ধুনটে সমস্যা সংকটের অন্তরালে যমুনা পাড়ের জেলেদের জীবন

Dhunat-Pic-1

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : সেই শিশুকাল থেকে মাছ ধরা, জীবনের সবটুকু শেষ করেও ভাগ্যের কোনো বদল হয়নি। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে বয়সী জেলেরা তাই হিসাব মেলাতে পারেন না। জীবনের বাকি কটা দিন হয়তো এই কাজ করেই জীবনটা পার করে দেবেন। পরের প্রজন্ম মৎস্যজীবী হলেই যেন জেলে জীবনের পরম প্রশান্তি। বগুড়ার ধুনটে যমুনা পাড়ের জেলে জীবনের হিসেবটা এমনই। নানামুখী সংকটের ভেতর দিয়ে অতিক্রান্ত এই জীবনের হিসেব মেলানোটাই যেন কঠিন। জীবনভর মাছ ধরে কাটানো বেশকিছু মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে তাদের অভিব্যক্তি। প্রত্যেকের মুখেই যেন আক্ষেপের সুর। জীবনের ফেলে আসা সেই দিনগুলোর দিকে তাকিয়ে দেখেন অবশিষ্ট কিছুই নেই। না হয়েছে এক টুকরো সম্পদ, না পেরেছেন ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া করাতে, উপরন্তু দেনার দায় বেড়েছে অনেক গুণ। আলাপকালে জেলেরা তাই জীবনকে সপে দেন নিয়তির হাতে।

মাছ ধরে আর্থিক অবস্থা বদলাতে পেরেছেন, এমন জেলে খুঁজে পাওয়াটাই কষ্টকর। সুখের দিনের চেয়ে দুঃখের দিনটাই চোখের সামনে ভাসে। অনেকে দেনার দায় কাঁধে নিয়ে এ জীবিকাই ছেড়ে দিয়েছেন। চিকাশি জেলে পাড়ার বলয় চন্দ্র জানায়, যা রোজগার হয়, সেটাই খরচ হয়ে যায়। অবশিষ্ট কিছুই থাকে না। বেশি মাছ পড়লে একটু ভালো খাই। কম মাছ পড়লে সমস্যা বেশি হয়। নদীতে মাছ ধরে কোনমতে খেয়ে-পরে থাকা যায়। এর বেশি কিছুই আশা করা যায় না। বলরাম হাওলাদার জানায়, জেলেরা যা পায়, তা দিয়ে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে খেয়ে-পরে থাকাটাই কঠিন। যমুনা পাড়ের জেলে এলাহী বকস তার ক্ষুদ্র ব্যবসা ছিল। নদী ভাঙনে সমস্যা দেখা দেওয়ায় ব্যবসা চালিয়ে নেওয়া সম্ভব হয়নি। তাই চার বছর ধরে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করছে। কিন্তু এতেও অবস্থার কোনো বদল হয়নি তার। মালোপাড়ার আরেক জন দিগেন্দ্রনাথ হাওয়ালদার। প্রায় ৩৫ বছর ধরে মাছ ধরছেন। যেমন নিঃস্ব অবস্থা থেকে মাছধরা শুরু করেন, সেভাবেই আছেন এখনও। পরিবার-পরিজন নিয়ে তার জীবন এখন চরম সংকটের মুখে।

এই উপজেলায় জেলে পরিবারের সংখ্যা প্রায় ৮০০টি। এসব পরিবারের অধিকাংশ জেলের অবস্থা সংকটাপন্ন। মাছ ধরতে যেতে হলেই মহাজনদের কাছে হাত পাততে হয়। জাল-নৌকা কিনে কিংবা মেরামত করে নদীতে মাছ ধরতে যাওয়ার মতো সামর্থ্য আর থাকে না। এ কারণেই জেলেরা মহাজন-আড়তদারদের কাছে জিম্মি থাকে বছরের পর বছর। ফলে তাদের অবস্থার পরিবর্তন হয় না। একাধীক জেলের অভিযোগ, সরকারি সুবিধা জেলেদের কাছে যথাযথভাবে পৌঁছায় না। অন্যদিকে জেলেরা সংগঠিত নয়। এ কারণে প্রকৃত জেলেদের কোনো কল্যাণ হয় না। এক শ্রেণির অমৎস্যজীবীর প্রভাবে প্রকৃত জেলেরা নিষ্পেষিত। জেলেরা মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহের অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়। ধুনট উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা তহিদুল ইসলাম বলেন, জেলে পরিবারের জন্য সরকারি অনেক সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা আছে। সরকারিভাবে জেলেদের নিবন্ধন করা হয়েছে। এছাড়া দরিদ্র জেলে পরিবারকে সহজ শর্তে ঋণ সুবিধা দেয়া হয়।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪