**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

৫ জানুয়ারি নির্ভয়ে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিন- রাজধানীর নির্বাচনী জনসভায় শেখ হাসিনা

image_1495_184913বিশেষ প্রতিনিধি : প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা গণতন্ত্র রক্ষায় ৫ জানুয়ারি নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগের জন্য দেশবাসীর প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন। নির্বাচন বন্ধ করতে নানা ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত চলছে জানিয়ে তাদের বিরুদ্ধে দেশবাসীকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনে কেউ বাধা দিতে এলে তাদের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলে উপযুক্ত শিক্ষা দিয়ে দেবেন।
তিনি বলেন, এ নির্বাচন সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখার নির্বাচন। তাই ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে গিয়ে সাংবিধানিক ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে হবে। আর যারা আন্দোলনের নামে ধ্বংসযজ্ঞ করছে, মানুষ হত্যা করছে এদের ধরিয়ে দিন। এদের বিচার হবে। আর সমঝোতার পথ ছেড়ে আন্দোলনের নামে বিরোধীদলীয় নেত্রী মানুষ হত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। এসব হত্যাকাণ্ডেরও বিচার হবে, আর বিরোধীদলীয় নেত্রী হবেন হুকুমের আসামি। আওয়ামী লীগ কোন বাধার মুখে নতি স্বীকার করে না। তাই আন্দোলন করে বিএনপি ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকাতে পারবে না।
বুধবার রাজধানীতে তিনটি বিশাল নির্বাচনী জনসভায় বক্তব্যে রাখতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, নির্বাচন বন্ধ করার অনেক ষড়যন্ত্র হচ্ছে, চক্রান্ত চলছে। যারা ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেন সৃষ্টি করে কিংস পার্টি তৈরি করেছিল- তারা এখনও সক্রিয় ও সরব রয়েছে। দেশে গণতন্ত্র থাকলে এদের মূল্য থাকে না। অগণতান্ত্রিক ও অসাংবিধানিক সরকার হলে তাদের চাহিদা বাড়ে। তাই তারা নিজেরাই নিজেদের বিশিষ্ট নাগরিক হিসেবে ঘোষণা করে নানা ফর্মুলা দেয়। এরা কষ্টার্জিত গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে চায়। এদের বিষয়ে দেশবাসীকেও সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। তিনি উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে দেশসেবার সুযোগ দেয়ার জন্য দেশবাসীর প্রতি পুনর্বার আহ্বান জানান।
ঢাকা-১৪ আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী কামাল আহমেদ মজুমদারের সমর্থনে মিরপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে, ঢাকা-১৬ আসনের প্রার্থী ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহর সমর্থনে মিরপুর পল্লবী হারুন মোল্লা পার্ক মাঠ এবং ঢাকা- ১৮ আসনের প্রার্থী সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের সমর্থনে উত্তরার-আজমপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত তিনটি বিশাল নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দিয়ে নৌকা মার্কার পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেন প্রধানমন্ত্রী। আর এই তিনটি জনসভাতেই ছিল তীব্র জনস্রোত।
দলীয় প্রতীক বিশাল বিশাল নৌকা নিয়ে আর কণ্ঠে ‘নৌকা’র সেøাগানে প্রকম্পিত ছিল এই তিন নির্বাচনী এলাকা। প্রধানমন্ত্রীর ঝটিকা এই নির্বাচনী প্রচারে রাজধানীতে নির্বাচনী আমেজ ছড়িয়ে পড়ে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে শেষ করে চলে যাওয়ার পর এই তিন নির্বাচনী এলাকাতেই নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে খ- খ- নির্বাচনী মিছিলে মুখরিত হয়ে ওঠে অলি-গলি, সড়ক-মহাসড়ক। আওয়ামী লীগের নির্বাচনী জোয়ারে বিএনপি-জামায়াত জোটের টানা অবরোধ ছিটে-ফোটাও প্রভাব ফেলতে পারেনি। অবরোধকারীদের রাজধানীর কোথাও দেখা না মিললেও ঢাকার নির্বাচনী এলাকাগুলোতে হাজার হাজার নৌকা প্রতীক নিয়ে মিছিল সেøাগানে বুধবার মহানগরীর পরিবেশই পাল্টে গিয়েছিল।
তিনটি নির্বাচনী জনসভায় আওয়ামী লীগের তিন প্রার্থী ছাড়াও বক্তব্যে রাখেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি, এমএ আজিজ, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, আইন প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, এসএম কামাল হোসেন, এনামুল হক শামিম, ঢাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত সংসদ সদস্য আসলামুল হক আসলাম, আশরাফুন্নেসা মোশাররফ, নাজমা আখতার এমপি, অপু উকিল এমপি, মাহমুদ হাসান রিপন, মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটনসহ স্থানীয় নেতারা। নির্বাচনী জনসভায় প্রধানমন্ত্রী আগামীতে ক্ষমতায় আসলে ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছে দেয়া, ঢাকাকে আধুনিক নগরীতে পরিণত, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার প্রতিশ্রুতি দেন।
তিন নির্বাচন জনসভায় প্রধানমন্ত্রী বিরোধী দলের কঠোর সমালোচনা করে বলেন, আন্দোলনের নামে যারা মানুষ হত্যা করছে বাংলার মাটিতে একদিন তাদের বিচার করা হবে। বিএনপি নেত্রী হরতাল-অবরোধ ডেকে ঘরে বসে মুরগির সুপ খান, রোস্ট চিবান। বিএনপির নেতারাও আন্দোলনের মাঠে নামেন না। ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের দিয়ে বিএনপি নেত্রী মানুষ হত্যা করছেন। তবে যারা নাশকতা করছে বাংলাদেশের মানুষ অবশ্যই তাদের রুখে দেবে। তিনি বলেন, আন্দোলন মানেই সন্ত্রাসী কর্মকা-। বিএনপির আন্দোলনের ভাষা মানুষহত্যা, বোমাবাজি, কুরান শরীফ পোড়ানো, বাসে আগুন দেয়া। এসব কর্মকা- পরিহার না করলে তারা গণবিচ্ছিন্ন দলে পরিণত হবে। আর দেশের জনগণ যা চায় আওয়ামী লীগ তাই করে। আর বিএনপি মানুষ যা চায় তার উল্টোটা করে। আমরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করেছি, একটি রায় কার্যকর করে দেশকে কলঙ্কমুক্ত করেছি।
বিএনপির আন্দোলনে জনগণের কোন সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষায় আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামায়াত জোট সারাদেশে সন্ত্রাস চালাচ্ছে। এই আন্দোলনে জনগণের ন্যূনতম সম্পৃক্ততা নেই। সন্ত্রাসী ভাড়া করে বোমাবাজি, অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে নৃশংসভাবে হত্যাকা- চালাচ্ছে তারা। সমস্যার সমাধানে তাঁকে বহুবার সমঝোতায় বসার আহ্বান জানিয়েছি। কিন্তু উনি (খালেদা জিয়া) গণতন্ত্র চান না, গণতন্ত্রের লেশমাত্র বোঝেন না। শুধু ঘুষ, দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ আর মানুষ হত্যা বুঝেন। এর আগে তাঁরা বায়তুল মোকাররম মসজিদে আগুন দিয়েছে, শ’ শ’ পবিত্র কোরান শরীফ পুড়িয়ে দিয়েছে। একজন মানুষ হয়ে কিভাবে আরেকজন মানুষকে পুড়িয়ে মারতে পারে? প্রশ্ন রাখেন তিনি।
দেশবাসীসহ তরুণ প্রজন্মের ভোটারদের নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে গণতন্ত্র রক্ষায় তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণতন্ত্রের জন্য এই নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সংবিধান অনুযায়ী গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে ৫ জানুয়ারি নির্বাচন করতেই হবে। এ নির্বাচনে কেউ বাধাগ্রস্ত করতে এলে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন। উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগকে ভোট দেয়ার জন্য তরুণ ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসা মানেই উন্নয়ন, অগ্রগতি, শান্তি ও সমৃদ্ধি। আর বিএনপি মানেই সন্ত্রাস, দুর্নীতি, জঙ্গীবাদ, হাওয়া ভবনের মাধ্যমে কমিশন খাওয়া, মানুষ খুন, দেশকে পাঁচবার দুর্নীতিতে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করা।
বিরোধীদলীয় নেত্রীর প্রতি প্রশ্ন রেখে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, ‘আপনি যে তত্ত্বাবধায়ক চান, এই তত্ত্বাবধায়ক আপনাকে আমাকে জেলে নিয়েছে, আপনার দুই ছেলেকে উত্তম-মধ্যম দিয়ে দেশ ছাড়া করেছে। এসব কী আপনি ভুলে গেছেন? আর কী কারণে আপনি নির্বাচনে আসলেন না? মহাজোট সরকারের আমলে ৫ সহস্রাধিক বিভিন্ন নির্বাচন হয়েছে। একটি নির্বাচন নিয়েও তো কেউ প্রশ্ন তুলতে পারেনি। পাঁচ সিটি কর্পোরেশনসহ অনেক নির্বাচনে আপনার প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছে। তবে কেন এবারের নির্বাচনে আসলেন না?’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১০ সাল থেকে আলোচনায় বসার জন্য আমি বিরোধীদলীয় নেত্রীকে বার বার আহ্বান জানিয়েছি। কিন্তু উনি আমার কোন কথাই রাখেননি। আমি সমঝোতার কথা বললে উনি আল্টিমেটাম দেন, আমাকে দেশ ছাড়া করার হুমকি দেন। উনি সমঝোতা বা শান্তির পথে থাকতে চান না, যুদ্ধাপরাধী, সন্ত্রাসী, জঙ্গীদের নিয়ে চলতে চান। আন্দোলনের নামে বিরোধীদলীয় নেত্রী লোক ভাড়া করে বোমাবাজি করছেন, আগুন দিচ্ছেন, গায়ে পেট্রোল ঢেলে দিয়ে ঘুমন্ত চালক, হেলপার, রিক্সাওয়ালা ও সিএনজি চালকদের পুড়িয়ে হত্যা করছেন। সেনা, পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের হত্যা করছেন। তাঁর (খালেদা জিয়া) হাত থেকে অন্তসত্ত্বা নারী ও ছোট শিশুরাও রেহাই পাচ্ছে না।
তিনি বলেন, বিরোধীদলীয় নেত্রীর দুইগুণ- দুর্নীতি আর মানুষ খুন। আদালত জামায়াতে ইসলামীকে জঙ্গী সংগঠন আখ্যায়িত করে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করেছে। এতে বিরোধীদলীয় নেত্রীর মন খারাপ। কারণ স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতকে ছাড়া তিনি চলতে পারেন না, জামায়াত প্রীতি উনি ভুলতে পারেন না। জামায়াত নির্বাচন করতে পারছে না, তাই উনিও নির্বাচনে আসেননি। নির্বাচনে আসেননি ভাল কথা, কিন্তু আন্দোলনের নামে তাঁকে (খালেদা জিয়া) মানুষ হত্যার দায়িত্ব কে দিয়েছে? মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলার অধিকার তাঁকে কে দিয়েছে? আসলে বোমাবাজি, খুন-খারাবি ছাড়া আর অন্য কিছুই বুঝেন না আমাদের বিরোধীদলীয় নেত্রী।
দুই নেত্রীর মধ্যে টেলিসংলাপের প্রসঙ্গ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি তাঁকে টেলিফোন করলাম। বেলা ১টা থেকে চেষ্টার পর সন্ধ্যা ৬টায় উনি ফোন ধরলেন। প্রথমে আমি বললাম আপনি কেমন আছেন? ভদ্রতা সরূপ আমি কেমন আছি সেটা জানতে না চেয়েই উনি (খালেদা জিয়া) ঝগড়া ও ঝাড়ি মারা শুরু করলেন। আমি তো আর তাঁর সঙ্গে ঝগড়া করে পারব না। তাই ধৈর্য ধরে সব শুনেছি। উনি যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে চান, যুদ্ধাপরাধীদের মদদ দিচ্ছেন। কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরের পর সারাদেশে উনি হাজার হাজার বৃক্ষনিধন করেছেন, ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছেন। জনগণের ভাগ্যে নিয়ে এমন করে ছিনিমিনি খেলতে আমরা দিতে পারি না।
প্রধানমন্ত্রী মহাজোট সরকারের পাঁচ বছরের উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরে বলেন, আমরা দেশজুড়ে বিদ্যুত, গ্যাস, রাস্তাঘাট, হাসপাতালের উন্নয়ন করেছি। রাজধানীতে অনেক ফ্লাইওভার, ওভারপাস নির্মাণ করাসহ সৌন্দর্যবৃদ্ধিতে হাতিরঝিল প্রকল্প উন্নয়ন করে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছি। রাজধানী ঢাকার চেহারাই আজ পাল্টে গেছে। মানুষের যাতায়াতের সুবিধার জন্য এক হাজার বিআরটিসি বাস ক্রয় করেছি। দুঃখের বিষয়, আন্দোলনের নামে বিরোধীদলীয় নেত্রী প্রায় এক শ’ বাস আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছেন। আসলে উনি শুধু ধ্বংস করতে জানেন, কোন কিছু সৃষ্টি করতে পারেন না।
আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে মানুষ কিছু পায় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষমতায় আসার পর ৫ বছরে সরকারী ও বেসরকারী পর্যায়ে প্রায় এক কোটি বেকারের কর্মসংস্থান করেছি। ৭০ থেকে ৮০ ভাগ বেতন বৃদ্ধিসহ মহার্ঘভাতা বৃদ্ধি করেছি। গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন ১৬শ’ টাকা থেকে ৫ হাজার ৩০০ টাকায় উন্নীত করেছি। একসঙ্গে ২১৯ ভাগ বেতন বৃদ্ধির ইতিহাস বিশ্বের কোন দেশে নেই। ৩২শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুত থেকে মাত্র ৫ বছরে দেশ আজ ১০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদনের সক্ষমতা অর্জন করেছে। ৬৯টি নতুন বিদ্যুত কেন্দ্র আমরা স্থাপন করেছি।
বিএনপি-জামায়াত অবরোধ-হরতাল দিয়ে শিক্ষার্থীদের নতুন বই পেতে বাধা প্রদানের চেষ্টা করেছে অভিযোগ করে শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ কোন বাধার কাছে মাথানত করে না। শত বাধা সত্ত্বেও এবার ৩১ কোটি ৭৭ লাখ ২৬ হাজার নতুন বই ছাপিয়ে সারাদেশে পাঠানো হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার প্রত্যেক শিক্ষার্থীর হাতে বিনামূল্যে এসব বই বিতরণ করা হবে। অতীতে কেউ কোনদিন এভাবে বই ছাপিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে দিতে পারেনি, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় বলেই পেরেছে। দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে, দেশে আজ খাদ্যের জন্য কোন হাহাকার নেই।
৫ জানুয়ারির নির্বাচনে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের ঘোষণা অনুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে সারাবিশ্বে বাংলাদেশ উন্নত দেশ হিসেবে মাথা তুলে দাঁড়াবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪