আজ মহান বিজয় দিবস

চিলমারী  ॥ সোমবার ॥ ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৩ খ্রিঃ

১৬ ডিসেম্বর আমাদের জাতীয় জীবনের একটি অবিস্মরণীয় দিন। দীপ্ত চেতনা বাঙালি জাতি, ত্যাগ-তিতীক্ষা, দৃঢ় আত্মপ্রত্যয় ও ইস্পাততম ঐক্যে একতাবদ্ধ হয়ে হানাদার পাক-বাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘ ৯ মাস ব্যাপী এক সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে সেদিন ছিনিয়ে এনেছিল বাংলাদেশের বিজয়। তাই এ দিনটি আমাদের নিকট অতিশয় গৌরবের। আপামর জনগণের অভূতপূর্ব দেশপ্রেম ও বলিষ্ট সংগ্রামের ফসল ছিল আমাদের এ বিজয়। অবশ্য এ বিজয় অর্জণের জন্য দেশের মানুষকে চরম মূল্য দিতে হয়েছিল। ত্রিশ লক্ষ মানুষের আত্মহুতি এবং দু‘লক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত এ দিনটিতে আমরা শ্রদ্ধাবনতচিত্তে স্মরণ করি সে সকল মহান বীর শহীদদের যারা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি’ অধিকারে ব্রতী হয়ে প্রিয় মাতৃভূমির জন্য জীবন বিলিয়ে দিয়েছিলেন। বস্তুত্ব এ রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে অর্জিত স্বাধীনতার পশ্চাতে ছিল দেশের সকল মুক্তিকামী মানুষের একতা, শঙ্কাহীন ও দূর্বার সাহসী প্রত্যয়।
১৬ই ডিসেম্বর বাঙালি জাতির এক অপার আনন্দের দিন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বর্বর পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করে বাঙালি জাতি ১৬ই ডিসেম্বর ছিনিয়ে এনেছিল এ বিজয়। এ বিজয় বাঙালি জাতির গৌরব, স্বর্ণসম্পদ। মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমেই আমরা তা অর্জন করেছি, পেয়েছি স্বাধীনতা। স্বাধীনতার মধ্যদিয়ে লাভ করেছি জাতীয় পরিচয়। আপামর জনসাধারণের অভূতপূর্ব দেশপ্রেম এবং বীরত্বপূর্ণ সংগ্রামের ফসল আমাদের চির কাঙ্খিত এ বিজয়। মহান এ দিনে আমরা শ্রদ্ধাবনতচিত্তে স্মরণ করি লাখ লাখ শহীদদের যারা অকাতরে তাঁদের জীবন বিসর্জন দিয়েছিলেন প্রিয় মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য। তাঁদের আদর্শ ও সংগ্রামে বিজয় অর্জিত হয়েছিল তার মূলে ছিল আপামর জনগণের ইম্পাত দৃঢ় ঐক্য ও সংহতি। দেশের মুক্তিকামী দামাল ছেলেরা একটি শোষণমুক্ত গণতান্ত্রিক সমাজ, দূর্ণীতিমুক্ত সমৃদ্ধশালী দেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল মুক্তিযুদ্ধে। একটানা ৯ মাস সশস্ত্র যুদ্ধ এবং অপরিসীম ত্যাগ তিতীক্সা ও মহান ঐক্যের বিনিময়ে জাতি ছিনিয়ে এনেছিল বিজয়ী বাংলা। এই বিজয়ের মাধ্যমে বিশে^র মানচিত্রে অভ্যূদয় ঘটে স্বাধীন স্বার্বভৌম বাংলাদেশের। ১৬ই ডিসেম্বর তাই আমাদের জাতীয় জীবনের ইতিহাস, গর্ব ও গৌরবের দিন। আর তাই একাত্তরের মানবতাবিরোধী কাদের মোল্লার ফাঁসির মধ্যদিয়ে বাঙালি জাতি কিছুটা হলেও কলঙ্কমুক্ত হতে চলেছে।
এ বিজয় আমাদের জাতি হিসেবে বেঁচে থাকা ও সামনের দিকে এগিয়ে চলারই অঙ্গীকার। এ অঙ্গীকারকে বাস্তবে রূপদানের জন্য প্রয়োজন বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য ও ঐক্যমত্য। বিজয় দিবস আমাদের এ আহ্বানই জানায়। আমাদের আজকের প্রত্যয় হোক দারিদ্র বিমোচনের, অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা এবং সংযম ও সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠান দ্বারা মহান দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করা।

দ্বিতীয় বর্ষে যুগের খবর

প্রজন্মের পরিচ্ছন্ন ছোঁয়ায় চলমান ক্যানভাস, চির নতুনের সাপ্তাহিক যুগের খবর শত বাঁধা-বিপত্তি, চড়াই-উৎরাই এর মধ্যদিয়ে একটি বছর পাড়ি দিয়ে আজ দ্বিতীয় বর্ষে পদার্পন করছে। এ কৃতিত্ব শুধুমাত্র কারো একার নয়, সবার। সম্পাদক, প্রকাশক, মূদ্রাকর, সর্র্বস্তরের প্রতিনিধি, বিজ্ঞাপনদাতা, শুভান্যুধায়ীসহ পাঠক ও সুশীল সমাজের আন্তরিক সহযোগিতায় যুগের খবরের এই নিরলস পথচলা। বিজয়ের মাসে বিজয়ের বেশে জন্ম নেয়া সাপ্তাহিক যুগের খবর পরিবরের পক্ষ থেকে সকলকে জানাই প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। আশা করি পত্রিকাটির পথচলায় আপনাদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪