**   উলিপুর ফুটবল টুর্নামেন্টের প্রথম রাউন্ডের খেলা অনুষ্ঠিত **   ঐক্যফ্রন্ট ছাল-বাকলের তৈরি: প্রধানমন্ত্রী **   সাঈদা মুনা তাসনিম যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের নতুন হাই কমিশনার **   ব্যারিস্টার মইনুলের কাছে ক্ষমা চাইতে মাসুদা ভাট্টিকে আইনি নোটিশ **   মেয়াদোত্তীর্ণ নেতাদের ভাড়া করে ঐক্য করেছে বিএনপি : হাছান মাহমুদ **   চিলমারীতে সোনালী ব্যাংক ম্যানেজারের বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠিত **   কুড়িগ্রামে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত **   চিলমারীতে কৃষি প্রনোদনা কর্মসূচীর আওতায় কৃষকদের মাঝে বিনামুল্যে বীজ ও সার বিতরণ **   উলিপুরে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা **   ডা. জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে এবার চুরির মামলা

রাজিবপুর স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বাসায় সন্ত্রাসী হামলা : চিকিৎসক লাঞ্চিত

আহসান হাবীব নীলু, কুড়িগ্রাম থেকে: কুড়িগ্রাম জেলার রাজীবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ার হোসেনের সরকারি বাস ভবনে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে। সন্ত্রাসীরা বাসার চেয়ার টেবিল, জানালা দরজা ভাংচুর ও গুরুত্বপূর্ন কাগজপত্র তছনছ করে। পরে ইউএনও’র ফোন পেয়ে থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযুক্ত সন্ত্রাসীদের নাগালে পেয়েও কাউকে গ্রেপ্তার করেনি। উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আব্দুল হাই সরকারের পুত্রসহ ১০/১২ জনের একটি দল ওই ন্যাক্করজনক ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। বুধবার দিবাগত রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়। নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী। ফলে বিঘিœত হয়ে পড়েছে স্বাস্থ্যসেবা।
রাজিবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ার হোসেন জানান, রাত পোনে ৮টার দিকে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হাই সরকার হাসপাতালে ভর্তি তার এক রোগীকে দেখতে যায়। এসময় বিদ্যুৎ না থাকায় হাসপাতাল জুড়ে অন্ধকার ছিল। হাসপাতালের ইনডোরে আলো নেই কেন-এমন বিষয় মোবাইল ফোনে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কাছে জানতে চান আওয়ামী লীগের ওই সভাপতি। এনিয়ে মোবাইল ফোনে কথা কাটাকাটির মিনিট পাঁচ পরেই ওই সভাপতির পুত্র মিশু মিয়া (২৮) সহ ১০/১২ জনের একটি দল হাসপাতাল চত্বরে তার সরকারি বাস ভবনে ঢুকে চেয়ার টেবিল ও আসবাবপত্র ভাংচুর এবং কাগজপত্র তছনছ করে। এক পর্যায়ে তারা তাঁকে (ডা. দেলোয়ার হোসেন) লাঞ্চিত করেন। মোবাইল ফোনে খবর পেয়ে ইউএনও ও থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের এক কর্মচারী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ নেতার ওই পুত্র মিশু মিয়া এর আগেও হাসপাতালের স্বাস্থ্য কর্মকর্তার ওপর হামলা করেছিল। গত বছর ফেব্র“য়ারী মাসে ওই সময়ের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মাবুদ আলী অপমান সহ্য করতে না পেরে রাজিবপুর ছেড়ে চলে গেছে।’ ওই আওয়ামী লীগ নেতার কারণে আমরা হাসপাতালের কেউ নিরাপদ নই এখন।
স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ দেলোয়ার হোসেন আরো জানান, ‘প্রথমে আওয়ামী লীগের সভাপতি মোবাইল ফোনে আমাকে হুমকি দেয়। এর পরই তাঁর ক্যাডার বাহিনী আমার কক্ষে ঢুকে হামলা চালায়। সঙ্গে সঙ্গে ইউএনও স্যার ও থানা পুলিশকে জানানো হয়। পুলিশ সময় মতোই ছুটে আসে কিন্তু সন্ত্রাসীরা সরকারি দলের নেতার স্বজন হওয়ার কারনে তাদের গ্রেপ্তার করেনি।’ রাতে হাসপাতাল অন্ধকারাচ্ছন্ন বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার পরই হাসপাতালের ইনডোরে আলোর ব্যবস্থার নির্দেশ দেয়া হয় স্টোরকে। ওই সময়ে হাসপাতালের জেনারেটর নষ্ট ছিল যা মেরামতের প্রক্রিয়ায় ছিল। আওয়ামী লীগের সভাপতি মোবাইল ফোন করেই আমাকে হুমকি দেয়। এ ব্যাপারে আমি আমার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছে এবং থানা পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। কিন্তু পুলিশ এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আমি এখন চরম নিরাপত্তহীনতার মধ্যে অবস্থান করছি। যে কোনো স্থানে পেলে আমার ওপর আবারও হামলা করার ঘোষনা দিয়েছে সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা।’
এ বিষয়ে রাজিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হাই সরকার বলেন, ‘ওই কর্মকর্তা প্রথমে আমার সঙ্গে বেয়াদবি করেছে। হাসপাতালে আলো নেই কেন? কথাটি জানতে চেয়েছিলাম মাত্র। পরে আমার ছেলেসহ যারা ওই ঘটনাটি ঘটিয়েছে তা ঠিক করেনি। এ বিষয়ে আমি আমার ছেলেদের অপরাধের বিচার করতে চেয়েছি। এনিয়ে কোনো রিপোর্ট করার দরকার নেই।’
রাজিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শফিউল আলম বলেন, ‘হাসপাতালের অভ্যন্তরে যে ঘটনা ঘটেছে তার সঙ্গে আওয়ামী লীগ জড়িত নয়। এটা সম্পূর্ন আওয়ামী লীগ সভাপতির ব্যক্তিগত বিষয়। তাঁর অপকর্মের দায় দল নিবে না। এটাই সাফ কথা।’
উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাসির উদ্দিন মাহমুদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আমার বাস ভবনের সঙ্গেই স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বাসভবন। রাতে চিৎকার শুনে আমিই প্রথম থানা পুলিশকে খবর দিয়েছি।’
এ ব্যাপারে রাজিবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পৃথীশ কুমার সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এবিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম সিভিল সার্জন আমিনুল ইসলাম বলেন, তিনি এ সংক্রান্ত লিখিত অভিযোগ পেয়ে বৃহস্পতিবার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ নাসরিন বেগমকে প্রধান করে দু’সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত টিম গঠন করেছেন। আগামী তিনদিনের মধ্যে তদন্ত টিম তার রিপোর্ট পেশ করবে। এছাড়া উদ্ভুত পরিস্থিতির বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে অবহিত করেছেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জনগণের স্বাস্থ্যসেবা যেন বিঘিœত না হয় সে ব্যাপারে স্বাস্থ্য বিভাগ সতর্ক রয়েছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪