**   চিলমারীতে বেড়ে চলেছে বাল্য বিবাহ ॥ ২৯জন জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার্থী বিয়ের কারণে অনুপস্থিত **   বিয়ে করলেন সেরেনা উইলিয়ামস **   গণতন্ত্র অব্যাহত রাখতে ভবিষ্যতেও সেনাবাহিনী অবদান রাখবে **   চিলমারীতে কন্যা শিশুর জন্মদিন উদযাপন **   দাঁড়িয়ে পানি পান করছেন? **   বিশ্বের সবচেয়ে দামি মডেল কেন্ডাল জেনার **   আদালতে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতা ব্যবহার করে এতিমখানার টাকা আত্মসাৎ করিনি **   ‘ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি নিয়োগ প্রদান ও শপথ পড়াতে পারবেন’ **   কুড়িগ্রামে ধর্মান্তরিত মুক্তিযোদ্ধা হোসেন আলী হত্যা মামলার আসামী রাজিব গান্ধীকে আদালতে হাজির **   উলিপুরে ত্রানের টিন বিতরণ

নিজ জিম্মায় মুক্তি আদালতে জবানবন্দি শেষে ফরহাদ মজহার বাসায়

17aa90a18be02d7c06426b8f92871b65-595b8a100ed0d
যুগের খবর ডেস্ক: যশোরের নওয়াাড়ায় একটি বাস থেকে বিশিষ্ট কলামিস্ট, কবি ও লেখক ফরহাদ মজহারকে উদ্ধারের পর জবানবন্দি গ্রহনের জন্য ঢাকার মহানগর হাকিমের আদালতে নেওয়া হয়।  মঙ্গলবার বিকালে তিনি জবানবন্দি দিয়ে ভাগ্নের সাথে নিজ বাসায় গেছেন। তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, ফরহাদ মজহারকে নিজ জিম্মায় ১০ হাজার টাকার বন্ডে সাক্ষর নিয়ে মুক্তি দেওয়া হয়। এরপর তাকে তার ভাগ্নের কাছে তুলে দেওয়া হয়। তিনি জানান, ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের হাকিম আহসান হাবীব খাস কামরায় নিয়ে বিকাল সোয়া তিনটা থেকে ১৬৪ ধারায় তার জবানবন্দী গ্রহণ করেন। জবানবন্দিতে কি বলেছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে সানাউল্লাহ মিয়া জানান, ‘আদালত বলেছেন, চাঁদার জন্য তাকে (ফরহাদ মজহার) অপহরণ করা হয়েছিলো। মামলার নথি থেকে পরবর্তী মূল তথ্য দেয়া যাবে।’

এর আগে ফরহাদ মজহারকে মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর আদাবর থানা থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবি অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে দুপুরে তাকে নেওয়া হয় চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে। ফরহাদ মজহারকে গত সোমবার রাতে যশোরের নোয়াপাড়া থেকে হানিফ পরিবহনের বাস থেকে উদ্ধারের পরে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। এরপর তাকে নিয়ে যাওয়া হয় রাজধানীর আদাবর থানায়। সেখানে তার সঙ্গে দেখা করেন তার পরিবারের সদস্যরা।

পুলিশ দুপুরে ফরহাদ মজহারকে আদালতে হাজির করার পর তাকে নিজের  জিম্মায় যাওয়ার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া, যিনি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষেও মামলা লড়েন।  ফরহাদ মজহারের স্ত্রী ফরিদা আখতার, মেয়ে শমতলী হক, ভাগ্নে মেজর ফেরদৌসসহ কয়েকজন পারিবারিক বন্ধু এ সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। শুনানিতে সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, ‘ফরহাদ মজহারের মামলার বিষয় আমরা কিছুই জানি না। জবানবন্দিতে কী বলেছেন তাও জানি না। আপনি কি দয়া করে আমাদের জানাবেন?’

উত্তরে বিচারক বলেন, ‘এটা ৩৮৫ এবং ৩৬৫ ধারার মামলা; অর্থাৎ অপহরণ ও চাঁদাবাজি সংক্রান্ত অপরাধ। ফরহাদ মজহার জবানবন্দিতে আমার কাছে কী বলেছেন, তা আপনাকে আমি বলতে পারি না। সে বিষয়ে পুলিশ ব্রিফ করবে।’

এরপর বিচারক আদালতে উপস্থিত ফরহাদ মজহারকে প্রশ্ন করেন, ‘আপনি কি নিজের জিম্মায় যেতে ইচ্ছুক?’ উত্তরে ফরহাদ মজহার বলেন, ‘জি, আমি ইচ্ছুক।’ পাঁচ মিনিটের শুনানি শেষে মুচলেকায় সই করে পরিবারের সঙ্গে মিলিত হন ডানপন্থি অধিকার কর্মী হিসেবে পরিচিত এই কবি, প্রাবন্ধিক, যিনি ঢাকার শ্যামলী রিং রোডের বাসা থেকে সোমবার ভোরে বের হয়ে অপহৃত হন বলে তার স্ত্রীর করা মামলার অভিযোগ।

এদিকে যশোরে একটি বাস থেকে নাটকীয়ভাবে ‘উদ্ধারের’ পর ফরহাদ মজহারকে ঢাকার আদাবর থানায় আনা হয় সোমবার রাতে। আদাবর থানায় এএসআই সাখাওয়াত হোসেন জানান, মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে তাদের একটি দল ফরহাদ মজহারকে নিয়ে থানায়  পৌঁছায়। ফরহাদ মজহারের স্ত্রী ফরিদা আখতার, মেয়ে সমতলী হকসহ পরিবারের সদস্যরাও সেখানে রয়েছেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী তার বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে এএসআই সাখাওয়াত জানিয়েছেন। সোমবার সকালে ফরহাদ মজহারের পরিবার অপহরণের অভিযোগ করার পর মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে সন্ধ্যায় খুলনা অঞ্চলে অভিযান শুরু করেছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ওই অভিযানের মধ্যে রাত সাড়ে ১১টার দিকে যশোরের নওয়াপাড়ায় ঢাকাগামী একটি বাসে তাকে পাওয়ার কথা জানান র‌্যাব-৬ এর অধিনায়ক খন্দকার রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, নওয়াপাড়ায় পাওয়ার পর ফরহাদ মজহারকে প্রথম অভয়নগর থানায় নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে খুলনায় নিয়ে গিয়ে রাত দেড়টার দিকে ঢাকার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরিবার অপহরণের কথা বললেও পুলিশের খুলনা রেঞ্জের উপ মহাপরিদর্শক দিদার আহম্মেদ রাতে ফুলতলা থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ফরহাদ মজহার অপহরণের ‘নাটক’ সাজিয়েছিলেন বলে তাদের সন্দেহ। ডিআইজি দিদার বলেন ‘একজন সুস্থ মানুষ যেভাবে জার্নি করে, সেভাবেই তিনি ছিলেন। তার সঙ্গে একটি ব্যাগ ছিল, গেঞ্জি ছিল। কিছু টাকাও ছিল। এমনকি মোবাইল চার্জার নিতেও ভোলেননি তিনি। এতে করে অপহরণের বিষয়টি প্রমাণ হয় না। মনে হয় না এটা অপহরণ।’ উদ্ধারের তিন ঘণ্টা আগে ফরহাদ মজহারকে খুলনায় নিজের রেস্তোরাঁয় দেখার দাবি করেছিলেন ‘নিউ গ্রীল হাউস’র মালিক আব্দুল মান্নান। খুলনার নিউ মার্কেটের সামনে এই রেস্তোরাঁটি। মান্নানের কাছে খবর পাওয়ার পর র‌্যাব জোর অনুসন্ধান শুরুর কথা জানায়। র‌্যাব কর্মকর্তা রফিকুল বলেন, ‘ফরহাদ মজহার খুলনার শিববাড়ী মোড় থেকে রাত সোয়া ৯টায় হানিফ পরিবহনের একটি বাসে ঢাকা রওনা হয়েছিলেন।’ শাহরিয়ার পলক নামে একজন নিজেও ওই বাসে ছিলেন দাবি করে তার ফেইসবুক পাতায় লিখেছেন, ‘খুলনা থেকে আসছি হানিফের বাসে করে! নোয়াপাড়ায় হঠাৎ করে গাড়ি দাঁড় করিয়ে রাখা হল! সুপারভাইজার কোনো কথার উত্তর দিলো না। প্রায় ৪০ মিনিট পর ৩টি র‌্যাবের গাড়ি এসে তল্লাশি করলো, আর বাসের পেছনের সিট থেকে উদ্ধার হলো – নিখোঁজ কবি ফরহাদ মজহার।’

ফরহাদ মজহার যে টিকেটে ওই বাসে উঠেছিলেন সেখানে যাত্রীর নামের জায়গায় ‘গফুর’ লেখা ছিল বলে সংবাদমাধ্যমের খবর। রাতে ফরহাদ মজাহার উদ্ধার পাওয়ার পর তার স্ত্রী ফরিদা আখতার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, মানবাধিকারকর্মী, সরকার ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়সহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, “আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সচেষ্ট হলে সবকিছুই সম্ভব।’

ভোর থেকে নিখোঁজ : সোমবার রিং রোডের ভোর ৫টায় বাসা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর থেকে ফরহাদ মজহার নিখোঁজ বলে তার স্বজনরা আদাবর থানায় গিয়ে অভিযোগ জানালে পুলিশ অনুসন্ধানে নামে। ফরিদা আখতার সাংবাদিকদের বলেন, ফরহাদ মজহার ভোরে লেখালেখি করেন। সাধারণত বের হন না। এদিন ভোরেও কম্পিউটারের সামনে স্বামীকে দেখেছিলেন তিনি। কিছুক্ষণ পর দেখতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজির মধ্যে একটি ফোন পান। তাতে ফরহাদ মজহার বলেন, তাকে তুলে নিয়ে যাচ্ছে, মেরে ফেলবে। এরপর উদ্বিগ্ন হয়ে বিষয়টি পুলিশে জানায় পরিবার। তখন পুলিশ কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা রিং রোডের হক গার্ডেনের চার তলায় ফরহাদ মজহারের বাসায় যায়। আদাবর থানার এসআই মহসিন আলী বলেন, ‘ফরহাদ মজহার সকাল ৫টা ৫ মিনিটে বাসা থেকে বের হয়েছিলেন বলে সিসিটিভি ভিডিও দেখে তারা নিশ্চিত হয়েছেন।’

এদিকে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনও ফরহাদ মজহারকে দ্রুত উদ্ধারে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানায়। কবি-প্রাবন্ধিক ফরহাদ মজহার ২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে শাহবাগে গড়ে ওঠা গণজাগরণ আন্দোলনের সমালোচনামূলক বিভিন্ন বক্তব্যের জন্য আলোচিত। শাহবাগের ওই আন্দোলনের বিরোধিতাকারী হেফাজতে ইসলামের পক্ষে বিভিন্ন সভা সমাবেশে বক্তব্য দিতেও দেখা যায় তাকে। জাসদের প্রতিষ্ঠাতা তাত্ত্বিক সিরাজুল আলম খান দাদাভাইয়ের মামাত ভাই ফরহাদ মজহার নিজেকে মার্কসিস্ট হিসেবে পরিচয় দেন। তবে হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে সম্পৃক্ততা নিয়ে বাম দলগুলোর সমালোচনা রয়েছে তার বিরুদ্ধে। বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের হরতালের মধ্যে সংবাদকর্মীদের ওপর হামলার প্রেক্ষাপট হিসেবে একুশে টেলিভিশনের ‘টকশো’তে বিভিন্ন গণমাধ্যমকে ‘সন্ত্রাসী’ আখ্যায়াতি করে গণমাধ্যমের ওপর হামলাকে ‘সঠিক’ বলে মন্তব্য করেছিলেন ৭০ বছর বয়সী ফরহাদ মজহার। ওই সময় বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে এক সভায় আরও কঠোর আন্দোলনে যাওয়ারও আহ্বান জানিয়েছিলেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফার্মেসিতে পড়ার পর যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে অর্থনীতিতে ডিগ্রি নেন ফরহাদ মজহার। দেশে ফিরে তিনি উবিনীগ নামে একটি এনজিও গড়ে নয়াকৃষি আন্দোলন শুরু করেন। চিন্তা নামে একটি পত্রিকার সম্পাদক ফরহাদ মজহার সব সময় লুঙ্গি পরে থাকেন, যা নিয়েও রয়েছে আলোচনা।

পুলিশকে যা বলেছেন ফরহাদ মজহার : ফরহাদ মজহার পুলিশকে জানিয়েছেন, সকালে ওষুধ কিনতে বের হলে কে বা কারা তাকে চোখ বেঁধে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। ডিবির যুগ্ম কমিশনার আব্দুল বাতেন জানিয়েছেন, কারা চোখ বেধে নিয়ে গেছে তা তদন্ত করবে ডিবি। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে উনি (ফরহাদ মজহার) বলেছেন, সকালে তিনি ওষুধ কিনতে নিচে নেমেছিলেন। তখন তাকে কে বা কারা জোর করে মাইক্রোতে তুলে চোখ বেঁধে নিয়ে যায়।’ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। এ বিষয়ে পরবর্তী প্রক্রিয়া কী হবে- সাংবাদিকদের এমন এক প্রশ্নের জবাবে আব্দুল বাতেন বলেন, ‘আদালতে তিনি ১৬৪ ধারায়  যে জবানবন্দী দেবেন, সেই জবানবন্দির ওপর ভিত্তি করেই বিষয়টি তদন্ত করা হবে।’

আব্দুল বাতেন বলেন, ‘ফরহাদ মজহারের স্ত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা জানতে পারি তার কাছে (ফরহাদ মজহারের স্ত্রী) টাকা দাবি করা হয়। পরে স্ত্রীর সঙ্গে কথাও বলেন তিনি (ফরহাদ মজহার)। যেহেতু টাকা দাবি করা হয়েছে তাই অভিযোগের প্রেক্ষিতে (সোমবার) রাত সাড়ে ১১টার দিকে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। আমরা তাকে জিজ্ঞাসা করে জানার চেষ্টা করছি, কারা তাকে নিয়ে গিয়েছিল?’

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ফরহাদ মজহার কী বলেছেন- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আব্দুল বাতেন বলেন, ‘উনিও বলেছেন, সকালে উনাকে মাক্রোবাসে করে নিয়ে যাওয়া হয়। যেহেতু উনার ফোন দিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে নিজেই কথা বলেছেন তাই এ বিষয়গুলো আমরা তদন্ত করছি। আমরা ভিকটিমকে জিজ্ঞাসাবাদ করে প্রাথমিকভাবে যা পেয়েছি সেটাই আপনাদের (সাংবাদিকদের) জানালাম। সব তথ্য প্রমাণ হাতে পেলে বিস্তারিত জানানো হবে। ’

উল্লেখ্য, সোমবার ভোর ৫টা ২০ মিনিটে রাজধানীর শ্যামলী রিং রোডের ‘হক ভবন’ থেকে স্বাভাবিক পোশাকে, স্বাভাবিকভাবে হেঁটে বের হয়েছিলেন ফরহাদ মজহার। কিছুক্ষণ পরে তার স্ত্রী ফরিদা আখতারের মোবাইল ফোনে ফরহাদ মজহার নিজেই জানিয়েছিলেন, কেউ তাকে তুলে নিয়ে যাচ্ছে। সেসময় তাকে মেরে ফেলা হতে পারে বলেও আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন তিনি। ফরহাদ মজহার নিয়মিত যে নম্বর ব্যবহার করেন তার বদলে মাঝেমধ্যে ব্যবহার করেন এমন নম্বর থেকে তার স্ত্রীর ফোনে ফোন আসে। প্রয়োজন হতে পারে জানিয়ে ফোনে ফরহাদ মজহার নিজেই ৩০ থেকে ৩৫ লাখ টাকা প্রস্তুত রাখতে বলেছিলেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪