বিচারপতি হাবিবুর রহমানকে শেষ বিদায়

IMG_9376স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা: সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা নিয়ে বিদায় নিলেন সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ও প্রধান বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান, বিচারিক দক্ষতার পাশাপাশি গণতান্ত্রিক ও সাংস্কৃতিক বিকাশে ভূমিকার জন্য যাকে স্মরণ করছে জাতি।

সোমবার বিকাল সাড়ে ৫টায় বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এর আগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, সুপ্রিম কোর্ট ও গুলশানের আজাদ মসজিদে তিন দফা জানাজা হয় বিচারপতি হাবিবুর রহমানের। শহীদ মিনার ও সুপ্রিম কোর্টে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি তার দীর্ঘদিনের সহকর্মী, ঘনিষ্ঠ জন ও সরকারের একাধিক মন্ত্রী প্রয়াতের স্মৃতিচারণ ও কর্মের মূল্যায়ন করেন। শনিবার রাতে অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান এই রবীন্দ্র বিশেষজ্ঞ, ভাষা সংগ্রামী। তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। সোমবার সকালে তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হয়। সেখানে তার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানান বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। এরপর প্রথম জানাজা শেষে দুপুরে মরদেহ নেয়া হয় তার কর্মস্থল সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে। প্রয়াত প্রধান বিচারপতির সম্মানে দুপুরের পর কর্মবিরতিতে যায় উচ্চ আদালত।

সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার একেএম শামসুল ইসলাম বলেন, তার প্রতি সম্মান জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বিতীয় সেশনে হাই কোর্টের কোনো বিচারপতি এজলাসে বসবেন না। সুপ্রিম কোর্টের গার্ডেন প্রাঙ্গনে বেলা দেড়টায় জানাজা অনু্ষ্ঠিত হয়। এ সময় প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন, আপিল বিভাগের বিচারপতি এসকে সিনহা, বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি ইমান আলী, বিচারপতি মোহাম্মদ আনোয়ার উল হক, বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। সাবেক প্রধান বিচারপতি লতিফুর রহমান, এম তাফাজ্জাল ইসলামও এ সময় উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি এম এ মতিন, আইন কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ। জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার কামাল হোসেন, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি, অ্যাডভোকেট এএফ হাসান আরিফ, ফিদা এম কামাল, এজে মোহাম্মদ আলী, বাসেত মজুমদার, ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়াও জানাজায় অংশ নেন। বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন, মির্জা হোসেইন হায়দার, এম ইনায়েতুর রহিমসহ হাই কোর্টের বিচারপতিরা উপস্থিত ছিলেন। যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রথম চেয়ারম্যান মো. নিজামুল হক, যুদ্ধাপরাধের ট্রাইব্যুনাল-২ এর চেয়ারম্যান ওবায়দুল হাসান, ট্রাইব্যুনালের সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন, মো. শাহিনুর ইসলামও জানাজায় উপস্থিত ছিলেন।

জানাজার পর ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় অ্যাটর্নি জেনারেলের কার‌্যালয়, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি, বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সহকারী সমিতি, খুলনা বিভাগীয় আইনজীবী সমিতিসহ বিভিন্ন সংগঠন। জানাজার সময় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সাংবাদিকদের বলেন, “ছোট বেলা থেকেই উনাকে আমি চিনি। আমার পিতার সঙ্গে তার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। তিনি আমাকে অনেক স্নেহ করতেন। তার মৃত্যুতে আমি শুধু একজন অভিভাবকই হারাইনি। দেশ একজন জ্ঞানী ও গুণীকে হারিয়েছে। “তিনি যা করেছেন, তা ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। আমরা যা হারিয়েছি, তা পূরণ হওয়ার নয়।” সাবেক প্রধান বিচারপতি লতিফুর রহমান বলেন, “তিনি অসাম্প্রদায়িক ও মুক্তচিন্তার মানুষ ছিলেন। আমার সঙ্গে তার অত্যন্ত ভালো সম্পর্ক ছিল। তার মৃত্যুতে আমি শোকাহত। “বিচারক হিসাবে আপিল বিভাগে থাকাকালে তার প্রজ্ঞা ও চিন্তার যে দিক নির্দেশনা পেয়েছি তা অতুলনীয়। তার পরিবারবর্গ যেন এই শোক কাটিয়ে উঠতে পারেন।” এ সময় হাবিবুর রহমানের পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন তার শ্যালক উইং কমান্ডার অব. আলী হায়দার চৌধুরী। তিনি বলেন, “বিচারপতি হাবিবুর রহমান এই সুপ্রিম কোর্টে বিচারক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তার প্রতি কারো কোনো দাবি থাকলে তিনি যেন আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন।” মঙ্গলবার বাদ আসর গুলশানের আজাদ মসজিদে তার কুলখানি হবে বলে জানান তিনি। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হয়। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে শুরু হয় শ্রদ্ধা নিবেদনপর্ব।

সাবেক প্রধান বিচারপতির কফিনে শ্রদ্ধা জানাতে আগেই সেখানে উপস্থিত হন  তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, আইনজীবী ড. কামাল হোসেনসহ সদ্য গঠিত সরকারের সাবেক ও নতুন মন্ত্রীরা। ইনু বলেন, “তার (হাবিবুর রহমান) বয়স হলেও তিনি সবকিছু পর্যবেক্ষণ করতে পারতেন, মতামত দিতে পারতেন। জাতির সঙ্কটকালে তিনি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিতেন। তিনি শুধু দক্ষ বিচারপতি নন, গবেষক, লেখক এবং ভাষা সংগ্রামীও ছিলেন।”

জাসদ সভাপতি ইনু মনে করেন, সামরিকতন্ত্র থেকে গণতন্ত্রে উত্তরণের পথে হাবিবুর রহমানের ভূমিকা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

“বর্তমানে জঙ্গিবাদ থেকে গণতন্ত্রের ধারার দিকে যে অগ্রযাত্রা, এ সময়ও তার বড় ধরনের অবদান রাখার সুযোগ ছিল।”

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, বিচারপতি হাবিবুর রহমান কেবল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান বা প্রধান বিচারপতি হিসেবেই নন, একজন ভাষা সংগ্রামী ও প্রগতিশীলতার ধারক হিসাবেও সবার শ্রদ্ধাভাজন।

“তার দিক নির্দেশনা থেকে আমরা বঞ্চিত হলাম। তবে তিনি যে ৭০টির মতো বই লিখেছেন, সেখানে যে পথ আমাদের দেখিয়েছেন, তার মাধ্যমেই তিনি বেঁচে থাকবেন।”

ড. কামাল হোসেন বলেন, “আমরা বড় মাপের একজন মানুষকে হারিয়েছি। তিনি মানুষের শ্রদ্ধা অর্জন করেছেন, প্রগতীশীলতার চর্চা করেছেন। তিনি অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেননি। সঠিক পথ নির্দেশনা ও উচিৎ কথা বলার জন্য যদি কাউকে চিন্তা করতে হতো; তবে সবার মধ্যে বিচারপতি হাবিবুর রহমানের নামই উচ্চারণ করতে হতো।”

সাবেক এই বিচারপতির চলে যাওয়া এ দেশের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি বলেও মন্তব্য করেন কামাল। “তবে আমরা সৌভাগ্যবান যে তার মতো মেধাবী সন্তান এই বাংলাদেশ পেয়েছিল।” মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, হাবিবুর রহমান মানুষকে ভালবেসেছেন, দেশকে ভালবেসেছেন। তার অভাব পূরণ হবার নয়।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, নতুন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি, নাট্যকার রামেন্দু মজুমদার, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি নাসির উদ্দিন ইউসূফ বাচ্চু, সাংবাদিক কামাল লোহানী, শিল্পী রফিকুন্নবী ও কাইয়ূম চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মিজানুর রহমান ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুনর রশিদও শহীদ মিনারে আসেন সাবেক প্রধানবিচারপতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে।

১৯৯৫ সালে প্রধান বিচারপতি হিসেবে অবসর নেন হাবিবুর রহমান। সর্বশেষ অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি হিসেবে তিনি ১৯৯৬ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন। তার অধীনে ১৯৯৬ সালে সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪