গৃহকর্মী আটক : চালক লাপাত্তা: প্রবীণ ফটো সাংবাদিক আফতাব খুন

image_1488_184138স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :

রাজধানীর রামপুরা ওয়াপদা রোডের সিডি গলির ৬৩ নম্বর নিজ বাসায় একুশে পদকপ্রাপ্ত ফটো সাংবাদিক আফতাব উদ্দিন (৭৩) খুন হয়েছেন। গতকাল বুধবার সকাল ১০টার দিকে ৪ তলা বাড়ির তিন তলার ডান পাশের ফ্ল্যাট থেকে তার হাত-পা বাঁধা মৃতদেহ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠায়। ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ। এ হত্যাকান্ডে পুলিশের সন্দেহের তীর গাড়িচালক আকবরের দিকে। ঘটনার পরই পালিয়েছে আকবর। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ। এ ছাড়া আফতাব উদ্দিনের গৃহকর্মী নাসিমাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। রামপুরা থানার ওসি কৃপাসিন্ধু বালা জানান, ওই সাংবাদিককে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে আপাতত ধারণা করা হচ্ছে। তার গালে একটি চিহ্ন রয়েছে। খুনিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। পুলিশ জানায়, গতকাল সকালে গৃহকর্মী নাসিমা বাসায় ঢুকে তার লাশ দেখে আফতাব উদ্দিনের মেয়েকে খবর দেন। পরে নিহতের মেয়ে পুলিশকে বিষয়টি জানান। ২০০৬ সালে একুশে পদক পাওয়া এই আলোকচিত্রী দীর্ঘদিন ইত্তেফাকের আলোকচিত্রী হিসাবে কাজ করেন। এদিকে বাসার আলমারি ও বিভিন্ন আসবাবপত্র তছনছ করা অবস্থায় পাওয়া গেছে। খুনিরা আলমারি থেকে টাকা ও অন্য মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে গেছে বলে পরিবারের লোকজনের দাবি। তারা বলছেন, টাকা লুট করতেই এ হত্যাকান্ড। তবে পুলিশ তা মানতে নারাজ। এ হত্যাকান্ডের নেপথ্যে অন্য কিছু আছে কিনা তা ঘেঁটে দেখছে পুলিশ। ওই বাড়ির পাশে নির্মাণাধীন একটি ভবনে মঙ্গলবার রাতভর স্থানীয় কতিপয় বখাটে আড্ডা জমিয়েছিল বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। ওই বখাটেরা স্থানীয় আল্লার দান হোটেল থেকে তেহারি নিয়ে খেয়েছে। ঘটনার পর তাদের অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে। তবে তারা জড়িত না ভয়ে পালিয়েছে তা নিশ্চিত হতে পুলিশ তদন্ত করছে। এ ঘটনায়ও স্থানীয় কিলার রাসেলকে সন্দেহ করছে পুলিশ। অন্যদিকে ওই বাসার গৃহকর্মী নাসিমার সাথে কিলার রাসেলের মামা জামালের দহরম মহরম সম্পর্ক থাকায় সেদিকেও উঠছে সন্দেহের আঙ্গুল। নিহতের স্বজনরা জানান, আকবর চলতি মাসের এক তারিখে গাড়িচালক হিসাবে নিয়োগ পায়। আফতাব উদ্দিনের কোথায় কত টাকা থাকত তা গাড়িচালক আর গৃহকর্মী জানতেন।

শেষ ইচ্ছে ছিল রংপুরে গ্রামে শায়িত হওয়ার

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি : খ্যাতিমান ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমদের শেষ ইচ্ছে ছিল মরণের পর তার গ্রামের বাড়িতে শায়িত হওয়ার। তার এই ইচ্ছের কথাটি জানান, আফতাব আহমদের মামাতো বোন মমেনা খাতুন। গতকাল বুধবার বিকেলে তার গ্রামের বাড়িতে গিয়ে জানা যায়, অনেকেই মৃত্যুর সংবাদ জেনেছেন বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রাপ্ত সংবাদে।
রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার তিস্তাকবলিত একটি ইউনিয়নের নাম লক্ষ্মীটারী। সেই ইউনিয়নের মহিপুর গ্রামে ১৯৩৪ সালে জন্মগ্রহণ করেন ফটো সাংবাদিক আফতাব হোসেন। তার বাবার নাম জহর উদ্দিন। তিন ভাইয়ের মধ্যে সবার ছোট ছিলেন তিনি।

আফতাব আহমেদের বাড়িতে গিয়ে জানা যায়, তিনি গ্রামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। এজন্য ২০০২ সালে জমিও কিনেছিলেন। ওই জমিতে স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য পাকা বিল্ডিং ও নামাজঘর তৈরি করেন তিনি। পর্যায়ক্রমে শিক্ষার প্রসার বৃদ্ধির লক্ষে আরও অনেক কর্মসূচি গ্রহণের ইচ্ছে ছিল তার। কিন্তু শারীরিক অসুস্থতার কারণে পরে তা আর হয়ে ওঠেনি। এ সময় আফতাব আহমদের মামাতো বোন মমেনা খাতুন বলেন, বিভিন্ন সময় গ্রামে এলে তার শেষ ইচ্ছের কথাটি তিনি বহুবার বলেছেন। আফতাব আহমেদ ১৯৬২ সালে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় ফটো সাংবাদিক হিসেবে যোগদান করেন। তাঁর মত্যুতে গঙ্গাচড়া প্রেসক্লাবসহ স্থানীয় সাংবাদিকরা এবং এলাকাবাসী শোক প্রকাশ করেন। সেই সাথে তাঁর মত্যু ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেন। উল্লেখ্য, খ্যাতিমান সাংবাদিক, দৈনিক ইত্তেফাকের সাবেক চিফ ফটোগ্রাফার আফতাব আহমেদ খুন হন রাজধানীর রামপুরার ওয়াপদা রোডের ৬৩/৪ বাসায়। ১৯৭৪ সালের দুর্ভিক্ষের সময় কুড়িগ্রামের চিলমারীর বাসন্তীর ছবি তুলে তিনি দেশে এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪