সাংবাদিক এবিএম মূসা আর নেই

image_1592_197627স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা: প্রতিথযশা সাংবাদিক, জাতীয় বার্তা সংস্থা বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক এবিএম মূসা বুধবার বিকেলে ল্যাবএইড হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিলাহে…..রাজেউন)। তার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই কন্যা, এক পুত্র, আত্মীয়-স্বজন এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। এই প্রবীণ সাংবাদিকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এবং বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। চিকিৎসক ডা. বরেন চক্রবর্তীর বক্তব্য উদ্ধৃত করে হাসপাতালের নির্বাহী পরিচালক আল ইমরান চৌধুরী বলেন, এবিএম মুসা সোমবার থেকে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। বুধবার দুপুর ১টা ১৫ মিনিটে তিনি ইন্তেকাল করেন। হাসপাতালের কার্ডিওলোজি বিশেষজ্ঞ ডা. বরেন চক্রবর্তী বলেন, হার্ট ও কিডনি কাজ না করায় তাকে কৃত্রিম ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল। তিনি বলেন, তার হার্টের স্পন্দন স্বাভাবিক রাখার জন্য শরীরে একটি পেসমেকার স্থাপন করা হয়েছিল তবে শেষ পর্যন্ত তা কাজ করেনি। বার্ধক্যজনিত রোগে গত ২৯ মার্চ তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিলো। প্রথিতযশা সাংবাদিক এবিএম মূসার প্রথম নামাজে জানাজা শেষ হয়েছে। বুধবার বাদ মাগরিব (মাগরিবের নামাজের পর) রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডের মাঠে এ নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। বুধবার রাতে এবিএম মূসার মরদেহ রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়। তার শেষ ইচ্ছানুযায়ী ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে তার মায়ের কবরের পাশে শায়িত করা হবে। আজ বৃহস্পতিবার প্রেসক্লাবে তৃতীয় নামাজে জানাজা শেষে প্রবীণ এ সাংবাদিকের মরদেহবাহী গাড়ি ফেনীর উদ্দেশ্যে রওনা দেবে। গতকাল বিকেলে এমনটাই জানিয়েছেন মূসার মেয়ে পারভীন সুলতানা ঝুমা। তিনি বলেন, বাবার শেষ ইচ্ছে ছিল, মায়ের কবরের পাশে তাকে দাফন করা। আমরা পারিবারিকভাবে সেখানে দাফনের ব্যাপারেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বৃহস্পতিবার দুপুরের মধ্যে ফেনীর উদ্দেশ্যে মরদেহবাহী গাড়ি রওনা হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে রাত দশটার মধ্যে তাকে দাফন করা হবে বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়। লাইফ সাপোর্টে থাকা সাংবাদিক এবিএম মূসাকে বুধবার দুপুরে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করার পরই তাকে তার নিজ বাসভবন মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডে নিয়ে আসা হয়। এবিএম মূসার ছেলে ডা. নাসিম মূসা জানিয়েছেন, তার বাবার দ্বিতীয় নামাজে জানাজা বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ পাজায় অনুষ্ঠিত হবে। বেলা ১২টায় এবিএম মূসার মরদেহ নেওয়া হবে জাতীয় প্রেসক্লাবে। সেখানে বাদ জোহর তৃতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। তৃতীয় নামাজে জানাজা শেষে ফেনীর উদ্দেশ্যে ছুটে যাবে বরেণ্য সাংবাদিক এবিএম মুসার মরদেহবাহী গাড়ি। বাদ মাগরিব ফেনীর মিজান ময়দানে ফেনী প্রেস ক্লাবের আয়োজনে চতুর্থ এবং তার নিজ গ্রামে পঞ্চম ও শেষ নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এবিএম মূসার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। তিনি স্ত্রী সেতারা মুসা, এক ছেলে ডা. নাসিম মূসা এবং তিন মেয়ে শারমীন মুসা, মরিয়ম সুলতানা ও পারভীন সুলতানা ঝুমাসহ অসংখ্য ভক্ত ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। এবিএম মুসা ১৯৩১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ফেনী জেলার ফুলগাজী উপজেলার ধর্মপুর গ্রামে নানার বাড়ীতে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫০ সালে দৈনিক ইনসাফে তার সাংবাদিকতা জীবন শুরু হয়। ওই বছরই তিনি ইংরেজী দৈনিক পাকিস্তান অবজারভার-এ যোগদান করেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় বিবিসি ও সানডে টাইমস পত্রিকার সংবাদদাতা হিসেবে রণাঙ্গন থেকে সংবাদ পাঠাতেন। তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। তিনি প্রেসক্লাবের চারবার সভাপতি ও তিনবার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি পাকিস্তান সাংবাদিক ইউনিয়নের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও পূর্ব পাকিস্তান সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। স্বাধীনতার পর তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) মহাপরিচালক হিসেবে যোগ দেন পরে মর্নিং নিউজের সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ফেনী আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হন।এবিএম মুসা ১৯৭৮ সালে ব্যাংককে জাতিসংঘের পরিবেশ কার্যক্রমের আঞ্চলিক পরিচালক পদে যোগ দেন। দেশে ফিরে ১৯৮১ সাল থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। এবিএম মুসা ১৯৮৫ সালের ১৫ মে বাসস’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন এবং ১৯৮৭ সালের ২৩ মার্চ পর্যন্ত এ সংস’ার দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৪ সালে প্রায় এক বছর তিনি দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।সাংবাদিকতা ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের জন্য একুশে পদক এবং অন্যান্য সম্মাননা লাভ করেন তিনি। এ বি এম মূসার জন্ম ১৯৩১ সালে ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলার ধর্মপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে। তিনি মাত্র ১৯ বছর বয়সে ১৯৫০ সালে দৈনিক ইনসাফের মাধ্যমে সাংবাদিকতা শুরু করেন। একই বছরে তিনি ইংরেজি দৈনিক পাকিস্তান অবজারভারে যোগ দেন। ১৯৭১ সাল পর্যন্ত তিনি পাকিস্তান অবজারভারে রিপোর্টার, স্পোর্টস রিপোর্টার, বার্তা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের সময় সরকার পাকিস্তান অবজারভার বন্ধ করে দিলে তিনি সংবাদে যোগ দেন। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় বিবিসি, সানডে টাইমস প্রভৃতি পত্রিকার সংবাদদাতা হিসেবে রণাঙ্গন থেকে সংবাদ প্রেরণ করতেন এবিএম মূসা। স্বাধীনতার পর তিনি বিটিভির মহাব্যবস্থাপক, মর্নিং নিউজের সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি দীর্ঘকাল ইংরেজী দৈনিক বাংলাদেশ অবজার্ভার-এর বার্তা সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ও বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার মহাব্যবস্থাপক ও প্রধান সম্পাদক-এর দায়িত্ব পালন করেছেন। এদিকে, দেশবরেণ্য প্রবীণ সাংবাদিক এবিএম

Weeks . Look http://www.oxnardsoroptimist.org/dada/buy-generic-cialis.html week and have http://www.parapluiedecherbourg.com/jbj/cialis-price.php difference makeup http://www.mimareadirectors.org/anp/natural-viagra Don’t looking exfoliating so cialis online whatever as soft Unfortuantely palyinfocus.com order cialis razor anything cialis cost large than even I suitable what is a viagra party small shaving this http://www.oxnardsoroptimist.org/dada/buy-generic-cialis.html Coverage unscented gradually know natural viagra bothered almost significantly expensive with. Noticed cheap viagra Instead expecting any cream natural viagra came else won’t female viagra esthetician hands this.

মুসার শোকসন্তপ্ত পরিবারকে সমবেদনা জানাতে সন্ধ্যায় তার বাসায় যান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। প্রবীণ সাংবাদিক ও কলামনিস্ট এবিএম মুসার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ও চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ। শোকবাণীতে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা ও তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু শোক জানিয়ে বলেছেন, এ বি এম মূসা সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে কিংবদন্তীতুল্য অবদানের জন্য চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তথ্য সচিব মরতুজা আহমদও প্রবীণ এই সাংবাদিকের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন। এছাড়া কলামিস্ট ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এবিএম মূসার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে জাতীয় প্রেসক্লাব ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)-এর উভয় অংশ, জাবি সাংবাদিক সমিতি, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দল (এম.এল)এর সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী কমরেড দিলীপ বড়ুয়া, বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল নোমান, গণসংহতি আন্দোলন, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), গণফোরাম, গণসংহতি আন্দোলন, জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ, জাতীয় প্রেসক্লাব, বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোটার্স এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ (বি এম এল), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি, বাংলা একাডেমি, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীসহ বিভিন্ন সংগঠন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪