**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

শীতলক্ষ্যায় নজরুলসহ ৬ জনের লাশ

image_1612_200331নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি :
অপহরনের চার দিনের মাথায় গতকাল বুধবার বিকালে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার মদনগঞ্জের শান্তিনগর ও চর ধলেশ্বরী এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদী থেকে প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, স্বপন, অ্যাডভোকেট চন্দন সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহিমসহ অপহৃত ৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশ ৬টি এক কিলোমিটারের মধ্যে পায়ে ২৪টি করে ইটবোঝাই সিমেন্টের ব্যাগ দিয়ে বাঁধা অবস্থায় নদীতে ডোবানো ছিল। পা ছিল দড়ি দিয়ে বাঁধা। হাত পেছনে দড়ি দিয়ে বাঁধা ছিল। মুখমন্ডল পলিথিন দিয়ে গলার কাছে বাঁধা ছিল। পেট ধারালো অস্ত্র দিয়ে সোজাসুজি ফাঁড়া ছিল। গত রোববার ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে অপহূত সাতজনের মধ্যে এখন শুধু কাউন্সিলর নজরুলের গাড়িচালক জাহাঙ্গীরের সন্ধান মেলেনি। বাকি যাদের লাশ শনাক্ত করা হয়েছে তারা হলেন কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের গাড়িতে থাকা তাজুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান স্বপন ও লিটন। বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার মোরশেদ ছয়টি লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
ওসি জানান, কাউন্সিলর নজরুলের লাশ শনাক্ত করেন তার ভাই আবদুস সালাম, স্বপনের লাশ শনাক্ত করেন তার ভাই রিপন, ইব্রাহিমের লাশ শনাক্ত করেন তার ভাই আবু বকর এবং তাজুলের ভাই আনিস তার লাশটি শনাক্ত করেন। চন্দন কুমার সরকার ও লিটনের লাশও তাদের স্বজনরা শনাক্ত করেন বলে জানা গেছে।
এর আগে দুপুর পৌনে ৩টার দিকে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া এলাকার শীতলক্ষ্যায় অজ্ঞাত পরিচয়ের অর্ধগলিত ৪টি লাশের সন্ধান পায় পুলিশ। পরে আরও ২টি লাশ পাওয়া যায়। উদ্ধার অভিযান সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে। লাশ উদ্ধার করতে যাওয়া বন্দর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মোকাররম হোসেন সাংবাদিকদের জানান, এলাকাবাসীর খবর পেয়ে আমরা লাশ উদ্ধার করছি। প্রতিটি লাশই ইট দিয়ে বাঁধা ছিল। যেনো লাশ ভেসে উঠতে না পারে তারজন্যই দুর্বৃত্তরা এটি করে থাকতে পারে। চেহারা বোঝা যাচ্ছে না। পাঞ্জাবি-পাজামা পরা লাশটি প্রথমে শান্তিনগর এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়। আর এটিই প্যানেল মেয়র নজরুলের বলে শনাক্ত হয়েছে। তিনি আরও বলেন, দুপুরের পর থেকে লাশগুলো ভেসে উঠতে শুরু করে। প্রতিটি লাশের হাত-পা বাঁধা ছিল। মুখ পলিথিন দিয়ে মোড়ানো ছিল। কোনো সংঘবদ্ধ চক্র এ ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে।
এদিকে লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে উদ্ধারস্থলে ছুটে যান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) শহিদুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার (ক অঞ্চল) আজিমুল আহসান, বন্দর থানার ওসি আকতার মোর্শেদ। বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আকতার মোর্শেদ জানান, শীতলক্ষ্যা নদীতে লাশ ভেসে যাওয়ার খবর শুনে পুলিশ ঘটনাস্থলে পেঁৗছে ৬টি লাশ উদ্ধার করে। পরে খবর পেয়ে নিহতের স্বজনরা এসে লাশগুলো শনাক্ত করেন। এদিকে প্যানেল মেয়র নজরুলের লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে উত্তাল হয়ে ওঠে নারায়ণগঞ্জ। তার সমর্থকেরা সিদ্ধিরগঞ্জের মৌচাক এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছে। তারা গাড়ি ভাঙ্চুর করছে বলেও খবর পাওয়া গেছে। বন্ধ হয়ে গেছে যান চলাচল। আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গত ২৭ এপ্রিল রোববার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ ৫ জনকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য নজরুলের সাথে অপহৃত হয়েছিলেন- তার প্রাইভেটকারের চালক জাহাঙ্গীর, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের সিদ্ধিরগঞ্জ থানা কমিটির সহসভাপতি তাজুল ইসলাম, ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগকর্মী মনিরুজ্জামান স্বপন, লিটন ও তার গাড়ির ড্রাইভার। জানা যায়, ওইদিন দুপুর আড়াইটায় নারায়ণগঞ্জ আদালতে একটি মামলার হাজিরা শেষে সাদা রঙের এক্স করোলা(ঢাকা মেট্রো-ব ১৪-৯১৩৬) দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ ফিরে যাওয়ার পথে শিবুমার্কেট এলাকায় রাস্তা অবরোধ করে তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই রাতে নজরুলের গাড়িটি গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে শালবনের পাশে পরিত্যক্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। তবে তাদের কোনো সন্ধান মিলছিল না। একইদিন আদালতপাড়া থেকে আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ২ জনকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। চন্দন সরকারেরও গাড়ি পরে ঢাকার নিকেতন থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। তাদেরও হদিস বুধবার পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছিল না। আর এ দুটি অপহরণের ঘটনায় ফুঁসে ওঠে নারায়ণগঞ্জ। নজরুল অপহরণের পর প্রশাসনের পক্ষে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, র‌্যাবের সিও, সিদ্ধিরগঞ্জ ও ফতুল্লা থানার ওসিকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
নারায়ণগঞ্জ উত্তাল : পেট্রোলপাম্পে আগুন
অপহরণের ৪ দিনের মাথায় অপহৃত প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ ৫ জনের মৃতদেহ উদ্ধারের খবর পেয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে আগুন জ্বেলে অবরোধ করে রেখেছেন সিদ্ধিরগঞ্জবাসী। গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মৌচাক এলাকায় হাজী ইয়াসিন মিয়ার সামস ফিলিং স্টেশনে আগুন দেয় উত্তেজিত জনতা। ইয়াসিন মিয়া নজরুল ইসলাম অপহরণ মামলার দ্বিতীয় আসামি। ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমের ডিউটি অফিসার নিলুফার ইয়াসমিন জানান, সামস পেট্রোল পাম্পে আগুন দিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে যাওয়ার জন্য রওয়ানা দিয়েছে। প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, সিদ্ধিরগঞ্জ ২নং ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি নজরুল ইসলামের মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে- এমন খবর পেয়ে শত শত জনতা রাস্তায় নামে আসেন। তারা গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি দিয়ে রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেন। এ ছাড়া মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন। এ সময় কিছু যানবাহন ভাঙচুর করা হয়। গতকাল বিকেলে শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসমান অবস্থায় নাসিক ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের মৃতদেহ শনাক্ত করেন তার পরিবার। এ সময় আরও তিনটি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। তারা হলেন- আইনজীবী চন্দন সরকারের গাড়িচালক ইব্রাহিম, স্বপন ও তাজুল। গত রোববার একটি মামলায় আদালতে হাজিরা দিয়ে বের হয়ে নিজ গাড়িতে বাসায় ফেরার পথে নজরুলসহ পাঁচজন অপহৃত হন। ওইদিন রাতে গাড়িটি গাজীপুর থেকে উদ্ধার করা হয়। ওই ঘটনার ৩০ ঘণ্টা পর সোমবার রাতে নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কাউন্সিলর নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করা হয়। এ মামলার অপর আসামিরা হলেন- সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াসিন মিয়া, ইকবাল, হাসু, রাজু ও আনোয়ার। এর মধ্যে হাসু প্যানেল মেয়র নজরুলের চাচা শ্বশুর বলে জানা গেছে। বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকতার মোর্শেদ শীতলক্ষ্যা নদী থেকে পাঁচটি মৃতদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
কাউন্সিলর নূর হোসেনকে গ্রেফতার দাবি নজরুলের স্ত্রীর
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের (নাসিক) প্যানেল মেয়র ও ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ ৫ জনের অপহরণের ঘটনায় মামলা দায়ের হওয়ার পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছেন আরেক কাউন্সিলর নূর হোসেন। নূর হোসেন নাসিকের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। তিনি কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম অপহরণ মামলার প্রধান আসামি। সেই কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেনকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন নজরুলের স্ত্রী সেলিনা হোসেন। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা- সিলেট মহাসড়ক অবরোধকালে সেলিনা হোসেন এ দাবি জানান।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪