সেই এসআই ফারুক আবারও ক্লোজড

unnamed58.thumbnail-450x237

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: লোকে বলে ‘কয়লা ধুলে ময়লা যায় না’ কথাটি আবারও প্রমান করলেন রাজিবপুর থানার সেই বিতর্কিত এসআই ফারুক হোসেন। ২০১৫ সালের মাঝামাঝিতে তিনি ছিলেন কুড়িগ্রামের রৌমারী থানায়। মাত্র ৭ মাসেই তার বিরুদ্ধে জমা পড়ে অন্তত শতাধিক অভিযোগ। পরে পুলিশ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ তাকে ঢুষমারা থানায় শাস্তিমূলক বদলি করেন। সেখানেও একই ঘটনা ঘটালে কুড়িগ্রাম থেকে লালমনিরহাটে ক্লোজড করা হয় তাকে। কিছুদিন লালমনিরহাট সদরে থাকার পর তাকে পাঠানো হয় পাটগ্রাম থানায়। কিন্তু তার স্বভাবের পরিবর্তন হয়নি। ফলে আবারও কুড়িগ্রামের কঁচাকাটা এরপর অল্পদিনেই রাজিবপুর থানায় তাকে শাস্তিমূলক বদলি করা হয়। মাস ছ’য়েক যেতে না যেতেই একই ঘটনার অবতারণা করেন তিনি। এবার তাকে ক্লোজড করে গত ৪ জুলাই কুড়িগ্রাম পুলিশ লাইনে নেয়া হয়েছে তাকে। এমনভাবেই গত দু’বছরে দু’জেলার ৭টি থানায় শাস্তিমূলক বদলি করা হয় তাকে।
বিনা অপরাধে গ্রেপ্তার, টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া, টাকা না পেলেই জুয়াড়ি, মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকসেবী বানানো অপরাধী কিংবা নিরাপরাধীদের কাছ থেকে কৌশলে অর্থ আদায়, ধোকা দেয়া, হুমকি দেয়া এমন অসংখ্য অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে।
রৌমারী থানায় আসার আগে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ি থানায় থাকাবস্থায় তার বিরুদ্ধে ফেন্সিডিল ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ ওঠে। বিভিন্ন অভিযানে আটককৃত ফেন্সিডিল কুড়িগ্রাম সদরের বিভিন্ন ফেনন্সিডিল ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রি করতেন তিনি। নানা অপকর্মের কারণে জনতার হাতে ধোলাইয়ের ঘটনাও ঘটে। মাদক ব্যবসায়িদের কাছ থেকে উদ্ধার করা গাঁজা গোপনে বিক্রি করতেন ওই ফারুক হোসেন। এছাড়াও ২০১৫ সালের ২৫ জুলাই ফুলবাড়ীর গজেরকুটি গ্রামের শাহ আলমকে বিপুল পরিমাণ মাদকসহ আটক করে এএসআই ফারুক হোসেন। পরে আড়াই লাখ টাকায় রফা-দফা হয়। এ সংবাদ ২৬ জুলাই কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হলে তাকে রৌমারীতে শাস্তিমূলক বদলি করা হয়। এরপর তিনি রৌমারী থানার ওসি সোহরাব হোসেন ও কতিপয় অসাধু পুলিশের সহায়তায় নতুন করে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণের নামে গ্রেফতার বাণিজ্য শুরু করেন। রৌমারীতে যোগদান করেই এলাকায় ঘোষণা দেন আইজিপির বিশেষ ক্ষমতা নিয়ে রৌমারীকে মাদকমুক্ত করতে এসেছেন তিনি। অথচ পরবর্তিতে বেশ কয়েকটি অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটালে পত্রিকান্তরে তা প্রকাশিত হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে এক সাংবাদিকের গায়ে মদ ঢেলে আটক ও বাজারে নিয়ে হাতকড়া পড়াবস্থায় নির্যাতন করেন।
সম্প্রতি রাজিবপুরে এক মহিলার বাড়িতে ঢুকে শ্লীলতা হানির অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। সর্বশেষ গত ২ জুলাই তারা মিয়া, শফিউল ইসলাম ও সাইফুল ইসলাম নামের ৩জন মাদক ব্যবসায়ীকে ধরে ৩০ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে রাজিবপুরের কোদালকাটি বাজারে ওই পুলিশের বিরুদ্ধে সাধারণ জনতা বিক্ষোভ মিছিল করলে বিষয়টি জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ফলে রাজিবপুর থেকেও তাকে শাস্তিমূলক বদলি করা হয়। সাধারণ মানুষ বলছেন, বারবার তার বিরুদ্ধে অপকর্মের অভিযোগ উঠলে শুধুমাত্র শাস্তিমূলক বদলি দিয়েই দায়ভার এড়িয়ে যান কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তার বিরুদ্ধে বড় ধরণের কোন ব্যবস্থা কেন নেয়া হচ্ছে না?

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪