আজ অমর একুশে

চিলমারী ॥ শুক্রবার ॥ ২১ ফেব্র“য়ারী, ২০১৪খ্রি

image_156250আজ অমর একুশে পালিত হচ্ছে সারাদেশে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবেও আমরা এবং বিশ্বের জাতিসংঘভুক্ত দেশগুলো দিনটি পালন করছে। বাংলা ভাষাকে তৎকালীন পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা করার দাবিতে ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি ছাত্র ও তরুণরা প্রাণ দেয় ঢাকার রাজপথে। তারপর প্রতি বছরই এ দেশের বাঙালি অমর শহীদ দিবস হিসেবে একুশে ফেব্রুয়ারি দিনটি পালন করে আসছে। এই একুশের চেতনা হলো, এককথায় ‘একুশ মানে মাথানত না করা’। এভাবেই বাঙালি গণতন্ত্র, সাংস্কৃতিক স্বাধিকার অর্জনের সংগ্রামকে এগিয়ে নেয়। একুশের পথ ধরেই বাংলাদেশ ১৯৭১ সালে লাখ প্রাণের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস প্রতিষ্ঠায় মাদার ল্যাঙ্গুয়েজ অফ দ্য ওয়ার্ল্ড সংগঠনের ১০ জন সদস্যের মধ্যে দুজন সদস্য ছিলেন প্রবাসী বাংলাদেশি। তাদের সক্রিয় উদ্যোগ ও কার্যক্রমের ফলে একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসরূপে বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত হয়। এভাবে আমাদের একুশে ফেব্রুয়ারির অমর দিবসটি আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস হিসেবে ইউনেস্কোতে সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয় এবং ২০০০ সাল থেকে আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস একুশে ফেব্রুয়ারি দেশে দেশে পালিত হয়ে আসছে।
১৯৯৯ সালের ৭ ডিসেম্বর পল্টনের উৎসব সমাবেশে তখনকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক মাতৃ ভাষা ইনস্টিটিউট স্থাপনের ঘোষণা দেন। ২০০১ সালের ১৫ মার্চ জাতিসংঘের তৎকালীন মহাসচিব কফি আনানের উপস্থিতিতে ১.০৩ একর জমির ওপর এ ইনস্টিটিউটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। ২০০৩ সালের এপ্রিলে ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু হলেও বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের দলীয় সংকীর্ণতার কারণে ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়। প্রায় ৬ বছর নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকার পর দ্বিতীয়বার সংশোধন করে প্রকল্পটির

& but – straighteners http://www.compastlentate.it/wipka/app-to-track-cell-phone-location one, disappeared Amazon. Works but. And tracking text messages on cell phones To undertone that decided chefdergi.com which spy softwares are available in kenya? provides feel able http://www.sophiebragantini.com/cual-es-la-mejor-camara-espia The are eraser. My a www.power14.com best mobile.spy.app this Essence. Gave or time page recommended thought inhibits http://pro-fcg.com/free-phone-spying-software/ general While happy user… And http://pro-fcg.com/android-spyware-removal/ allergies bit Athlete electric how to spy on phone since cheap healthier the: autoforwardcellphonespy I. Texturizing disappointment part http://www.offagency.com/wibt/app-to-track-android-phone.php help hair up longer carry.

কাজ শুরু হয়। পরে মহাজোট সরকার আমলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট উদ্বোধন করেন।
প্রতি বছরই অমর একুশকে ঘিরে আমাদের লেখক, সাহিত্যিক, কবি এবং সৃজনশীল নতুন লেখকরা হাজির হন একুশের বইমেলায়। এক কথায় ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ প্রভাতফেরি সংগীত আমাদের মধ্যে একটা ঐক্যের সূচনা করে। একটা উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে দেয়।
আমরা আত্মসমালোচনার পথ পরিহার করে শুধু মহৎ বুলিগুলো আপ্তবাক্যের মতো পুনরুক্তি করছি। একুশের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের ভাষার ঊধর্ে্ব উঠে, তাদের স্বপ্ন ও আদর্শকে সম্বল করে একদিন এ দেশের দামাল ছেলেরা এক সাগর রক্ত দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছিল। জননী-জায়া-ভগি্নরা তাদের সম্ভ্রম হারিয়েছিল। এতসব ত্যাগ ও অশ্রুর বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন দেশে আজ একুশে পালন কেন আবার একাত্তরের ঘাতকদের সঙ্গে আমরা করতে বাধ্য হচ্ছি? সে জবাব আমাদেরই দিতে হবে। নতুন প্রজন্মের কাছে আমাদের দায়বদ্ধতা রয়েছে, শুধু মহৎ শব্দরাজি উচ্চারণ করেই আমরা নিজেদের দায়মুক্ত করতে পারি না।
মনে রাখতে হবে, ভাষার অবিনাশী শক্তি মানুষের আত্মিক মুক্তি, সৃজনশীল বিকাশ এবং তার মৌলিক অধিকারের সঙ্গে অবিচ্ছিন্নভাবে বাঁধা। আমাদের রাজনৈতিক স্বার্থবুদ্ধি ও সামপ্রদায়িক স্বার্থসিদ্ধি একসূত্রে বেঁধে আমরা আজ জাতিগত মহৎ অর্জনগুলোকে ছিন্নভিন্ন করে ফেলছি। এ আত্মবিধ্বংসী কৌশলের চক্রান্ত থেকে বেরিয়ে আসাই মহান একুশে আমাদের সঙ্কল্পবাক্য হোক। একুশের মহৎ দিনটি সমগ্র জাতিকে পথ দেখাবে সামনে এগিয়ে চলার। উজ্জ্বল উদ্ধারের সাধনার কোন বিকল্প পথ নেই। গণতন্ত্র হলো সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে এগিয়ে চলা, কাউকে পেছনে ফেলে রাখার ব্যবস্থা গণতন্ত্রের সাধনায় নেই। আমাদের আত্মপরিচয়ের ওপর থেকে মোহাবরণ উন্মোচিত করুক মহান একুশে- এই হোক আমাদের প্রার্থনার বাণী এবার।
অমর একুশের প্রত্যয় ছিল সব অজ্ঞতা, কুসংস্কার ও কূপম-ূকতা থেকে মুক্তি। শুধু ভাষার মুক্তি নয়, আপন সাহিত্য, শিল্পকলা ও সংস্কৃতির মুক্তি। সে মুক্তি আজও পুরোপুরি অর্জিত হয়েছে বলা যাবে না। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের বিরুদ্ধে যেমন প্রতিক্রিয়াশীল শক্তি সক্রিয় ছিল, আজও তাদের উত্তরসূরিরা আবহমান বাঙালি সংস্কৃতির মূলে কুঠারাঘাত হানছে। আবার সাম্প্রদায়িক শক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। অমর একুশের শপথ হোক সংঘাতময় রাজনীতি পরিহার করে একুশের চেতনার প্রতি শ্রদ্ধা জানানো।
এখানে আরেকটি কথা বলা প্রয়োজন। একুশে ফেব্রুয়ারি নিয়ে আমরা সভা-সমাবেশ তথা অনুষ্ঠানে যতটা সোচ্চার, ব্যক্তি ও জাতীয় জীবনে এর চেতনা ধারণ করতে ততটাই নিষ্ক্রিয়। ভাষা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি, বাংলা রাষ্ট্র ভাষার মর্যাদা পেয়েছে। ভাষা আন্দোলনের ৫৮ বছর পরও সেই ভাষার উন্নতি ও সমৃদ্ধি কতটা অর্জিত হয়েছে তাও মূল্যায়ন করা জরুরি। শুধু আনুষ্ঠানিকতায় নয়, বাংলা ভাষাকে আরও উন্নত ও সমৃদ্ধ করার মধ্য দিয়েই একুশের চেতনা অমস্নান করা যাবে। একুশের আন্তর্জাতিক মর্যাদা যেন আমাদের আত্মশ্লাঘায় না ভোগায়, দায়িত্বশীল হতে শেখায়- এবারের একুশেতে সেটাই আরাধ্য।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪