**   পবিত্র আশুরা ১ অক্টোবর **   রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘে ৫ দফা প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর **   চিলমারীতে প্রতিবন্ধি শিক্ষার্থীদের মাঝে ডিভাইজ বিতরণ **   রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে জাতিসংঘে যা বলল মিয়ানমার **   রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে উলিপুরে আলেম-ওলামাদের মানববন্ধন **   এবার যে কারণে বিতর্কে সানি লিওন **   ধর্ষক রাম রহিমের পালিত কন্যা হানিপ্রীত গ্রেফতার **   ভূরুঙ্গামারীতে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করায় শিক্ষক বরখাস্ত **   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ

চিলমারীর দুই মেধাবী ছাত্র এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে দারিদ্রতাকে জয় করেছে

Picture 27.07

এস, এম নুআস: “হে দারিদ্র তুমি মোরে করেছো মহান”- কবি নজরুলের এই পংক্তিমালা শুধু যেন ওদের দু’জনের জন্যই প্রযোজ্য। শত অভাব আর কষ্টের মাঝে থেকে ওরা দু’জন দারিদ্রতাকে জয় করে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পাওয়ার মধ্যদিয়ে প্রমাণ করেছে মনের প্রবল ইচ্ছা আর প্রচেষ্ঠা থাকলে অসম্ভবকে সম্ভব করা যায়। কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার ৪টি  কলেজের  ২০১৭ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় মোট ৬‘শ ৯৭ জন পরীক্ষার্থীর মাঝে ওরা দু’জন শুধুমাত্র জিপিএ-৫ পেয়ে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। এই কৃতিত্ব্রে দাবীদার আহাম্মদ ও  আশরাফুল ইসলাম।
অভাবী সংসারে আশরাফুল যেন আশার আলো
২৩ জুলাই। ২০১৭ সালের এইসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট প্রকাশের দিন। যখন সারা দেশের সকল পরীক্ষার্থীরা  ফলাফল জানার জন্য উদগ্রীব হয়ে অপেক্ষা করছে, ঠিক সে দিন- সে সময় মেধাবী ছাত্র আশরাফুল  ইসলাম মা-বাবার মুখে দু’মুঠো ভাত তুলে দেবার জন্য অন্যের জমিতে ধানের চারা রোপনের কৃষান খাটছিলো। তার কলেজের শিক্ষকরা তাকে অন্যের মোবাইলের সাহায্য নিয়ে জানালো আশরাফুল  জিপিএ -৫ পেয়ে এইচএসসি পাশ করেছে। তারপারও আশরাফুল কলেজে আসতে পারেনি সেদিন, কারণ দিন কামলা শেষ না করলে শ্রমের মুল্য জমির মালিক তাকে দেবে না। পরের দিন কলেজে এসে তাকে বিস্তারিত জানতে হয়েছে। দারিদ্রতার মাঝেই আশরাফুলের জন্ম। উপজেলার রাধাবল্লভ গ্রামের মোঃ নমির মিয়া ও গৃহিণী মোছাঃ রেজিনা বেগমের তৃতীয় ছেলে আশরাফুল ইসলাম। বাবার সামান্য ভিটে মাটি ছাড়া এক খন্ড জমি নেই। আশরাফুলরা ৪ ভাই বোন। আশরাফুলের অন্য দু’ভাই এর একজন কৃষান খেটে সংসার চালায়, অন্য জন রাজ মিস্ত্রীর কাজ করে। তারা দু’জনই বিয়ে করে আলাদা সংসার পেতেছে। বৃদ্ধ বাবা বয়সের ভারে এখন আর তেমন কাজ করতে পারে না। বোন একজন। তার বিয়ে হয়ে গেছে। আশরাফুলকেই পড়া লেখার ফাঁকে ফাঁকে অন্যের জমিতে কৃষান খেটে সংসার চালাতে হয়। ২০১৭ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারীতে অবস্থিত চিলমারী টেকনিক্যাল ও বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ থেকে উদ্যোক্তা উন্নয়ন বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে মোঃ আশরাফুল ইসলাম। সে জানিয়েছে অভাবের কারণে সে ২০১৫ সালের এসএসসি পরীক্ষায় ভাল ফলাফল করতে পারেনি। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ৩.৫৬ পয়েন্ট পেয়ে এসএসসি পাশ করেছিল। এইচএসি পরীক্ষার ফলাফল ভাল করার জন্য সে অনেক পরিশ্রম করেছে। আশরাফুলের ইচ্ছা বিসিএস পাশ করে সে একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা হবে। ইচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া লেখা করার। কিন্তু কিভাবে সে তার স্বপ্ন পুরণ করবে ভেবে পাচ্ছে না। টাকার অভাবে সে কোন কোচিং সেন্টারে ভর্তি হতে পারেনি। বই কিনে নিজেই বাড়ীতে লেখাপড়া চালিয়ে ভর্তির প্রস্তুতি নিচ্ছে। এই ফলাফলের জন্য আশরাফুল তার শিক্ষকদের সহযোগিতার কথা সারা জীবন মনে রাখবে। আশরাফুল সকলের দোয়া প্রার্থী।

আহাম্মদের প্রবল ইচ্ছা শক্তির কাছে হার মানলো দারিদ্রতা
আহাম্মদ একটি কষ্টের নাম- একটি সংগ্রামী নাম। ছোট থেকেই যাকে দারিদ্রতার সাথে যুদ্ধ করে টিকে থাকতে হচ্ছে। বাবা নুর ইসলাম সামান্য দিন মজুর। জমা-জমি নেই। তাই অন্যের জমিতে কৃষান খেটে যা রোজগার করে তাই দিয়ে তাদের সংসার চলে। বাবার আয় অর্জন না হলে কোন কোন সময় অর্ধাহারে অনাহারে তাকে দিন কাটাতে হয়। উপজেলার পাত্রখাতা গ্রামে আহাম্মদের নিবাস। ৫ ভাই বোনের মধ্যে আহাম্মদ বাবা-মার তৃতীয় সন্তান। অভাবের সংসারে অন্য  ভাইবোনদের পড়া লেখা তেমন একটা হয়ে উঠেনি। বোনদের বিয়ে হয়ে গেছে। আহাম্মদ বড় হয়ে মানুষের মতো মানুষ হতে চায়। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে তার স্কুল জীবন শুরু হয়েছিল। কিন্তু অভাব তাকে বার বার পিছন থেকে টেনে ধরেছে। আহাম্মদ যখন উপজেলার শরীফেরহাট এম,ইউ উচ্চ বিদ্যালয় এর  নবম শ্রেনীর ছাত্র তখন অর্থাভাবে তার লেখা পড়া প্রায় বন্ধ হতে চলেছিল। এ সময় চিলমারীস্থ একটি শিক্ষা ও কল্যাণমূলক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘মেধাবী কল্যাণ সংস্থা’ তার পাশে এসে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। সংগঠনটির পক্ষ থেকে তাকে মাসে ৩০০ করে টাকা দেয়া হতো এবং সেই সাথে বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণ দিয়ে সাহায্য করা হতো। এই সংগঠনের সভাপতি মোঃ নুরুল আলমের প্রতি আহাম্মদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। আহাম্মদ জানিয়েছে নুরুল আলম তাকে  উৎসাহ, পরামর্শ ও সাহস যুগিয়েছে এবং এখনও তার পাশে আছে। ২০১৫ সালে আহাম্মদ বিজ্ঞান বিভাগ থেকে  ৪.৮৮ পেয়ে এসএসসি পাশ করে। জিপিএ-৫ না পাওয়ার একটা কষ্ট তাকে আরও জেদি করে তোলে। কিন্তু এইচএসসি পড়ার সময় নুরুল আলমের সংগঠনটি তাদের আর্থিক ও অন্যান্য সীমাবদ্ধতার কারণে তাকে আর সাপোর্ট দিতে পারেনি। বাধ্য হয়ে আহাম্মদকে টিউশনি করতে হয়েছে। বিজ্ঞান বিভাগে পড়া লেখার খরচ সংগ্রহ করা তার পক্ষে অসম্ভব হয়ে পরলে আহাম্মদ চিলমারী ডিগ্রী কলেজে ইন্টারমেডিয়েটে মানবিক শাখায় ভর্তি হয়। এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে আহাম্মদ তার অতৃপ্ত ইচ্ছা পুরণ করেছে। সে বর্তমানে ঢাকার গাজীপুরে তার এক দূর সর্ম্পকের চাচার বাসায় আশ্রয় নিয়ে তার নিজ গ্রামের সাজু মিঞা নামের এক বড় ভাইয়ের সহযোগিতায় একটি কোচিং সেন্টারে ভর্তি হলেও দিন মজুর চাচার বাসায় তার পক্ষে থাকা সম্ভব হচ্ছে না। অর্থনৈতিক সমস্যা তো আছেই। তাই সে ঠিক করেছে গ্রামে ফিরে এসে নিজ বাড়ীতেই ভর্তির প্রস্তুতি নেবে। আহাম্মদ ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয় কিংবা জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চায়। আহাম্মদের ইচ্ছা বড় হয়ে সে এ্যাডমিনে একজন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা হবে। সে তার উন্নত ভবিষ্যৎ এর জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থী।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪