**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সেনা মোতায়েন ২৬ ডিসেম্বর

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস:
আগামী ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিততব্য দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ২৬ ডিসেম্বর থেকে ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত মোট ১৫দিন সেনা বাহিনী মোতায়েন করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। একই সাথে এই নির্বাচন প্রতিহত করার লক্ষ্যে বিরোধী জোটের সহিংস আন্দোলনের মধ্যে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি। শুক্রবার সন্ধায় তিনি এ তথ্য জানান। এর আগে বিকাল সোয়া তিনটায় সিইসির সভাপতিত্বে এনইসির সম্মেলন কেন্দ্রে নির্বাচন পরিচালনা ও আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা শুরু হয়, চলে সন্ধা সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত। এতে রিটার্নিং কর্মকর্তা (ডিসি) ও সংশ্লিষ্ট আইন শৃংখলা বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে ইসির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিইসি বলেন, ১৯৭৩ সাল থেকে সেন্কাহিনী আমাদের নির্বাচনে সহায়তা করে আসছে। আমরা বার বার বলে এসেছি, সেনা সহায়তা ছাড়া জাতীয় নির্বাচন সম্ভব নয়। তারা ২৬ ডিসেম্বর থেকে ৯ জানুয়ারী পর্যন্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে মাঠে থাকবে। তবে পরিস্থিতি পর্যালচনা করে কোনো কোনো স্থানে কম ও বৃদ্ধি হতে পারে। কত সংখ্যক সেনা সদস্য মোতায়েন করা হবে সে বিষয়ে কাজী রকিবউদ্দীন বলেন, রিটানিং কর্মকর্তারা বসে এর সংখ্যা স্থির করবেন। তাদের চাহিদা মতো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় এটা নির্ধারণ করবেন। তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনে যত সংখ্যক সেনা ছিলো সে পরিমাণ হতে পারে। লোকাল কন্ডিশনের উপর ভিত্তি করে তারা থাকবেন। তবে ইসি সূত্রে জানা গেছে, প্রতি জেলায় এক ব্যাটেলিয়ান করে সারাদেশে ৫০ হাজারের বেশি সেনা সদস্য রিটানিং কর্মকর্তার নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে নিয়ে কাজ করবে। এক প্রশ্নের উত্তরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, প্রত্যাশা করেছিলাম সব দলের অংশগ্রহণে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। আগেই তো বলা যাচ্ছে না, দেখি কেমন নির্বাচন হয়। নির্বাচন হোক তার পরে দেখি। আমরা ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের জন্য যাচ্ছি। আচরণবিধির বরখেলাপ কোনোভাবে বরদাস্ত করা হবে না। ইউরোপিয় ইউনিয়ন নির্বাচনে পর্যবেক্ষক না পাঠানোর সিদ্ধান্তের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, তারা কোন বিষয়ের ওপর এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা আমার জানা নেই। তবে পরিস্থিতির উন্নতি হলে সবাই আসবে বলে ইসি আশা করছে। পর্যবেক্ষেণ করা যার যার ব্যবস্থা উনারা করবেন। আইন-শৃঙ্খলার উন্নতি হলে তারা আসবেন। আর না আসলে এটা যার যার ব্যাপার। তবে ইউরোপিয় ইউনিয়ন আসছে না এমন তথ্য আমরা পাইনি। বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, সভায় রিটার্নিং কর্মকর্তারা (ডিসি) আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে সিইসিকে জানান। আগামী কয়েক দিনে এই পরিস্থিতির আরো উন্নতি হবে বলেও আশস্ত করেন সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষ। পরে তাদের পরামর্শ অনুযায়ী সেনা মোতায়েনের এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বৈঠক শেষে কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সশস্ত্রবাহিনী অতীতের মতোই কাজ করবে। তিনি বলেন, সন্ত্রাসী কোনো দলের হয় না। তারা জনগণের কল্যাণে কাজ করে না। তারা টাকার বিনিময়ে কাজ করে। এদের দমনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও সন্ত্রাসী গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়েছে। তা অব্যাহত রাাখতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ভোটারদের নিরাপত্তা এবং ভোটদানে সহযোগীতা করতে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তায় কাজ করবে আইন শৃংখলা বাহিনী। অপরাধীদের তাৎক্ষণিক শাস্তির ব্যবস্থা করতে সেনাবাহিনী ও বিজিবির সাথে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে থাকবে বলেও জানান সিইসি। এক প্রশ্নের জবাবে কাজী রকিব বলেন, বেশ কয়েকজন প্রার্থীকে ইতোমধ্যে নিরাপত্তা দেয়া হয়েছে। আরো যেসব প্রার্থী নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন করেছেন তাদের নিরাপত্তা দেয়া হবে। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, অর্থমন্ত্রণালয়ের সচিব, মহাপরিচালক-বিজিবি, আনসার, ভিডিপি, কোস্টগার্ড, এনএসআই, এসবি, ডিজিএফআই ও র‌্যাব, অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক পুলিশ, বিভাগীয় কমিশনার, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, উপ মহাপরিদর্শক (সকল রেঞ্জ), ডিসি (রিটার্নিং কর্মকর্তা), পুলিশ সুপার, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা, পরিচালক-আনসার ভিডিপি (সকল রেঞ্জ), সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা। আইন শৃংখলা বাহিনীর সভার কার্যপত্র থেকে জানা যায়, আসন্ন নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ন পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সারাদেশে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ রাখা, প্রার্থীদের নির্বাচনী কার্যক্রম ও প্রচারণা করা এবং ভোটারদের নির্ভয়ে ভোট দেয়া নিশ্চিত করতে আইন শৃংখলা বাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে হবে। নির্বাচনী এলাকায় শান্তি শৃংখলা রক্ষায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে সশস্ত্র বাহিনী, বিজিবি, কোস্ট গার্ড, র‌্যাব ও আর্মড পুলিশ। ব্যাটালিয়ান আনসার সহযোগী ফোর্স হিসেবে পুলিশের সাথে মোবাইল টিমের দায়িত্বে থাকবে পুলিশ। ভোটদানের জন্য ভোটাগন যাতে নির্ভিগ্নে ও স্বাচ্ছন্দে ভোটকেন্দ্রে আসতে পারেন, সে জন্য নিশ্চিয়তামূলক পরিবেশ সৃষ্টির জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ভ্রাম্যমান ইউনিটসমূহ কাজ করবে। গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ও ভোটকেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা এবং যে কোন প্রকার অশুভ কার্যকলাপ প্রতিরোধে সজাগ থাকতে আইন শৃংখলা বাহিনীকে কড়া নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সচিবালয় এবং রিটার্নিং অফিসার এর কার্যালয়ে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি অবলোকনের জন্য াআগামী ১ জানুয়ারি থেকে একটি সেল খোলা হবে। এই সেল পরবর্তী নির্দেশ না দেয় পর্যন্ত আইন শৃংখলা পর্যবেক্ষণ করবে এবং প্রাপ্ত পরিস্থিতি সম্বন্ধে সিম্মলিত বাহিনীকে অবহিত করবে। বৈঠকে উপস্থিত রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রতিনিধিরা তাদের এলাকা পরিস্থিতি সম্পর্কে জানান। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় অস্ত্র উদ্ধার অভিযান, চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার এবং প্রার্থীদের নানা অনিয়ম প্রতিরোধে নির্বাচন কমিশনের দিকনির্দেশনা চান। কার্যপত্র অনুযায়ী, প্রতি কেন্দ্রে ৪ জন অস্ত্রধারীসহ ১৫ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ৫ জন অস্ত্রধারী সহ ১৬ দায়িত্ব পালন করবে। এছাড়া মেট্রোপলিটন এলাকায় প্রতিকেন্দ্রে ৪ জন অস্ত্রধারীসহ ১৬ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ৫ জন অস্ত্রধারী সহ ১৮ জন দায়িত্ব পালন করবে। পার্বত্য এলাকায় ৬ জন অস্ত্রধারী সহ ১৭ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ৮ জন অস্ত্রধারীসহ ১৯ জন পুলিশ ও অন্যান্য বাহিনীর সদস্য কাজ করবে। নির্বাচনের আগে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১৫৪ জন প্রার্থী নির্বাচিত হওয়ায় বাকী ১৪৬টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে ৬১ জন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও ২৮৬ জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন। এই নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৪ কোটি ৩৬ লাখ ৮৫ হাজার ৬৭০ জন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সংখ্যা ৩৮৬ জন। ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১৮ হাজার ১২৩ টি এবং ভোট কক্ষের সংখ্যা ৯০ হাজার ৭২৪ জন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪