প্রথম আলোর চর প্রাথমিক বিদ্যালয়: অভিভাবক ও শিশুদের চোখে এখন উচ্চ শিক্ষার আলোর স্বপ্ন

হাসান-উজ জামান পলাশ: প্রথম আলোর চর প্রাথমিক বিদ্যালয় শিশুদের চোখে এখন উচ্চ শিক্ষা পূরণের স্বপ্ন। পুরণ হয়েছে চরবাসীর সু-দীর্ঘ বছরের প্রতিক্ষা। যে চরে বিদ্যালয়তো দূরের কথা চরের নামও জানতনা চর বাসী। প্রথম আলো বন্ধু সভার বন্ধুরা এই নামহীন চরের লোকজন কে বিভিন্ন সময়ে সাহায্য সহযোগিতা করে আসছিল। ২০০৪ সালের ১৫ নভেম্বর পবিত্র ঈদুল আযহা। প্রথম আলো কুড়িগ্রাম বন্ধু সভার বর্তমান সভাপতি মোকলেছুর রহমান মুকুল ও নিজস্ব প্রতিবেদক শফিখান চরবাসীর সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগা ভাগী করার জন্য চরে যান। সেখানে তারা একটি গরু কোরবানির ব্যবস্থা করেন। সেখানকার শিক্ষক মোঃ মোক্তার হোসেনের বাড়ীর সামনে চরবাসী হাজির। গরু  কোরবানির পূর্ব মুহূর্তে বন্ধু সভার বন্ধু জাহিদুল ইসলাম চরবাসীর উদেশ্যে বলেন আমারা এই চরে দীর্ঘ দিন ধরে বাস করি। কিন্তু এই চরের নাম নেই, আমরা কোন নাম ঠিকানা বলতে পারিনা। আমি একটি নাম দিচ্ছি আপনারা সবাই মানবেন? তখন সবাই বলে অবশ্যই মানব তখন জাহিদ বলেন প্রথম আলো বন্ধু সভার বন্ধুরা বিপদে-আপদে আমাদের কে দীর্ঘ দিনে থেকে সাহায্য সহযোগিতা করে আসছে । বিনিময়ে তারা কিছু চান না । তাই আমরা এই নামহীন চরের আজ থেকে নাম দিলাম “প্রথম আলোরচর”। তখন উপস্থিত চরবাসী মহা আনন্দে নামটিকে সাধুবাদ জানায়। পরবর্তীতে ভূমি জরিপে চরটি ঘোগাদহ ইউনিয়নে অন্তর্ভূক্ত হয়। সেদিন থেকে পায় একটি মানচিত্র। একসময় এই চরে শিক্ষাছিল দুর্লভ বিষয়। চরবাসী কখন কল্পনা করেনি। এখানে একটি বিদ্যালয় হবে। এখানকার ছেলে মেয়েরা আর্থিক দৈন্যতা এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা নাজুক থাকার কারণে শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত থাকত একটু বড় হলে পাড়ি জমাতো কাজের সন্ধানে দেশের বিভিন্ন জেলায়। প্রথম আলোর প্রতিবেদক শফিখান গভীরভাবে এই চরের শিশুদের ঝরে পরার দুঃখ অনুধাবন করে তার ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠা এবং প্রথম আলো বন্ধু সভা কুড়িগ্রামের বন্ধুদের সহযোগিতায় ২০১০ সালে প্রথম আলো ট্রাষ্ঠের পরিচালনায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে “প্রথম আলোরচর প্রথমিক বিদ্যালয়”। সেখানে ৩ শতাধিক ছেলে মেয়ে নিয়মিত পাঠদান করছে। বর্তমানে শিক্ষক আছেন ৫ জন। এছাড়া বতর্মানে চালু হয়েছে ৬ষ্ঠ শ্রোণী পর্যন্ত পাঠদান। এইচরের অবিভাবকও শিশুরা জানতনা ১৬ ডিসেম্বর, ২৬মার্চ, ২১ ফেব্রুয়ারি  কি দিবস। কিন্তুু প্রথম আলোর চর প্রাথমিক বিদ্যায়ল খুলে দিয়েছে শিশুদের তৃতীয় নয়ন। এই বিশেষ দিন গুলো আসলে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে এখন আনন্দ উৎসব শুরু হয়ে যায়। বিদ্যালয়ের সামনে নির্মিত বালুর ভাস্কর্য সৃতিসৌধে ফুলদিয়ে শহীদের স্মরণ করেন ছাত্র-ছাত্রীরা। দিনব্যাপি আয়োজিত হয় বিভিন্ন সাং¯ৃ‹তিক অনুষ্ঠান, যা আগে কল্পনা করত না ওই চরের বাসিন্দারা। অনেক কুসংস্কার প্রতিবন্ধকতা ধীরেধীরে বিলিন হচ্ছে অবিভাবকদের মাঝ থেকে। তারা এখন সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে এগিয়ে আসছে বিভিন্ন সামাজিক কাজে। প্রথম আলোর চরের বাসিন্দাদের চোখে এখন আলোর স্বপ্ন। ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবক আবু বক্কর, সামা, সাহাবুদ্দিন, রঙ্গিলা, মমতা, আনোয়ারা শরিফা, লায়লা সবাই বলেন, প্রথম আলো স্কুল না হলে আমাদের সন্তাদের প্রাইমারি গন্ডি পার করতে পারত না। এখানে স্কুল হওয়াতে আমাদের ভাল উপকার হয়েছে। আমরা এজন্য প্রথম আলো প্রতিনিধি শফি ভাইয়ের নিকট কৃতজ্ঞ। তিনি এজন্য যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী মমতা, মনোয়ারা, রফিকুল, আল আমিন, ফজলু বলেন, বাড়ির পার্শ্বে স্কুল হওয়াতে আমরা প্রতিদিন স্কুলে যাইতে পারি। এটা আমাদের জন্য খুব ভাল হয়েছে। শিক্ষক মোয়াজ্জেম, রানা, আফরোজা, আকলিমা বলেন এখানকার ছোট ছেলে-মেয়েদের পড়াতে পেরে আমরা আনন্দিত। শিশুরা প্রথম আলোর চর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা গ্রহণ করে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করবার স্বপ্ন দেখছে অভিভাবকরা। ৫ম শ্রেণি পেড়–লে তার পর কোথায় পড়াবে তা নিয়ে শিশুরা যেমনি ছিল চিন্তিত তেমনি অভিভাবকদের উদ্বিগ্নের কমতি ছিল না। কিন্তু এখন নতুন করে ৬ষ্ঠ শ্রেণি চালু হওয়ায় তারা আশাবাদী। অভিভাবকরা মনে করেন, পর্যায়ক্রমে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত চালু হবে এই বিদ্যালয়ের পাঠদান।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪