সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি পানিবন্দী কয়েক লাখ মানুষ

1499005141

সিলেট প্রতিনিধি: সিলেটে বৃষ্টি ও অব্যাহত পাহাড়ি ঢলের কারণে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। সিলেটে নদনদীগুলোর পানি বেড়েছে। এতে সিলেটে কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। নতুন করে তলিয়ে গেছে আরো কয়েকটি এলাকা। এদিকে দক্ষিণ সুরমার ১৪টি গ্রাম বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। এদিকে বালাগঞ্জে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ৮০ ভাগ লোকই পানিবন্দী অবস্থায় জীবনযাপন করছে। কুশিয়ারা ডাইক একাধিক স্থানে ভেঙে গিয়ে পানি প্রবেশ করছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম জানান, কুশিয়ারা নদীর পানি আমলসিদ পয়েন্টে বিপদসীমার ৯৬ সেন্টিমিটার ও ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে বিপদসীমার ১৪১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছে। সুরমার পানিও বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিনি জানান, নদীর পানি তীর উপচে প্রবেশ করায় প্রায় এক সপ্তাহ ধরে ছয় উপজেলার সুরমা ও কুশিয়ারা অববাহিকায় নদীর তীরের দুই শতাধিক গ্রামের নিম্নাঞ্চল পানির নিচে আছে। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে দক্ষিণ সুরমা, বালাগঞ্জ ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি এলাকা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যমতে, উজানে ভারতের মেঘালয় পাহাড়ে টানা বর্ষণের কারণে সিলেটের কুশিয়ারা ও সুরমা নদীর পানি বাড়তে থাকে। বর্তমানে দু’টি নদীর সবকটি পয়েন্টে বিপদসীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এর মধ্যে কুশিয়ারা নদীর পানি ঢুকে জেলার দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, বালাগঞ্জ, ওসমানীনগর, গোলাপগঞ্জ ও জকিগঞ্জ উপজেলায় বন্যা দেখা দেয়। উজানে টানা বর্ষণ হওয়ায় বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতি হয়েছে।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, বন্যার কারণে জেলার ১৭৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে ১৬১টি প্রাথমিক ও ১৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়।
সিলেট জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার জানান, কুশিয়ারা অববাহিকায় ফেঞ্চুগঞ্জ, বালাগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, ওসমানীনগর উপজেলার বন্যার পানি কিছুটা বেড়েছে। গোয়াইনঘাট উপজেলায় অপরিবর্তিত থাকলেও নতুন করে প্লাবিত হয়েছে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার নিম্নাঞ্চল। বাড়িঘর ডুবে যাওয়ায় অনেকে আশ্রয় কেন্দ্রে উঠছেন। জেলায় নয়টি আশ্রয় কেন্দ্রে ৮৯টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। পানিবন্দি জনসাধারণ যাতে সরকারি সাহায্য থেকে বঞ্চিত না হয় সেদিকে সবাই সজাগ থাকতে হবে। সবাইকে নিজ নিজ দায়িত্ব থেকে পানি বন্দি মানুষের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ত্রাণের কোন অভাব হবে না। ত্রাণের জন্য কোন লোক যেন মারা না যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। দুর্যোগের সময় নিজের মন থেকে অসহাদের পক্ষে কাজ করলে আনন্দ লাভ করা যায়।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪