**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

রম্য রচনা: নদীর পানি নিয়ে পাতা খেলা

19396670_818816938283256_5677146314348005372_n

॥ মোঃ শাহীনুর ইসলাম ॥
অনেক আগের কথা জন সাধারন থেকে রাজা বাদশা পর্যন্ত সকলের যোগাযোগের পথ ছিল জল পথ। ধরুন ৪০/৫০ বছর আগে তারই ধারাবাহিকতায় উজান দেশের রাজা নদী পথে তার দেশ পরিভ্রমণ করবেন বলে মন স্থির করলেন। পরিভ্রমণ কালে নদীর তীরবর্তী বাসিন্দা ও নদীর সৌন্দর্য্য দেখে বিমহিত হলেন। মনে তার হিংসা হল উজান ও ভাটিতে দুটি দেশ, উজান দিয়ে প্রবাহিত অভিন্ন নদী। তার দেশের পানি বৃদ্ধি পেলে আরো সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি পাবে, জন সাধারণের উপকার হবে, পানিকে কাজে লাগিয়ে উৎপাদন বৃদ্ধি করা যাবে, এই সুবিধা ভাটিতে দেওয়া যায় না। কৌশলে ভাটির দেশের পানি প্রবাহ বন্ধ করতে হবে। কি ভাবে বন্ধ করা যায় রাজা ফন্দি আটলেন। মন স্থির করলেন ভাটির দেশের রাজার সাথে নদী পানি নিয়ে পাতা খেলবেন। (পাতা খেলা মানে দুপক্ষের উপস্থিতিতে যাদু বিদ্যা দিয়ে বান মারার খেলা)। এ খেলায় বাধ্য হয়েই ভাটির রাজা রাজি হলেন মতামত নেয়ার কোন সুযোগই রইল না যে হেতু তারা ভাটিতে। উজানের রাজা প্রথম বান মারবেন কামরুপ-কামক্ষো থেকে তন্ত্র-মন্ত্র শিখে এসে নদীর তীরবর্তী পাহাড়ের মঞ্চে হাজির হলেন। দুই পক্ষের কিছু নদী প্রেমি সমর্থক ও ভাটির রাজার উপস্থিতিতে খেলা শুরু হলো। উজানের রাজা দৈত্যের পোষাক পরে চোখ বড় বড় করে হাত উচিয়ে বান প্রয়োগ শুরু করলেন। প্রথম বান পদ্মা নদীকে নিয়ে-
কিয়া গিলি গিলি জল থাম থাম
ভাটিতে যাওয়া নয়তোদের কাম
ফারাক্কা বাধ গঙ্গা ছল ছল
পদ্মা নদীতে রবে না জল
জয় রাম রাম জয় ভগবান
পদ্মায় দিলাম প্রথম বান।
ইয়া ফু-ফু-ফু
দৈত্যরাজা এবার থামলেন চোখ রক্তের মত লাল, রুক্ষ চেহারা, তিস্তা নদীর দিকে দৃষ্টি ফেললেন এবং দ্বিতীয় বানটি ছড়ার সুরে মারা শুরু করলেন।
ছু মন্ত্রর ছু দিলাম আমি ফু
পানি পড়বে ফাদে গজলডোবা বাধে
যাসনে পানি সাগরে লুকিয়ে থাক পাহাড়ে
শুনবে মানুষ কিচ্ছা দিবনা পানির হিস্যা
তিস্তা চুক্তির নামে ভাটির দেশ ঘামে
জয় রাম রাম জয় ভগবান তিস্তায় দিলাম দ্বিতীয় বান
ইয়া ফু-ফু-ফু।
উজানের সমর্থকরা  হাত তালি দেয়। দৈত্য রাজা খুশি হয়ে তাদের দিকে দৃষ্টি দিয়ে একটি বর দিলেন।
পাহাড়ে মাছ করবে চাষ
হাইব্রিড কই, মাগুর, পাঙ্গাস
পশু পাখি খাবে জল
ডুবে যাবে অনেক জঙ্গল এতেই তোদের হবে মঙ্গল।
এই নে বর।
বোকা সমর্থকরা আরো জোরে জোরে হাত তালি দেয়। দৈত্য রাজা এবার কিছুটা শান্ত, তৃতীয় বানটি মারতে গিয়ে থেমে যায় হালকা সুরে হুমকি দিয়ে ভাটির রাজাকে বলতে থাকে
পারলে পারি অনেক কিছু রইল পরের জন্য
আইল চুয়ে পানি দিব না করিস যদি মান্য
বাংলার ইলিশ দিতে হবে শর্তে রাজি হও
নইলে কি করতে পারিস পাল্টা বানে দেখাও?
এবার দৈত্য রাজা মঞ্চ থেকে নেমে চলে গেলেন। ভাটির রাজা ও সমর্থকরা নির্বাক। কি করা যায় প্রথমে বান কাটতে হবে তারপর প্রয়োগ করতে হবে। তাৎক্ষনিক সিদ্ধান্ত নয় সমর্থকদের উদ্দেশ্যে ভাটির রাজা বলতে শুরু করলেন
ভাটির দেশ স্বাধীন নয় কারো অধীন
যতই করুক বাহানা পানির গতি থামবে না
নিয়মনীতি মানবো পানি ফিরে আনবো
পারবে না কেউ করতে ক্ষতি বাসিন্দারা বীরের জাতি
ধৈর্য্য ধর ভাবতে দেও সমর্থকরা বাড়ি যাও।
এ কথা শুনে সমর্থকরা উত্তেজিত হয়। তারা স্লোগান দেয় একই সঙ্গে বলতে থাকে
চল চল ফারাক্কা চল কোদাল কাস্তে নাও সাথে
বাঁধ ভাঙ্গবো পানি আনবো ফিরবো না খালি হাতে
এই খবর ছড়িয়া পড়ার পর হাজার হাজার সমর্থক ফারাক্কা বাঁধ ভাঙ্গার জন্য প্রস্তুতি নেয়। কিন্তু রাজা তাদেরকে শান্ত করে কিছুদিন সময় নেয়। কুটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে পানি সমস্যা সমাধান করা হবে বলে আশ্বাস্ত করে। কিছু অগ্রগতির পর রাজা পরিবর্তন হয়। নতুন রাজা আসে। বিষয়টি বুঝতে বুঝতে মেয়াদ শেষ হয়। একের পর এক রাজা পরিবর্তনে চল্লিশ বছর কেটে যায়। এবার রাজা পুনরায় উদ্যোগ গ্রহণ করে সাগর চুক্তি, সীমানা চুক্তির সফলতা আসে। তিস্তা চুক্তি সফলতার পূর্ব মহুর্তে উজানে নতুন এক তান্ত্রিক উপস্থিত হয়ে বলতে থাকেন
তামম জির্নাবে তান্ত্রিক আমি আমার চাই শুধু পানি পানি
ঐ যে পূর্বে যে রাজা বান দিয়েছিল সে ছিল আমার নানি
বাংলা ইলিশ দাওনা কেন তর যে আমার সয়না
তোরষার পানি তিস্তায় দিব তিস্তা পানি সেতো না না না
এ শুনে ভাটির জনগন ক্ষিপ্ত হয়ে আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত গ্রহণ করে। এই লেখনির মাধ্যমে সরকারকে বিনীত ভাবে জানাচ্ছি দ্রুত গতিতে উদ্যোগ নাও পদ্মা, তিস্তায় প্রবাহ দাও।

(রিভারাইন পিপলস্ ব্রহ্মপুত্র ও তিস্তা)

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪