সারাদেশে স্কুলে স্কুলে পাঠ্যবই বিতরণ আজ শুরু

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপি-জামায়াত জোটের লাগাতার হরতাল-অবরোধসহ সহিংসতার মধ্যেও দেশব্যাপী স্কুলে স্কুলে পাঠ্যপুস্তক উৎসব দিবস পালনের প্রস্তুতি শেষ। আজ থেকেই সপ্তাহব্যাপী অন্যরকম এক উৎসরের মধ্য দিয়ে প্রাক-প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের চার কোটি ৩৩ লাখ ৫৩ হাজার ২০০ শিক্ষার্থীর হাতে তুলে দেয়া হবে বিনামেূল্যের ৩১ কোটি ৭৭ লাখ ২৫ হাজার ৫২৬টি বই ও শিক্ষা উপকরণ। আজ সকাল ১১টায় রাজধানীর গবর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুলে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিয়ে উৎসবের শুরু করবেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। একই সঙ্গে দেশব্যাপী চলবে উৎসব। সকল ছাত্রছাত্রী খালি হাতে স্কুলে আসবে আর বিনামূল্যে নতুন বছরের পাঠ্যবই নিয়ে মহানন্দে বাড়ি ফিরবে। ফলে প্রথমদিনই কোন কারণে বিদ্যালয়ে আসতে না পারলেও উদ্বিগ্ন হওয়ার কোন কারণ নেই। ছাত্রছাত্রীরা নতুন শ্রেণীতে ভর্তি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই নতুন বই পাবে। উৎসবের মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে হাতে পৌঁছে যাবে চাররঙা ঝকঝকে পাঠ্যবই। বুধবার গণভবনে শিশুদের হাতে বই বিতরণকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামীতে সবার হাতে ‘নোটবুক’ পৌঁছে দেয়া হবে।
২০১০ সাল থেকে বর্তমান সরকার বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ শুরু করে আসছে। পর পর পাঁচ বছর বছরের শুরুতেই সারাদেশে ঘরে ঘরে বই পৌঁছে দিয়ে সারা পৃথিবীতে নতুনভাবে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ। জানা গেছে, রাজনৈতিক সহিংসতা সত্ত্বেও ইতোমধ্যেই ৯৫ শতাংশের বেশি বই স্কুল পর্যায়ে চলে গেছে। এবার প্রাক-প্রাথমিক স্তরের ৬০ লাখ ১৬ হাজার ৫১৯ জন শিশু শিক্ষার্থীর মধ্যে বই, রঙিন খাতাসহ বিভিন্ন ধরনের এক কোটি ৮০ লাখ ৪৯ হাজার ৫৮৮টি শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হচ্ছে। চরম রাজনৈতিক সহিংসতা ও পরিবহন স্বল্পতার কারণে নোয়াখালী, দিনাজপুর, নওগাঁ, নাটোর, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, পটুয়াখালী ও সিরাজগঞ্জ জেলার কিছু উপজেলায় স্বল্পসংখ্যক বই সরবরাহ বাকি আছে। এসব উপজেলায়ও শতভাগ বই পৌঁছে যাবে উৎসব শেষ হওয়ার আগেই। এনসিটিবি’র কর্মকর্তারা জানান, ৯৫ শতাংশের বেশি বই স্কুল পর্যায়ে সরবরাহ কার্যক্রম শেষ। বাফার স্টক বা আপদকালীন প্রয়োজন মেটাতে ৫ শতাংশ বই মজুদও আছে। কাজেই ৫ শতাংশ বই কিছুটা বিলম্বে পৌঁছালেও কোন সঙ্কট হচ্ছে না। ছাত্রছাত্রীরা নতুন শ্রেণীতে ভর্তি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই নতুন বই পাবে। রাজধানীর সরকারী স্কুলে নতুন শ্রেণীতে আজ ভর্তি শুরু হচ্ছে। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ ও বিতরণ কর্মকর্তা মোস্তাক আহমেদ ভূঞা জানান, প্রায় ৯৫ শতাংশ বই মুদ্রণ ও স্কুল পর্যায়ে বিতরণ শেষ। বাকি সব বই দু’একদিনের মধ্যে স্কুল পর্যায়ে পৌঁছে যাবে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন জানান, এবার ঢাকার ২৭টি স্কুলে পাঠ্যপুস্তক উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। বাকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিজ নিজ উদ্যোগে বই বিতরণ করবে। তবে প্রধান উৎসবটি অনুষ্ঠিত হবে রাজধানীর গবর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাইস্কুলে। এছাড়া মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এ্যান্ড কলেজ, ভিকারুন নিসা নূন স্কুল এ্যান্ড কলেজ, মতিঝিল সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়েও পাঠ্যপুস্তক উৎসব পালন হবে। এনসিটিবি জানিয়েছে, ৭৩১টি লটে ২০১৪ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যবই ছাপা হয়েছে। মোট বইয়ের মধ্যে প্রাথমিক স্তরের দুই কোটি ৩১ লাখ ৬৯ হাজার ৩৫১ জন শিক্ষার্থীর জন্য বই ছাপা হচ্ছে ১১ কোটি ৩৭ লাখ ২৭ হাজার ৩৫৫ কপি বই। কাগজসহ আন্তর্জাতিক দরপত্রে ৯৯টি লটে প্রাথমিক স্তরের বই ছাপা হয়েছে। মাধ্যমিক স্তরের মোট ৯৪ লাখ ৪৫ হাজার ১৩৬ জন শিক্ষার্থীর জন্য ১৩ কোটি ৭৫ লাখ ৭৬ হাজার ৯০০ কপি বই ছাপা হয়েছে। জাতীয় টেন্ডারে (দরপত্র) ৫২৮টি লটে মাধ্যমিক স্তরের বই ছাপা হয়েছে। এছাড়া মাদ্রাসার ইবতেদায়ী, দাখিল ও দাখিল ভোকেশনাল স্তরের ৪৭ লাখ ২২ হাজার ১৮৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য চার কোটি ৬১ লাখ ৬৯ হাজার ১৩১ কপি বই ছাপা হয়েছে। কাগজসহ জাতীয় টেন্ডারে ১০৪টি লটে মাদ্রাসার বই ছাপা হয়।
বর্তমান সরকার ২০১০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে শুরু করেছে এ উদ্যোগ। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনই ছাত্রছাত্রী যেমন পায়নি বিনামূল্যের বই তেমনি বছরের প্রথমদিনও পাঠ্য বই হাতে পায়নি। বরং তা পেতে পেতে মার্চ/এপ্রিল পার হয়ে যেত প্রতিবছর। আর এ সুযোগে পাঠ্যবই নিয়ে অসাধু সিন্ডিকেট চক্র অস্থির করে তুলত বইয়ের বাজার। মহাজোট সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই প্রথমবারের মতো ২০১০ সালে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের দুই কোটি ৭৬ লাখ ৬২ হাজার ৫২৯ জন শিক্ষার্থীকে ১৯ কোটির অধিক বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছিল। পরে একটি বিশেষ মহল এনসিটিবি’র গুদামে আগুন লাগিয়ে দেয়। শত বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে ২০১১ ও ২০১২ সালে বইয়ের সংখ্যা ২৩ কোটিতে উন্নীত করতে হয়। গেল বছর তিন কোটি ৬৮ লাখ ৮৬ হাজার ১৭২ জন শিক্ষার্থী হতে পায় প্রায় ২৭ কোটি। এবার বই চলে গেছে ৩১ কোটিতে। তবে এবার দফায় দফায় হরতাল ও অবরোধের কারণে সঙ্কটে পড়েছিল ৩১ কোটি পাঠ্যবই মুদ্রণ ও সরবরাহ কার্যক্রম। লাগাতার ধ্বংসাত্মক কর্মসূচীর কবলে পড়ে পাবলিক পরীক্ষার অনিশ্চয়তার মধ্যেই সারাদেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের সকল শিক্ষার্থীর বিনামূল্যের বই নির্দিষ্ট সময়ে পাওয়া নিয়ে তৈরি হয়েছিল অনিশ্চয়তা। দেশজুড়ে পাঠ্যবই ছাপা ও বিতরণের গুরুত্বপূর্ণ এ সময়ে একের পর এক হরতাল, অবরোধে যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, হামলাসহ চলাচল বাধাগ্রস্ত হওয়ায় ছাপাখানা ও গুদামে আটকে পড়ে কয়েক কোটি পাঠ্যবই। তবে সরকারের কঠোর নজরদারি ও ব্যবসায়ীদের প্রত্যক্ষ চেষ্টায় নির্দিষ্ট সময়েই বই পাচ্ছে সকল শিক্ষার্থী। আজ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পাঠ্যবই উৎসব হলেও বুধবারই বিভিন্ন পর্যায়ের কয়েক শিক্ষার্থীর হাতে নতুন পাঠ্যবই তুলে দিয়ে কার্যক্রম শুর করেছেন। আগামীতে সবার হাতে ‘নোটবুক’ পৌঁছে দেয়ার স্বপ্নের কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, যাতে তারা ইন্টারনেট থেকে ডিজিটাল বই নামিয়ে নিতে পারে। গণভবনে এ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চলতি বছরের বই উৎসবের উদ্বোধন করেন তিনি। বছরের শেষভাগে রাজনৈতিক অস্থিরতা ও সহিংসতার মধ্যেও বই ছাপা ও বাঁধাইয়ের কাজ সময়মতো শেষ করায় প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট সবাইকে ‘সংগ্রামী অভিনন্দন’ জানান। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রধানমন্ত্রীর হাতে শুভেচ্ছা স্মারক হিসেবে একসেট বই তুলে দেন। পাঠ্যপুস্তক উৎসবের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগামীতে ছোট নোটবুক দিয়ে দেব, যেন তাতে সবই থাকে। ভবিষ্যতে ডিজিটাল বই দেয়া হবে। প্রত্যন্ত এলাকায় আর বই পাঠানোর দরকার হবে না। সব বই ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করে নেবে। আমরা মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম করেছি। ভাল ভাল স্কুলের ক্লাস ধারণ করে টিভিতে দেখাচ্ছি। ভাল স্কুলের ধারণকৃত ক্লাসগুলো শুধু বিটিভিতে না দেখিয়ে সংসদ অধিবেশন বন্ধ থাকার সময় সংসদ টিভিতেও তা প্রচারের ব্যবস্থা করতে বলেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি আরও বলেন, এ বছর সময়মতো বই দেয়া যাবে কিনা, পৌঁছানো সম্ভব হবে কি না- তা নিয়ে অনেকে ‘সন্দিহান’ ছিলেন। সময়মতো বই পৌঁছানো হয়েছে। এজন্য কর্মকর্তা-কর্মচারী থেকে শুরু করে যারা বই ছাপা ও বাঁধাইয়ের সঙ্গে ছিলেন তাদের সবাইকে সংগ্রামী অভিনন্দন। শিক্ষায় বিনিয়োগের চেয়ে আর বড় বিনিয়োগ নেই মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের মন দিয়ে লেখাপড়া করার তাগিদ দেন। নতুন বইয়ে মলাট লাগিয়ে তাতে নিজের নাম লিখে রাখার কথাও ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের বলেন তিনি। শিক্ষার্থীদের হাতে বেশি বই তুলে না দিয়ে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিষয় নির্দিষ্ট করতেও এনসিটিবি কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। ৩ কোটি ৮৬ লাখ মানুষ এখন ইন্টারনেট ব্যবহার করে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, দেশের তরুণরা যাতে আউট সোর্সিংয়ে দক্ষ হয়ে উঠতে পারে- সে ব্যবস্থা করার পরিকল্পনাও তার রয়েছে। বিরোধী দলের চলমান কর্মসূচীর সমালোচনা করে তিনি বলেন, মানুষ, জীবজন্তু, শাকসবজি সব কিছুই তাদের আক্রমণের শিকার। শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, শিক্ষা সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী আখতার হোসেন এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এইচ টি ইমাম ও মশিউর রহমান ছাড়াও জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের কর্মকর্তারাও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী পরে গণভবনের বাগানে শিশু শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে ছবি তোলেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪