বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

Inuস্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা: সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ রুখতে গণমাধ্যমগুলোকে দায়িত্বশীল ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের আহ্বান জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

একই সঙ্গে সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয়দাতা গণমাধ্যমগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য সবার সহযোগিতা চান তিনি। শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় এই আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী।

হাসানুল হক ইনু বলেন, “জঙ্গিদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিতে গেলে বা দমন করতে গেলে সচরাচর ‘ইসলাম বিপদে পড়ে গেল, ইসলামপন্থিদের দমন করা হচ্ছে, ধর্মপন্থিদের দমন করা হচ্ছে’ বলে প্রচারণা চালানো হয়।” জঙ্গিবাদ দমনের পদক্ষেপ নেয়ায় একটি মহল সরকারকে নাস্তিক ও ধর্মহীন বলে প্রচার করার চেষ্টা করছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “এটা একটা ডাহা মিথ্যা কথা। বিদেশী গণমাধ্যমেও লেখা হয়ে থাকে, ‘ইসলামিস্ট আর পারসিকিউটেড’। এটা একটা ডাহা মিথ্যাচার। “বিদেশী গণমাধ্যমের সঙ্গে যারা জড়িত আছেন, তারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে এটা করে থাকেন।”

সাম্প্রদায়িকতাকে উস্কে দেয়া গণমাধ্যমগুলোকে চিহ্নিত করার আহ্বান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, “অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক ও নিরাপদ বাংলাদেশ চাইলে জঙ্গিবাদীদের ছাতা হিসেবে যারা কাজ করছে তাদের বিরুদ্ধেও বলতে হবে, কলম ধরতে হবে। না হলে লড়াইটা হবে খণ্ডিত লড়াই।”

‘মিডিয়া অ্যাক্টিভিস্টস ফর সেক্যুলার বাংলাদেশ’ আয়োজিত এই আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাংলাদেশে ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্তসহ সাংবাদিক নেতা ও গণমাধ্যমকর্মীরা।

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, “সাম্প্রদায়িক সহিংসতার যেসব ঘটনা ঘটেছে সেগুলোর চুলচেরা অনুসন্ধান হওয়া প্রয়োজন। চিহ্নিতদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির বিধান করা উচিত।

তা না হলে সাম্প্রদায়িকতার ঘটনা থেকে বাংলাদেশকে বের করে আনা যাবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, “বাংলাদেশকে সেক্যুলার করতে হলে আগে নিজের অঙ্গনকে সেক্যুলার করতে হবে। দেশের মিডিয়ার ভেতরে যারা জঙ্গিবাদকে প্রশয় দিচ্ছে তাদের চিহ্নিত করতে হবে।”

যুদ্ধপরাধে সাজাপ্রাপ্ত  মুঈনুদ্দীন দৈনিক পূর্বদেশের তার সহকর্মী ছিলো জানিয়ে ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, “পরে আমরা দেখেছি সে আলবদর বাহিনীর সদস্য হয়ে সাংবাদিক হিসেবেই আমাদের বুদ্ধিজীবী ও সাংবাদিকদের হত্যা করেছে। এখনো বিভিন্ন গণমাধ্যমে এরকম মুঈনুদ্দীনরা রয়েছে, যাদের চিহ্নিত করতে হবে।”

ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,“ইদানিং আবার নির্বাচনের বিষয়টি সামনে নিয়ে আসা হচ্ছে। তবে আমি বলতে চাই, সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বিধান না করা পর্যন্ত আর কোনো নির্বাচন নয়। অথবা তাদের ভোটাধিকারের বাইরে রেখে নির্বাচন করেন, তাহলে তারা নির্যাতনের এই ঝামেলা থেকে বাঁচবে।”

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, “সাম্প্রদায়িকতা থেকে দেশকে মুক্ত করতে হলে এসব সহিংসতার সঙ্গে যারা জড়িত তারা যে সংগঠনেরই হোক না কেন, শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। তিনি প্রশ্ন করেন, “গণমাধ্যমে প্রকাশিত অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বেরিয়ে আসা চিহ্নিত দোষীদের কেন শাস্তি  হচ্ছে না কেন? “কোনো কিছু ঘটলেই ঢালাওভাবে গণমাধ্যম বন্ধ করে দিলে আমরা সাংবাদিকরাও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগি। এ মনোভাবের পরিবর্তন চাই।” অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রেস ইনিস্টিউট অব বাংলাদেশের মহাপরিচালক ও সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শাহ আলমগীর।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪