**   পবিত্র আশুরা ১ অক্টোবর **   রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘে ৫ দফা প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর **   চিলমারীতে প্রতিবন্ধি শিক্ষার্থীদের মাঝে ডিভাইজ বিতরণ **   রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে জাতিসংঘে যা বলল মিয়ানমার **   রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে উলিপুরে আলেম-ওলামাদের মানববন্ধন **   এবার যে কারণে বিতর্কে সানি লিওন **   ধর্ষক রাম রহিমের পালিত কন্যা হানিপ্রীত গ্রেফতার **   ভূরুঙ্গামারীতে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করায় শিক্ষক বরখাস্ত **   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ

মন্ত্রী-সংসদ সদস্যদের সম্পদের পাহাড় দুদককে তদন্ত করতে হবে

চিলমারী ॥ রবিবার ॥ ২২ ডিসেম্বর, ২০১৩ খ্রিঃ

ক্ষমতার মসনদে একবার বসতে পারলেই কিংবা ক্ষমতার কাছাকাছি থাকলেই রাতারাতি বিস্ময়কর সম্পদের যে মালিক বনে যাওয়া যায় এর প্রমাণ দিলেন কয়েকজন মন্ত্রী এবং সংসদ সদস্য। এরা যেন সহজেই আরব্য রজনীর সেই আলাদীনের চেরাগের দৈত্যের কৃপা পেয়ে গেছেন। এদের মধ্যে মাত্র কয়েকজনের এ বিপুল বৈভবের তথ্য দিয়েছে সহযোগী ইংরেজি দৈনিক গত বৃহস্পতিবার। এদের মধ্যে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সাবেক প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান খান, সাবেক পরিবেশমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবীর নানক, সংসদ সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমসহ কয়েকজন সংসদ সদস্যের নাম এবং তাদের ঘোষিত সম্পদের বিবরণী তুলে ধরা হয়েছে। দশম সংসদ নির্বাচনে এরা প্রত্যেকেই প্রার্থী। সে কারণে ইসির কাছে জমা দেয়া সম্পদের বিবরণী থেকেই তথ্যানুসন্ধানী এ খবরটি পরিবেশিত হয়েছে।
এতে দেখা যায়, মন্ত্রী থাকাকালীন ৫ বছরে আবদুল মান্নান নিজের সম্পদ বাড়িয়েছেন ১০৭ গুণ। নিজের ঘোষণা অনুযায়ী ২০০৮-এ তার সম্পদ ছিল ১০ লাখ ৩৩ হাজার টাকার। বর্তমানে ইসির কাছে ঘোষণাই দিয়েছেন তিনি ১১ কোটি ৩২ লাখ টাকার মালিক। এত বিপুল সম্পদের উৎস সম্পর্কে তিনি কিছু বলতে পারেননি। তেমনিভাবে হাছান মাহমুদ সম্পদ করেছেন ৪০ গুণ। ২০০৮-এ সম্পদ ছিল ৩৮ লাখ ১৭ হাজার টাকার। এখন তার সম্পদ দাঁড়িয়েছে ১৫ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। নানকের বেড়েছে ৮ গুণ। শেখ সেলিমের বেড়েছে ২ গুণ। এমনিভাবে কোন কোন সংসদ সদস্যের সম্পদ ২৫ গুণ বেড়েছে।
যেটি আগেই বলা হয়েছে, উল্লিখিতদের ঘোষিত সম্পদ বিবরণীর উদ্ধৃতি দিয়েই খবরটি পরিবেশিত হয়েছে। এদের অঘোষিত সম্পদ সম্পর্কে কিছুই জানা যায়নি। সুতরাং কীভাবে মাত্র ৫ বছরে এত বিপুল সম্পদের মালিক তারা হলেন এবং ঘোষিত বিবরণীর বাইরে এদের আরও সম্পদ রয়েছে কি না তার খোঁজে দুদককে এখনই তদন্ত শুরু করতে হবে।
বিস্ময়কর হলো, মন্ত্রী কিংবা সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে যেহেতু অন্য কোন লাভজনক পদে বা কাজে তারা জড়িত থাকতে পারেন না, সুতরাং মন্ত্রী হিসেবে কিংবা সংসদ সদস্য হিসেবে যে সম্মানী ও ভাতাদি তারা পেয়েছেন তাতে করে এত বিপুল সম্পদের মালিক হওয়া সম্ভব নয়। পৃথিবীতে এমন কোন ব্যবসা নেই যেখানে বৈধপথে এত অল্প সময়ে ২৫ শতাংশ থেকে ১০৭ শতাংশ সম্পদ করা যায়। এদের সম্পদ গড়ার পিছনে দুর্নীতি সংশ্লিষ্টতা উড়িয়ে দেয়া যায় না। এ কারণেই কালবিলম্ব না করে দুদকের তদন্ত শুরু করা দরকার।
কথা ছিল মন্ত্রিত্ব থাকাকালীন সময়ে তারা সম্পদের বিবরণী প্রকাশ করবেন। তা করা হয়নি। অনেকে এর বিরোধিতাও করেছেন। এখন তো বোঝা গেল ‘ডাল মে কুচ কালা হায়।’ আমাদের জানা মতে ২/১ জন ছাড়া কোন মন্ত্রীই তাদের সম্পদের বিবরণ দেননি।
সুশাসনের প্রশ্নেই এসম্পর্কে সরকারের স্বচ্ছতা তুলে ধরা সময়ের দাবি। একটি দারিদ্র্যক্লিষ্ট দেশে ৫ বছরে ১০৭ গুণ সম্পদ বৃদ্ধির ঘটনা কেন ২ গুণ সম্পদ বৃদ্ধিরও কোন যথার্থ কারণ নেই যদি মন্ত্রী এবং এমপিরা সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। বিষয়টি অবশ্যই দুদককে বিবেচনায় নিয়ে অনতিবিলম্বে তদন্ত শুরু করতে হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪