমর্যাদায় তিন ধাপ এবং সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল উন্নীতিতে দুই ধাপ বৃদ্ধির সুপারিশ করা হয়েছে বলে তিনি জানান। চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের পর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে প্রজ্ঞাপন জারি করবে বলে তিনি জানান।
সম্প্রতি সারাদেশের প্রাথমিক শিক্ষকরা দীর্ঘদিন ধরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তার পদমর্যাদা, সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল প্রধান শিক্ষকের একধাপ নিচের স্কেলে নির্ধারণ, শিক্ষকদের নিয়োগবিধির পরিবর্তন এবং সহকারী শিক্ষকদের দ্রুত পদোন্নতি, প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত করার ঘোষণা বাস্তবায়ন এবং প্রাথমিক শিক্ষার সব কাজে প্রাথমিক শিক্ষকদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার দাবিতে আন্দোলনে নামে। সমাপনী পরীক্ষার আগ মুহূর্তে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে দাবি আদায়ে শিক্ষকরা আন্দোলনে নামায় এতে শিক্ষা কার্যক্রম বিঘœ হওয়ায় সন্তানের ফল বিপর্যয়ের আতঙ্কে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন অভিভাবকরা। সরকারের পক্ষ থেকে দাবি পূরণের আশ্বাস দেয়া হলে শিক্ষক সংগঠনগুলো আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেয়।
শিগগিরই পুলভুক্ত প্রাথমিক শিক্ষকদের নিয়োগ : এদিকে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য গঠিত শিক্ষক পুলের (চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ কাঠামো) ১৫ হাজার শিক্ষককে নিয়োগ করা হবে। ইতোমধ্যে দফায় দফায় চিঠি চালাচালি করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় তাদের কাজ শেষ করে এনেছে।
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক সঙ্কট নিরসনে এক বছরেরও বেশি সময় আগে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এই শিক্ষক পুল গঠন করা হয়েছিল বলে জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী আফছারুল আমীন। তিনি বলেন, পুলের শিক্ষকদের নিয়োগের বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয়ে ঝুলে আছে। অর্থ মন্ত্রণালয় অনুমোদন দিলেই শিক্ষকরা নিয়োগ পাবেন।
জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের জন্য ছুটি, সরকারি কাজে অন্যত্র গমন এবং ৭০ ভাগ নারী শিক্ষকের মাতৃত্বকালীন ছুটিসহ নানা কারণে শিক্ষক সঙ্কটে পাঠদান ব্যাহত হওয়া থেকে মুক্তির জন্য ‘শিক্ষক পুল’ গঠন করা হয়েছিল। শিক্ষক পুল গঠনের লক্ষ্য ছিল সাময়িক শিক্ষক ঘাটতি পূরণে বিদ্যমান শিক্ষকদের বিপরীতে ১০ শতাংশ হারে লিভ রিজার্ভ পদ সৃষ্টি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪