সন্ত্রাস বন্ধ করব, সাতক্ষীরা রক্তাক্ত থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

1390224369স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাতক্ষীরাবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘নিজেদের শক্তির জোর বড় জোর। যেকোনো অবস্থায় সন্ত্রাসের মোকাবিলা করতে আপনারা নিজের শক্তি নিয়ে দাঁড়াবেন। আমরা আপনাদের পাশে আছি। যেকোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বন্ধ করব। সাতক্ষীরা আর রক্তাক্ত থাকবে না।’ বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপির নেতার সাধ্য নেই যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর। যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর জন্য তিনি মানুষ খুন করেছেন। সাতক্ষীরাকে রক্তাক্ত করেছেন। যারা সাতক্ষীরাকে রক্তাক্ত করেছে তাঁদের রেহাই নেই।
বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন না-এমন অভিযোগ এনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ওনার (খালেদা জিয়া) মন পড়ে আছে পেয়ারে পাকিস্তানে। উনি শয়নে স্বপনে পেয়ারে পাকিস্তানই দেখেন। যখনই দেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হয়েছে, ওনার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। সোমবার বিকেলে সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বিএনপি নেত্রীর সাধ্য নাই এই বিচার বাঁধাগ্রস্ত করার। এই বিচার শুরু হয়েছে, রায় কার্যকর হবে। মানুষের শান্তি দেখলেই বিএনপি নেত্রীর অশান্তি শুরু হয় বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিরোধী নেত্রী ব্যর্থতার আগুনে পুড়ে মরছেন। এখন সেই অশান্তির আগুনে তিনি দেশকে জ্বালাতে চান।
নির্বাচনে অংশ না নিয়ে খালেদা জিয়া যে ভুল করেছন তার খেসারত তাকেই দিতে হবে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।
শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপির নেতা নির্বাচন করেননি। কারণ হলো জামায়াতের নির্বাচন করা হাইকোর্ট নিষিদ্ধ করেছেন। জামায়াতের ব্যথায় ব্যথিত হয়ে খালেদা জিয়া নির্বাচন বর্জন করেছেন। শুধু তাই নয় তিনি নির্বাচনে বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। নির্বাচনের আগে ও পরে হরতাল, অবরোধ দিয়েছেন। মানুষের আয়ের পথ বন্ধ করেছেন। মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলার মাটিতে সব ধর্ম-বর্ণের মানুষ সবার অধিকার নিয়ে বসবাস করবে। কারও হস্তক্ষেপ বরদাশত করা হবে না। যার যার ধর্ম সে সে শান্তিপূর্ণভাবে পালন করবে। মনে রাখতে হবে, পার্র্শ্ববর্তী ভারতেও সংখ্যালঘু আছে। এখানে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা হলে ভারতেও তো সংখ্যালঘু আছে।
বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, সাতক্ষীরায় হামলায় যারা জড়িত তাদের একজনও রেহাই পাবে না। তিনি বলেন, যেকোনো জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে মানুষের নিরাপত্তা তাঁর সরকার নিশ্চিত করবে। বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য যদি বাবার মতো জীবন দিতে হয় তাতেও প্রস্তুত আছেন বলে জানান শেখ হাসিনা।
বক্তব্যে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। এর পাশাপাশি তিনি বিরোধী দলের নেতার সমালোচনা করেন।
বিএনপির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির রাজনীতি দুর্নীতির রাজনীতি। সন্ত্রাসের রাজনীতি। তিনি বলেন, একসময় দেশে স্লোগান প্রচলিত ছিল, ‘বিএনপির দুই গুণ, দুর্নীতি আর মানুষ খুন।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, এখন তাদের দোসর হলো জামায়াত-শিবির। ’৭১ সালে যারা গণহত্যা, নির্যাতন ও নিপীড়ন চালিয়েছিল তারা হয়েছে বিএনপির দোসর।
শেখ হাসিনা বিএনপির নেতা খালেদা জিয়ার উদ্দেশে বলেন, ‘আমরা দেশে শান্তি আনতে চাই। কিন্তু একজন অশান্তি বেগম আছেন। উনি মানুষের শান্তি দেখতে পারেন না।’ তিনি বলেন, ‘শত বাঁধা পেরিয়েও নির্বাচন হয়েছে। আমরা সরকার গঠন করেছি। আমরা আপনাদের পাশে আছি।’ তিনি বিএনপির নেতার উদ্দেশে বলেন, তিনি যেন মানুষের শান্তি নষ্ট না করেন। নির্বাচনে না এসে তিনি যে ভুল করেছেন, তার খেসারত তাঁকে দিতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার উদ্দেশে বলেন, উনি শয়নে-স্বপনে এখনো পেয়ারে পাকিস্তান দেখেন। সে জন্য যুদ্ধাপরাধীদের জন্য তাঁর এত মায়াকান্না। এত দরদ। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার সঙ্গে আলোচনা করতে বহু চেষ্টা করেছিলাম। ফোন করতে গিয়ে অনেক কথা শুনতে হয়েছে।
বিএনপির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির রাজনীতি দুর্নীতির রাজনীতি, সন্ত্রাসের রাজনীতি। আমরা দেশে শান্তি আনতে চাই। কিন্তু একজন অশান্তি বেগম আছেন। উনি মানুষের শান্তি দেখতে পারেন না।’ তিনি বলেন, ‘শত বাঁধা পেরিয়েও নির্বাচন হয়েছে। আমরা সরকার গঠন করেছি। আমরা আপনাদের পাশে আছি।’ তিনি বিএনপির নেতার উদ্দেশে বলেন, তিনি যেন মানুষের শান্তি নষ্ট না করেন। নির্বাচনে না এসে তিনি যে ভুল করেছেন তার খেসারত দিতে হবে। বাঁধা বিঘœ উপেক্ষা করে গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ভোট দেয়ায় দেশের মানুষকে ধন্যবাদও জানান প্রধানমন্ত্রী।
সাতক্ষীরায় সাম্প্রতিক সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত, যারা সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা চালিয়েছে, তাদের একজনও রেহাই পাবে না।
শেখ হাসিনা বলেন, জামায়াতের পক্ষ নিয়ে খালেদা জিয়া নির্বাচন বর্জন করেছেন। তিনি নির্বাচন প্রতিহত করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পারেননি। দেশের মানুষ সব বাঁধা উপেক্ষা করে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে।
সাতক্ষীরা অবহেলিত ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখানে চিংড়ি চাষ হয়, কিন্তু চিংড়ি প্রক্রিয়াজাত করার ব্যবস্থা নেই। আমরা এখানে চিংড়ি প্রক্রিয়াজাত করার ব্যবস্থা করে দেব।
এর আগে বেলা সোয়া একটায় হেলিকপ্টারে করে শেখ হাসিনা সাতক্ষীরায় পৌঁছান। এরপর আড়াইটা থেকে তিনি সাতক্ষীরা সার্কিট হাউসে জামায়াত-শিবিরের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রী সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয় মাঠে গিয়ে আশাশুনিতে এতিম ছেলেমেয়েদের জন্য কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্র, কপোতাক্ষ নদ পুনঃখনন, তালা উপজেলার পাখিমারা বিলে টিআরএম কাজসহ সাতটি কাজের উদ্বোধন এবং পৌরসভার পানি শোধনাগার, সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ নির্মাণ প্রকল্পসহ চারটি উন্নয়নকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।
এর পরে সাতক্ষীরায় ক্ষতিগ্রস্তদের আর্থিক সহায়তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী।  সাতক্ষীরায় আর সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ থাকবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে যৌথ বাহিনীর অভিযানও অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি। সাতক্ষীরা সার্কিট হাউসে জামায়াত-শিবিরের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বেলা পৌনে দুইটায় তিনি হেলিকপ্টারযোগে সাতক্ষীরা স্টেডিয়ামে পৌঁছান। সেখান থেকে তিনি সার্কিট হাউসে যান। মতবিনিময় সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি আপনাদের এই বলে আশ্বস্ত করতে চাই, সাতক্ষীরায় সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ থাকবে না। সে জন্য যা যা করণীয় তা করা হবে। যৌথ বাহিনীর অভিযান অব্যাহত থাকবে।’ তিনি বলেন, ‘অমি একজন ভুক্তভোগী। আমার মা, বাবা, ভাইসহ অনেক আত্মীয়স্বজনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমি রাজনীতি করি তাদের জন্য, যারা এ দেশে নির্যাতিত নিষ্পেশিত।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াতের কারণে দেশে যে সহিংসতা, মানুষ হত্যা, সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন চলছে, তা কোনো অবস্থায় মেনে নেওয়া হবে না।’ হতাহত ব্যক্তিদের পরিবারকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘নির্যাতনকারীরা বাংলাদেশের যেখানেই থাকুক না কেন, তাদের খুঁজে খুঁজে আইনের হাতে সোপর্দ করা হবে। আপনাদের স্বজনদের আমি ফিরিয়ে দিতে পারব না। তবে তাঁদের হত্যাকারী ও হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিত করব।
প্রধানমন্ত্রী এ সময় সাম্প্রতিক সহিংসতায় নিহত ১৬ জনের পরিবারসহ ১৫৪ জনের হাতে নগদ অর্থ সাহায্য তুলে দেন। আর যাঁদের ঘরবাড়ি ভেঙে দেওয়া হয়েছে, তাঁদের ঘরবাড়ি সরকারের পক্ষ থেকে পুনর্নির্মাণ করে দেওয়া হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪