**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

রাজিবপুরে আজাদ খাঁনের সাপের খামার !

আলতাফ হোসেন সরকার, রাজিবপুর, কুড়িগ্রাম থেকে :
মানুষের কত রকম বিচিত্র শখই না রয়েছে। জীবন বাজি রেখে হিং¯্র প্রাণীদের সাথে বসবাস- এ যেন অন্য রকম শিহরন জাগানো অভিব্যক্তি। আর তা যদি হয় বিষধর সাপ তাহলে তো কথাই নেই। আঠারো হাজার মাখলুকাতের সবাই যেন মানুষকে ভালবাসে, মানুষের উপকারের জন্য তাদের সৃষ্টি। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, ভালবাসার টানে হিং¯্র প্রানী বাঘও মানুষকে ভালবাসে, আরেক হিং¯্র প্রাণী সাপও যেন মানুষের কথায় ওঠে বসে। আল্লাহতায়ালা মানুষকে সকল জীবের চেয়ে বেশি বুদ্ধি বিবেক দিয়ে তৈরী করেছেন । মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব, আশরাফুল মাখলুকাত। এই শক্তির বলে মানুষ পৃথিবীর সকল প্রাণীকেই বশ মানাতে পেরেছে। তেমনি একটি সাড়া জাগানো ঘটনা ঘটেছে কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার সদর ইউনিয়নের জাউনিয়ারচর লম্বাপাড়া গ্রামে। ওই গ্রামের আলহাজ¦ কোরবান আলী খাঁ পুত্র আজাদ খাঁন নিজ উদ্যোগে তার বাড়িতে গড়ে তুলেছেন সাপের খামার। ১৯৮৮ সালে রাজিবপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসি পাশ করার পর আর লেখাপড়া করেননি তিনি। তাঁর বিচিত্র সখ সাপের খামার করার জন্য চেষ্টা শুরু করেন। সর্বপ্রথম তিনি গর্ত থেকে বড় একটি বিষধর দুধগোখরা সাপ ধরে বাড়িতে সংরক্ষন করেন। ২০১৩ সালের ১ জানুয়ারী থেকে তার নিজ বাড়িতেই প্রথমে ২০টি সাপ দিয়ে খামার শুরু করেন। দিন দিন খামারে সাপের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়তে থাকে। তার খামারে এখন ৮৫ টি বিভিন্ন প্রজাতির সাপ লালন-পালন করা হচ্ছে।
গত শুক্রবার (১৪ ফেব্রু) বিকেলে খামারে গেলে খামারের মালিক আজাদ খাঁন জানান, আমরা ৩ ভাই ২ বোন। আমার বড় ভাই ও ছোট ভাই পুলিশের চাকরি করেন, আর বোন দু’জন বিবাহিত। আমারও পুলিশে চাকরি করার যথেষ্ট সুযোগ ছিল। কিন্তু ডিসকোভারী টিভি চ্যানেলে বিভিন্ন প্রজাতির সাপ ধরার ভয়ংকর দৃশ্য দেখে আমার মনে আগ্রহ জন্মে । নানা প্রজাতির সাপ ধরব, সাপকে বশ মানাব, একটি সাপের খামার গড়ে তুলব। মহান আল্লাহ তায়ালা আমার মনের আশা পূরন করেছে। এখন আমি একজন সফল সাপের খামারী । আমার এই খামারের নাম দিয়েছি অনিক সর্প বিতান। আমার ২ ছেলে, বড় ছেলে খালিদ হাসান অলিফ জাউনিয়ারচর উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেনীতে পড়ে আর ছোট ছেলে ইশা খান অনিক (৬) ১ম শ্রেনীর ছাত্র। ছোট ছেলে লেখাপড়ার পাশাপাশি আমার সাথে খামারের কাজে সময় দেয়। ওকে সাপ নিয়ে খেলতেও শিখিয়েছি। এখন আর সাপের খাবার দিতে আমাকে লাগে না ৬ বছরের ছেলে অনিকই সব করে। কথা প্রসঙ্গে সাপ দেখতে চাইলে অনিক সাপের ঝুরি খুলে প্রায় ২০ প্রকারের সাপ আমাদের দেখায়। তার খামারে বর্তমানে অজগর, গোমা, মাছুয়া, আল্লাদ, সাংখিনি, আলাদ, দুধিয়াগোমা, বিষঝুরি, কালনাগিনী, লাউঝুরি, ধুধুল, কেটুগোমা, দারাজ, দুধরাজ সহ ২০ প্রজাতির সাপ রয়েছে। এসব সাপের প্রতিদিনের খাবার হিসেবে দুধ,ব্যাঙ, ইঁদুর, তেলাপোকা, টিকটিকি দিয়ে থাকেন। বর্তমানে তাঁর খামারে সাপের খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। ঠিকমত এসব খাবার যোগার করা খুবই কষ্টকর হয়ে পড়েছে।  গত এক মাসের প্রচন্ড ঠান্ডায় প্রায় ৭০টি সাপ মারা গেছে। গত বৃহস্পতিবার সকালে ১০ ফুট ও ৮ ফুট লম্বার দুটি অজগর সাপ মারা গেছে। প্রচন্ড ঠান্ডায় খামারের সাপগুলোর মুখে ঘা দেখা দিয়েছে। আহার করতে না পারার কারনেই এই সাপগুলো মারা যাচ্ছে বলে ধারনা করছেন তিনি। উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসে যোগাযোগ করেও কোন সুফল পাওয়া যাচ্ছে না বলে তিনি জানান। বাকী সাপগুলোকে কিভাবে রক্ষা করবেন এই চিন্তায়ই সারাক্ষণ তাকে তাড়া করে বেড়ায়।
স¦র্পরাজ আজাদ খান জানান, এ কাজে আমাকে অন্য কোন লোক সহযোগিতা করেনি। আমি নিজে থেকেই সাহস করে এ কাজ শুরু করি প্রায় এক বছর আগে। আমার বংশের কেউ কোনদিন এ কাজ কল্পনাও করতে পারেনি। সখের বশে আমি সাপের খামার করলেও এখন এটাই আমার রুজি-রোজগারের একমাত্র পথ। এক বছরে সাপ বিক্রি করে প্রায় দেড় লাখ টাকা আয় করেছি। সাপের তেল দিয়ে বাতব্যথা, প্যারালাইসিস, মাথাব্যথা, যৌনরোগ, হাড়ভাঙাসহ অন্যান্য রোগের চিকিৎসা করা হয়। সাপে কাটা রোগী এ যাবত প্রায় দেড়শ’ লোক ভাল করেছি। আমার এখানে বিভিন্ন যৌন রোগের চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। কোন জায়গায় সাপের সন্ধান পাওয়া গেলে আমি সেখানে দ্রুত ছুটে যাই সাপ ধরার জন্য। সাপে কামড়ানো রোগী ফোন করলে তাকে ফ্রি চিকিৎসা দিয়ে থাকেন তিনি। তিনি আরো বলেন, আমাদের দেশে এখনও কোন বাণিজ্যিক ভাবে সাপের খামার আছে কিনা আমার জানা নেই। তবে কিছু বেদে আমার কাছ থেকে সাপ কিনে নিয়ে যায়। সরকারী সহযোগিতা পেলে আমর এই খামার দেশের সর্ব বৃহৎ খামারে পরিনত করা সম্ভব। সাপকে বিদেশে রপ্তানী করে প্রচুর বৈদেশিক মূদ্রা অর্জন করা যাবে এতে কোন সন্দেহ নেই। সাপ ক্রয়-বিক্রয় বড় কথা নয়, সাপে কামড়ানো রোগীদের চিকিৎসাই আমার বড় সেবা। আল্লার রহমতে সকল সাপে কামড়ানো রোগীই ভাল হয়।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪