**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছোটদের জন্য মহান একুশে ফেব্র“য়ারীর জানা-অজানা কথা

॥ প্রকৌশলী সরদার সায়িদ আহমেদ ॥

তোমরা যারা এখনো ছোট তারা নিশ্চয়ই ছোট গল্প, বিশেষতঃ দৈত্য, ভূতের গল্প, ভ্রমন কাহিনী, ছড়া, কবিতা ইত্যাদি বড়দের নিকট শুনতে এবং নিজে নিজে পড়তে খুব ভালবাস, তাই না? আমরা যখন ছোট ছিলাম ঠিক তোমাদের মতই আমাদেরও ভাল লাগতো গল্প শুনতে ও গল্পের বই পড়তে। ছোট বন্ধুরা আজ কিন্তু দৈত্য-দানব বা রাক্ষুসপুরীর কোন গল্প নয়। আজ একটি ভিন্ন বিষয়ে, একটি মহান দিবসের কথা তোমাদেক বলবো যার মাঝে লুকিয়ে আছে বাংলা ভাষা আর বাংলাভাষীদের অমুল্য ইতিহাস। সে মহান দিবসটি সম্পর্কে নিশ্চয়ই তোমাদের জানতে ইচ্ছে করছে। কি ঠিক বলেছি না?
তোমাদের মধ্যে অনেকে হয়তো ইতিমধ্যে জানো বা শুনেছ বর্তমান মাসটির নাম ফেব্র“য়ারী, আমরা যারা বাংলা ভাষায় কথা বলি তাদের জন্য এই মাসটি একদিকে যেমন দারুন বেদনার, ত্যাগের অন্যদিকে তেমনই অনেক বড় অহংকার আর গৌরবের। ১৯৫২ইং সনের ফেব্র“য়ারী মাসের ২১ তারিখ মূলতঃ মহান একুশে বা শহীদ দিবস বলে পরিচিত। একুশের বই মেলার কথা কে না জানে? ঢাকাতে বাংলা একাডেমী প্রতি বৎসর যে বই মেলার আয়োজন করে সেখানে অনেক সুন্দর সুন্দর বই প্রকাশ হয়। আমি দেখেছি ছোটরাই কিন্তু সেখানে বেশী বই কিনে আনন্দ পায়, নতুন বই শুধু পড়া নয় এর সুবাসিত ঘ্রান ছোট বেলায় আমাদের দারুন ভাল লাগত, তোমাদের কাছেও হয়তো একই রকম লাগে। এতসব কথার পর তোমাদের মনে প্রশ্ন জাগা স্বাভাবিক, কেন এই একুশে উদ্যাপন, কেন নগ্ন পায়ে প্রভাত ফেরী, কেনই বা বই মেলা আর সারা মাস জুড়ে রেডিও টিভিতে কেনই বা একুশকে নিয়ে এতো অনুষ্ঠান মালা?
হ্যাঁ, ছোট বন্ধুরা আমরা এখন সবাই মিলে জানতে চেষ্টা করবো কিভাবে বিশেষ একটি দিবস আমাদের কাছে এমন মহান, স্মরণীয় আর বরণীয় হল। কি তোমরা তৈরি তো? তাহলে এসো শুরু করি। তোমরা জানো আমরা বাংলাদেশি এবং বাংলাভাষী। এই ভাষা আমাদের মায়ের ভাষা অর্থাৎ জন্মের পর হতে মায়ের মুখ হতে শুনে তা শিখেছি এবং প্রতিদিন, প্রতিক্ষণ মনের চাওয়া পাওয়া এ ভাষাতেই প্রকাশ করি। এখন হঠাৎ করে কেউ যদি তোমাদেরকে বলে আজ থেকে বাংলায় কথা বলা যাবেনা। কথা বলতে হবে উর্দুতে, যে ভাষা এদেশের কেউ জানেন না। তাহলে সে আদেশ কি মানা যাবে? নিশ্চয়ই তোমরা দৃঢ়তার সাথে বলবে কিছুতেই না। কিন্তু বন্ধুরা বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার আন্দোলনে নেমে অমানবিক এবং নিষ্ঠুর অত্যাচারের শিকার হয়েছিলেন এই বাংলার ছাত্র, শিক্ষক আর আপামর জনতাসহ আমাদের পূর্বসূরিগণ। তাদেরকে বাংলা কথা বন্ধ করে উর্দু ভাষায় কথা বলা ও লেখাপড়া করার জন্য জুলুম শুরু করা হয়েছিল, গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল প্রকাশ্য রাজপথে। ঠিক কারা এবং কিভাবে তা ঘটেছিল সে বিষয়টা পরিষ্কার করে বুঝার জন্য বন্ধুরা তোমাদেরকে পিছনের কিছু ইতিহাস জানতে হবে। এখন আমি সেই বিষয়টা নিয়ে আগে তোমাদেরকে সংক্ষেপে বলি এরপর ফিরে যাবো পূর্বের আলোচনায়।
পাঠ্য বই হতে বা বড়দের কাছে নিশ্চয়ই তোমরা জেনেছ যে ১৯৭১ইং সনের ২৬শে মার্চ বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার আগে আমাদের এই দেশটির নাম ছিল পূর্ব পাকিস্তান (পূর্ব বাংলা)। পূর্ব পাকিস্তান হতে প্রায় ২৩৬৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত পশ্চিম পাকিস্তান, এই দুটি দেশ মিলে ১৯৪৭ইং সনের ১৪ই আগস্ট যে দেশটির সৃষ্টি হয়েছিল তার নাম ছিল পাকিস্তান। বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের পর পশ্চিম পাকিস্তানের নাম হয় পাকিস্তান।
১৯৪৭ইং সনে পাকিস্তান রাষ্ট্রের সৃষ্টির শুরু থেকেই পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী (যারা ছিল মূলতঃ পশ্চিম পাকিস্তানের উর্দুভাষী অধিবাসী ও নেতা) পূর্ব-পাকিস্তানিদের সাথে সব ক্ষেত্রে বৈষম্যমূলক আচরণ শুরু করে। সরকারি, বেসরকারি, সামরিক বাহিনীতে চাকুরী এমন কি ব্যবসা বানিজ্যেও প্রাধান্য ছিল পশ্চিম পাকিস্তানের জনগনের। অপরদিকে পূর্ব পাকিস্তানের বাংলাভাষীদের মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকারটুকুও কেড়ে নেওয়ার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় পাকিস্তানের শাসকরা। এই ষড়যন্ত্রের বহিঃপ্রকাশ ঘটে ১৯৪৮ইং সনে তৎকালীন পাকিস্তানের সরকার যখন উর্দুকে একমাত্র রাষ্ট্র ভাষা করার প্রস্তাব করে। তার অর্থ ঐ আইন চালু হলে আমরা আর বাংলায় কথা বলতে পারতাম না কোন দিনও।
সে সময় আমাদের পূর্ব পাকিস্তানের বাংলাভাষী লোকজন পাকিস্তান সরকারের সিদ্ধান্তের কঠোর প্রতিবাদ করে এবং সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষা চালু রাখার পক্ষে জোর দাবী জানায়। বাংলার ছাত্র জনতা যখন বাংলাভাষা চালু রাখার আন্দোলনে লিপ্ত সেই সময় ১৯৪৮ইং সনের ২১, ২৪ ও ২৮শে মার্চ ঢাকা সফরকালে বিভিন্ন সমাবেশে ও রেডিওতে ভাষণে পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ “উর্দু এবং একমাত্র উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা” বলে ঘোষণা করেন। এ অবস্থায় বারুদে আগুনে দিলে যেমন অগ্নিস্ফুলিঙ্গ দ্রুত চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে বাংলার মানুষও মাতৃভাষারার জন্য তেমনই জ্বলে উঠলো।  বাংলার ছাত্র সমাজ, শিক্ষাবিদ ও সর্বস্তরের জনতা লিপ্ত হয়ে উঠেন, প্রতিবাদ মিছিল ও সমাবেশ করে উর্দুকে রাষ্ট্র ভাষা না করার জন্য তৎকালীন পাকিস্তানী সরকারকে হুঁশিয়ারি দেন। কিন্তু তৎকালীন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান এ দাবী মানতে রাজী হননি। এরপর নানা ঘটনা ও সংঘাতময় পরিস্থিতির মাঝে মোহাম্মদ আলী জিন্নার স্থলাভিষিক্ত হয়ে পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল হন খাজা নাজিম উদ্দিন এবং ১৯৫২ইং সনের ২৭শে জানুয়ারী তিনি পুনরায় উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্র ভাষা করার ঘোষণা দিলে পূর্ব বাংলার ভাষা আন্দোলনকারী নেতা কর্মীরা পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য ১৯৫২ইং সনের ৩১শে জানুয়ারী মাওলানা ভাসানীকে সভাপতি করে “সর্ব দলীয় কেন্দ্রীয় রাষ্ট্র ভাষা কর্মী পরিষদ” গঠন করেন এবং এক সভায় পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকারের উর্দুকে রাষ্ট্র ভাষা এবং বাংলাকে আরবী অক্ষরে লেখার প্রহসনমুলক প্রস্তাবের নিন্দা জানিয়ে তা প্রত্যাখান করেন। এরপর উক্ত পরিষদের কার্যকরী কমিটি ১৯৫২ইং সালের ২১শে ফেব্র“য়ারী সর্বাত্মক হরতাল ও মিছিল করার ঘোষণা দেন। এ উপলক্ষ্যে ৪ঠা ফেব্র“য়ারী ঢাকা  বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রগণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে একত্রিত হয়ে সরকারকে হুঁশিয়ার করে বাংলাকে আরবী মুর্দনে লেখার প্রস্তাব বাতিলের এবং বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষা করার দাবী পুনরায় জানানো হয়।
পূর্ব ঘোষণা অনুসারে ১৯৫২ইং এর ২১শে ফেব্র“য়ারী হরতাল ও প্রতিবাদ মিছিলের প্রস্তুতি চলাকালে আন্দোলন থামানোর জন্য পাকিস্তান সরকার ১৪৪ ধারা জারি করে এবং তিনজনের অধিক লোক একত্রিত না হওয়ার নির্দেশ দেয়।  কিন্তু ১৯৫২ইং সনের ২১শে ফেব্র“য়ারী ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে সকাল ৯টায় ছাত্ররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে সমবেত হতে থাকেন। বেলা ১১টা ৩০ মিনিটে ছাত্ররা বিশ্ববিদ্যালয় প্রবেশ দ্বারে পৌঁছলে পুলিশ তাঁদের বাঁধা দেয় এবং টিয়ার গ্যাস নিঃক্ষেপ করে। এ অবস্থায় একদল ছাত্র ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের দিকে চলে যায় এবং অন্য একদল পুলিশ বেষ্টনীর মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে প্রতিবাদ অব্যাহত রাখে। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পুলিশকে গুলি না চালানোর জন্য অনুরোধ করেন এবং ছাত্রদেরকে চলে যেতে বলেন। উপাচার্যের পরামর্শে ছাত্ররা চলে যাওয়া শুরু করলেও পুলিশ ১৪৪ ধারা ভঙ্গের মিথ্যা অভিযোগে অনেককে গ্রেপ্তার করে। এতে ছাত্ররা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং প্রাদেশিক এসেম্বিলি ভবনের দিকে যাওয়ার চেষ্টা চালায় এবং কয়েকজন আইন প্রণেতাকে তাদের বাংলাভাষা চালু রাখার দাবী সংসদে উঠানোর জন্য অনুরোধ করেন।
অন্যদিকে কিছু ছাত্র এসেম্বিলি ভবনে প্রবেশের চেষ্টা করলে পুলিশ গুলি চালায় এবং ঘটনাস্থলে কয়েকজন ছাত্র নিহত হন। তাদের মধ্যে আব্দুস সালাম, রফিক উদ্দিন আহমেদ, আবুল বরকত ও আব্দুল জব্বারের নাম উল্লেখযোগ্য।  এই হত্যাকান্ডের খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে সারা ঢাকা শহরে আইন শৃংঙ্খলা ভেঙ্গে পড়ে এবং সাধারন ধর্মঘট শুরু হয়। ২২শে ফেব্র“য়ারী পূর্ব বাংলার সর্বত্র ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করা হয় এবং পুলিশের গুলিতে আরও ৪ জন মারা গেলে পরিস্থিতি খারাপ আকার ধারন করে। এমতাবস্থায় সর্বস্তরের মানুষ অফিস ছেড়ে ও দোকান পাঠ বন্ধ করে প্রতিবাদ মিছিলে রাস্তায় নেমে পড়েন। জানাজা মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে আরো কয়েকজন মারা যান। ২৩ শে ফেব্র“য়ারী রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ছাত্ররা সারা রাত জেগে প্রথম শহীদ স্মৃতি স্তম্ভ তৈরি করেন কিন্তু পুলিশ তা ভেঙ্গে দেয়। ছাত্ররা পরে শহীদ স্মৃতি স্তম্ভ আবার তৈরি করেন। পরবর্তীতে উক্ত স্থানে প্রধান শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর প্রধান শহীদ মিনারকে পুননির্মাণ করা হয় এবং মহান ভাষা আন্দোলনের শহীদদেরকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এর অনুকরনে সারাদেশে শত শত শহীদ মিনার গড়ে উঠে। এখন তোমরা ইচ্ছা করলেই নগ্ন বা খালি পায়ে বিনা বাঁধায় প্রভাত ফেরি বা মিছিল করে শহীদ মিনারে গিয়ে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পারলেও দেশ স্বাধীন হওয়ার পূর্বে এমনটা সহজ ছিল না। পুলিশের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মাঝে লুকোচুরি করে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়ার সুযোগ করে নিতে হতো । কারণে অকারনে সে সময় পাকিস্তানী পুলিশ ও সামরিক বাহিনীর সদস্যরা বাংলার গণমানুষকে গালাগালিসহ নান ধরনের অত্যাচার করতো।
বাংলাভাষা আন্দোলনের শহীদ ও পৃথিবীর বিভিন্ন জাতি গোষ্ঠীর ভাষাগত অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১৯৯৯ইং সনের ১৭ই নভেম্বর টহরঃবফ ঘধঃরড়হং ঊফঁপধঃরড়হধষ, ঝপরবহঃরভরপ ধহফ ঈঁষঃঁৎধষ ঙৎমধহরুধঃরড়হ(টঘঊঝঈঙ) ২১শে ফেব্র“য়ারীকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন। ১৯৫২ইং সনের ২১শে ফেব্র“য়ারী তাই পূর্ব পাকিস্তান তথা পূর্ববাংলা এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশের মানুষের কাছে এক অসীম শ্রদ্ধা আর ত্যাগের উদাহরণ হয়ে আছে । ভাষা আন্দোলন বা শহীদ দিবস এখন শুধু স্মৃতি চারনের বিষয় নয়, শহীদদেক শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি এটি বাঙ্গালী জাতির সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ। বাংলাদেশে এমন লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না যার হৃদয়ে বেদনা এবং মমতার ছাপ পড়েনা যখন তিনি মিছিল কারিদের কণ্ঠে শুনতে পান “আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্র“য়ারী আমি কি ভুলিতে পারি”।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪