**   ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন বুমেরাং হতে বাধ্য’ **   ফরাসউদ্দিন-ছহুল এগুলো ইউসলেস নেইম: অর্থমন্ত্রী **   কুড়িগ্রামে পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে শিশু আইন-২০১৩ শীর্ষক প্রশিক্ষণ **   চিলমারীতে থানাহাট পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, সততা স্টোর উদ্বোধন ও বিদায়ী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত **   চিলমারীতে মিনা দিবস উদযাপন **   উলিপুরে মিনা দিবস পালিত **   উলিপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় শিশুর মৃত্যু **   কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাট জেলা পুলিশের উদ্যোগে আঞ্চলিক মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধকল্পে মতবিনিময় **   শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে আফগানদের হারালো বাংলাদেশ **   সরকারি হাইস্কুলে পদোন্নতি: সিনিয়র শিক্ষক হচ্ছেন ৫৫০০ জন

দেশি মাছ হারিয়ে যাচ্ছে

চিলমারী ॥ বুধবার ॥ ০৮ জানুয়ারী, ২০১৪ খ্রিঃ:

মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস, কৃষি জমিতে যথেচ্ছ সার, কীটনাশক ব্যবহার, শিল্পায়ন ও মানুষের অসচেতনতা এবং দায়িত্বহীনতার জন্য পানি দূষণ, জনসংখ্যার বাড়তি চাহিদার মূলে অতিরিক্ত মৎস্য আহরণ, পরিবেশের ভারসাম্যহীনতা- নানাবিধ কারণে দেশে মাছের উৎপাদনে নানা সংকট। মৎস্য সম্পদের ঘাটতিকে আরো ত্বরান্বিত করেছে হারিয়ে যাওয়া প্রজাতির ক্রমসংখ্যা বৃদ্ধি। মৎস্য বিজ্ঞানীরা ইতিমধ্যে প্রায় ১০০ প্রজাতির মাছ চিহ্নিত করেছেন, যেগুলো বিলীন হয়ে গেছে বা হতে চলেছে। মৎস্য বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন প্রজাতির মাছগুলোকে চার স্তরে ভাগ করেছেন। সংকটাপন্ন, বিপন্ন, চরম বিপন্ন, বিলুপ্ত। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্য বিজ্ঞানীরা বিলুপ্ত মাছের সংখ্যা নির্ণয় করেছেন কমপক্ষে ২৫টি। ডেলা মাছটি বিপন্ন ভাগে ফেললেও এ প্রজাতি মূলত চরমভাবে বিপন্ন। নান্দিনকে চরম বিপন্নের গ্র“পে ফেললেও এর অস্তিত্ব নিয়েই থাকছে সন্দেহ। সরপুটিও তাই। দেশি সরপুটি চোখেও দেখা যায় না। বাজারে সরপুটি, কৈ মাছ নামে এখন যে মাছ বিক্রি হয় তা দেশীয় নয়। চেহারা আদলে সরপুটি কৈ হলেও রঙে স্বাদে দেশি মাছের কাছ দিয়েও যায় না। বিপন্ন প্রজাতির সংখ্যা এমনভাবে বাড়ছে যে, একদিন হয়তো দেখা যাবে দেশিয় প্রজাতির ধানের মতোই সব জাতের মাছ হারিয়ে গেছে। তার স্থলে জায়গা করে নিয়েছে জেনেটিক গবেষণায় বা ব্র“ডস্টক প্রতিস্থাপন পদ্ধতিতে উদ্ভাবিত অধিক উৎপাদনশীল জাতের মাছ। তেলাপিয়া, নাইলোটিকা, আমেরিকান রুই, গ্রাস কার্প, থাই সরপুটি এমনকি রাক্ষুসে মাছ আফ্রিকান মাগুর নিয়েও মাতামাতি লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু মিঠা পানির দেশিয় প্রজাতির মাছ বিলীন হওয়ার সংবাদই আমরা পাচ্ছি। রসনা তৃপ্তিকর দেশিয় জাতের মাছ রক্ষার ব্যাপারে কি করা হচ্ছে, কি করণীয় তার কোন সংবাদই নেই। অথচ দেশের মৎস্য সম্পদ রক্ষা, উৎপাদন বৃদ্ধি, আমিষের চাহিদা পূরণের জন্যে দেশিয় প্রজাতির মাছ নিয়ে গবেষণা অব্যাহত রাখা খুবই জরুরি। অধিক উৎপাদনশীল মাছের জাত উদ্ভাবনে আপত্তি নেই। তবে দেশের সম্পদ তো রক্ষা করতে হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪