বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে মুখর সারাদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস : রোবাবর ছিল বিশ্ব ভালোবাসার দিন। ‘একটুকু ছোঁয়া লাগে একটুকু কথা শুনি, তাই দিয়ে মনে মনে রচি মম ফাল্গুনি’ প্রথম দর্শনের মাহেন্দ্রক্ষণটি কে ভুলতে পারে। দূর থেকে একটু দেখা, কাছে আসার পর আলতো ছোঁয়া আর মনে মনে ফাগুন রচনার ওই ক্ষণকালের নামই বোধহয় ভালোবাসা। সেই ভালোবাসায় মুখর ছিল রাজধানীসহ সারাদেশ। রাজধানীতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ হয়ে উঠে ভালোবাসার মিলনমেলা। টিএসসি শাহবাগ, চার“কলা, ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবরেও ছিলো যুগলদের পদচারণায় মুখর। প্রেয়সীর পানে একগুচ্ছ গোলাপ তুলে দিয়ে প্রেমকাতর হৃদয় বলে উঠে পৃথিবীর সবচেয়ে ব্যাকুল করা বাক্যটি ‘আমি তোমায় ভোলোবাসি’। আর তার সঙ্গে সঙ্গে ফাল্গুনের এই রাঙা সকাল, বিকেল বা রাতটাও হয়ে উঠে প্রেমিক যুগলের জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়। প্রথম কবিতার মতো যেমন অনেকের জীবনে প্রথম প্রেম ধরা দেয়, তেমনি অনেক প্রেমিক যুগল সেলিব্রেট করেছেন তাদের একসঙ্গে পথচলার ৫ বা ১০ বছর। প্রিয় মানুষটির সামনে ভালোবাসার রঙে নিজেকে সাজিয়ে উপস্থিত হন আরেকবার। আবার তারা হয়তো নুতন করে একে অপরের প্রেমে পড়বেন। দূরে কোথাও হারিয়ে গেছেন বসন্তের উতল হাওয়ার মতোই। নিজেদের মতো করে কাটিয়ে দেন ভালোবাসার দিনটি। বাহুবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে কবি উৎপলকুমার বসুর কথাগুলো আওড়ে যাবেন ‘যা নয় তোমার বাহু/ তাই কালো তাই অন্ধকার’। ভ্যালেন্টাইনস ডে বা ভালোবাসা দিবস সার্বজনীন হলেও দিবসিটিতে তার“ণ্যেরই জয়জয়কার দেখা যায়। আর দিবসটির মূলত প্রেমিক-প্রেমিকা বা মানব-মানবীর চিরায়ত প্রেমকেই বোঝানো হয়ে থাকে। বাঙালির জীবনে এখন চলছে মধুর বসন্ত। ফাল্গুনের পলাশ শিমুল ফোটার সময় ভালোবাসা দিবসে প্রেমিক যুগলদের আনাগোনা ছিল শহরের নানা প্রান্তরে। উদ্যানগুলো হয়ে উঠে নন্দনকানন। অনেকে আবার ধানমন্ডি, বনানী, গুলশান, উত্তরার ফাস্টফুড ও কফিশপ গুলোতে মিলিত হবেন। দুজনে একান্ত সময় কাটানোর পাশাপাশি চলেছে খাওয়া-দাওয়া। অনেক প্রেমিকযুগল বর্তমানে আবার ভালোবাসা দিবসকে বেছে নিয়েছেন প্রেমকে চিরস্থায়ী রূপ দিতে অর্থাৎ বিয়ের দিন হিসেবে। তাই এখন ভালোবাসা দিবস বিয়ের দিন হিসেবেও জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ভালোবাসা দিবসে উপহার আদান-প্রদানের প্রচলনও হয়েছে। চকোলেট, পারফিউম, বই, প্রিয় পোশাক, আংটি, ঘড়ি, খেলনা উপহার হিসেবে দেয়া-নেয়া চলে। তবে সবচেয়ে বেশি দেয়া-নেয়া হয়েছে রক্তগোলাপ। রাজধানীর পথে পথে বসেছে ফুলের দোকান। পাশাপাশি প্রেমবার্তা, শুভেচ্ছা কার্ড, ই-মেইল, মোবাইলে এসএমএস পাঠানো চলেছে সমান তালে। ভালোবাসা দিবস আমাদের দেশে এখন ঘটা করে পালন করা হলেও এটি এসেছে পশ্চিমা সংস্কৃতি থেকে। ভালোবাসা দিবস উদযাপনের ইতিহাস বেশ পুরনো এবং এ নিয়ে একাধিক কাহিনি প্রচলিত আছে। তবে সবচেয়ে বেশি প্রচলিত গল্পটি হচ্ছে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনকে নিয়ে। ভালোবাসার প্রকাশ হিসেবে ফুলের হাতবদল বেশ প্রচলিত রীতি। ভালোবাসা দিবসটিতে প্রিয়জনের মুখে হাসি দেখতে হলে একটি ফুলইতো যথেষ্ট। একদিকে ভালোবাসার রং আর অন্যদিকে ফুল হিসেবে গুর“ত্বপূর্ণ- এ দুয়ে মিলে গোলাপ বেশ দাপুটে। রাজধানীর শাহবাগের ফুলের দোকানগুলো থেকে জানা যায়, একটি গোলাপের জন্য ক্রেতাকে ব্যয় করতে হয়েছে ১০ টাকা। অনেক নারীই বাসা থেকে বেড়িয়েছেন খোপায় বেলি ফুলের মালা দিয়ে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে এবং চ্যানেল আই ও বিজ্ঞাপনী সংস্থা মাত্রা’র সহযোগিতায় আয়োজিত ওই অনুষ্ঠান সকাল ১০টা থেকে শুর“ হয়ে বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত চলে। এতে ছিলেন গুণীজনের কথা, ঢাকার ঐতিহ্যের প্রদর্শনী, ঢাকাইয়া খাবারের আয়োজন, নাচ, কবিতা আবৃত্তি, ভালোবাসার গানের কনসার্ট, যাতে ছিল দেশের জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, জেমস, জলের গান, শিরোনামহীনসহ আরো অনেক ব্যান্ড দলের শিল্পীদের পরিবেশনা। এদিকে, কর্মদিবসের শুর“ হলেও ভালোবাসা দিবসে অঘোষিত ছুটির আমেজ তর“ণ-তর“ণীদের মধ্যে। শুর“তেই তাই ভিড় জমেছে অমর একুশে গ্রন্থমেলায়। বসন্ত, ভালোবাসা আর বইপ্রেমের মিশেলে ক্রমশ সমাগম বাড়ে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪