চলে গেলেন খালেদ খান

untitled-17_27618_0.gifঢাকা অফিস: চলে গেলেন নন্দিত অভিনেতা-নির্দেশক খালেদ খান। গতকাল শুক্রবার রাত ৮টা ১৮ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিল ৫৫ বছর। প্রায় পাঁচ দিন রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। লাইফসাপোর্টসহ সব ধরনের চিকিৎসার কোনো ত্রুটি রাখেননি চিকিৎসকরা। কিন্তু সব চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে পরপারে পাড়ি জমালেন এই নন্দিত শিল্পী। তিনি স্ত্রী সঙ্গীতশিল্পী মিতা হক, মেয়ে জয়িতাসহ অসংখ্য ভক্ত ও শুভানুধ্যায়ী রেখে গেছেন। তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে আসে। এ সময় হাসপাতাল প্রাঙ্গণে আত্মীয়স্বজন, তার সহশিল্পী ও সতীর্থরা ভিড় করেন।

শুক্রবার রাতে খালেদ খানের মরদেহ রাখা হয় বারডেমের হিমঘরে। শনিবার সকাল ৯টায় রাজধানীর ধানমণ্ডির বাড়িতে ও পরে তার সর্বশেষ কর্মস্থল ধানমণ্ডির ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশে (ইউএলএবি) নেওয়া হবে। সর্বস্তরের জনসাধারণের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য মরদেহ রাখা হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে। বাদ জোহর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জানাজা শেষে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে গ্রামের বাড়িতে বাবার কবরের পাশে কবর দেওয়া হবে তাকে।

প্রায় তিন দশক ক্ষুরধার অভিনয়ে নাট্যাঙ্গনকে রাঙিয়ে দিয়েছিলেন খালেদ খান। ‘ছি ছি ছি, তুমি এত খারাপ!’ সংলাপটি নব্বই দশকে বিটিভিতে প্রচারিত ‘রূপনগর’ নাটকে খালেদ খানের মুখে শুনেছিল দর্শক। এখনও সেই স্মৃতি অমলিন। ওই ধারাবাহিক নাটকে খলনায়ক হলেও তিনিই ছিলেন সবার প্রিয়। মঞ্চে তার মতো আরেকজন অভিনেতা খুব সহজে পাবে না বাংলাদেশ। পরিচিতজনদের কাছে তিনি যুবরাজ, অনেকের প্রিয় যুবদা।

খালেদ খান দীর্ঘদিন ধরে মটর নিউরন সমস্যায় ভুগছিলেন। এ সমস্যার কারণে তার শরীরের মাংসপেশি অকেজো হয়ে যায়। ফলে তিনি স্বাভাবিকভাবে হাঁটা-চলা করতে পারতেন না। বেশ কয়েক বছর হুইলচেয়ারই ছিল তার ভরসা। ১৬ ডিসেম্বর বিকেলে মালিবাগে চিকিৎসকের কাছে গিয়েছিলেন তিনি। সেখান থেকে ফেরার পথে শারীরিক সমস্যা অনুভবের সঙ্গে তার প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। এর পর হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া সাময়িক বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে তার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ অকার্যকর হয়ে পড়ে। দীর্ঘ যানজটের কারণে যথাসময়ে তাকে হাসপাতালে নেওয়া সম্ভব হয়নি। এ কারণেই আইসিইউতে ভর্তি করিয়ে তৎক্ষণাৎ কৃত্রিম শ্বাস (লাইফসাপোর্ট) দিয়ে রাখা হয়েছিল তাকে। চিকিৎসকরা জানান, পরদিন রাত থেকে তার হৃৎপিণ্ড সচল হলেও মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহ ছিল অনিয়মিত।

১৯৫৮ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইলে জন্মেছিলেন খালেদ খান। শিক্ষাজীবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের মেধাবী ছাত্র ছিলেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮১ সালে ফিন্যান্সে বিকম এবং ১৯৮৩ সালে এমকম সম্পন্ন করেন তিনি। ১৯৭৮ সালে যোগ দেন নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ে। ওই বছরেই দলটির ‘দেওয়ান গাজীর কিস্সা’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে মঞ্চে পথচলা শুরু তার। এর পর ৩০টির বেশি মঞ্চনাটকে অভিনয় করেছেন। এ তালিকায় উল্লেখযোগ্য_ ‘দেওয়ান গাজীর কিস্সা’, ‘নূরলদীনের সারাজীবন’, ‘গ্যালিলিও’, ‘রক্তকরবী’, ‘দর্পণ’, ‘অচলায়তন’, ‘ঈর্ষা’ প্রভৃতি। মঞ্চে সর্বশেষ নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের ‘রক্তকরবী’ নাটকে বিষু চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। পাশাপাশি নির্দেশনা দিয়েছেন ১০টি নাটক। তার নির্দেশিত আলোচিত মঞ্চনাটকগুলো হচ্ছে ‘মুক্তধারা’, ‘পুতুল খেলা’, ‘কালসন্ধ্যা, ‘মাস্টার বিল্ডার’, ‘ক্ষুধিত পাষাণ’ ইত্যাদি। তার নির্দেশিত প্রতিটি নাটকই দর্শকপ্রিয়। খালেদ খান সর্বশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন সুবচন নাট্য সংসদের ‘রূপবতী’।

মঞ্চের পাশাপাশি ছোট পর্দায়ও দর্শককে অভিনয়ে বিমোহিত করেছেন খালেদ খান। ‘সকাল সন্ধ্যা’, ‘এইসব দিনরাত্রি’, ‘রূপনগর’, ‘লোহার চুড়ি’, ‘সিঁড়িঘর’, ‘তুমি কোন কাননের ফুল’, ‘মফস্বল সংবাদ’, ‘ওথেলো এবং ওথেলো’, ‘দমন’ ইত্যাদি জনপ্রিয় নাটকে দেখা গেছে তাকে। তার অভিনীত ‘রূপনগর’ নাটকে হেলাল চরিত্রের কথা এখনও ভোলেনি দর্শক। ওই নাটকে তার আওড়ানো ‘ছি ছি ছি, তুমি এত খারাপ!’ সংলাপটি সব বয়সী দর্শকের পছন্দের শীর্ষে ছিল।অভিনয়ের স্বীকৃতিস্বরূপ খালেদ খান অর্জন করেছেন মোহাম্মদ জাকারিয়া পদক, নূরুন্নাহার স্মৃতিপদক, সিজেএফবি অ্যাওয়ার্ড, ইমপ্রেস-অন্যদিন অ্যাওয়ার্ড ইত্যাদি। খালেদ খান বিজ্ঞাপনে কণ্ঠ দেওয়ার কাজও করেছেন দীর্ঘদিন। অভিনয় ও নির্দেশনার বাইরে ধানমণ্ডির ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশে (ইউএলএবি) রেজিস্ট্রার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি। প্রশাসনিক এ দায়িত্বের পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের মিডিয়া স্টাডিজ অ্যান্ড জার্নালিজম বিষয়েও পড়াতেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪