বগুড়ায় ধর্ষিতা ও তার মাকে ন্যাড়া করে নির্যাতন কাউন্সিলর রুমকিসহ ৫ জন রিমান্ডে

1501513191

যুগের খবর ডেস্ক: বগুড়ায় ধর্ষিতা কিশোরী ও তার মার চুল কেটে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনায় জড়িত তুফান সরকারের শ্বশুর-শাশুড়ি, স্ত্রী ও বড় শালিকাসহ সাত জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে পৌর কাউন্সিলর রুমকিসহ পাঁচ জনকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।
রবিবার রাতে ও গতকাল সোমবার বিকালে তাদের গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে তুফান সরকারের স্ত্রী আশা খাতুন, শাশুড়ি রুমী বেগম, শ্বশুর জাহিদুল ইসলাম, বড় শালিকা সংরক্ষিত পৌর কাউন্সিলর মারজিয়া হাসান রুমকি, মাথা ন্যাড়া করার কাজে নিয়োজিত নাপিত জীবন, গাড়ি চালক জিতু এবং তুফান সরকারের দেহরক্ষী হিসেবে পরিচিত মুন্না। এদের মধ্যে  নাপিত জীবন এবং শ^শুর জাহিদুল ছাড়া অন্য পাঁচজনকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। সোমবার বিকালে বগুড়ার পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান এক প্রেস ব্রিফিংয়ে উপরোক্ত তথ্য জানান। এদিকে গ্রেফতারকৃতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে এখনও সোচ্চার রয়েছে বিভিন্ন সংগঠন। সোমবার শহরে মানববন্ধন করেছে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনগুলো। পাশাপাশি জেলা যুবলীগ এক বিবৃতিতে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছে। এ ঘটনায় জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে  মঙ্গলবার বেলা ১১টায় প্রতিবাদ সভা আহ্বান করা হয়েছে।
গোয়েন্দা পুলিশ সূত্র জানায়, রবিবার রাত ৮টায় বগুড়ার গোয়েন্দা  পুলিশের একটি দল পাবনা মেডিকেল কলেজ এলাকার একটি বাড়ি থেকে পৌর কাউন্সিলর রুমকি ও তার মা রুমী বেগমকে গ্রেফতার করে। তবে ওই বাড়িতেই আত্মগোপন করে থাকা তুফান সরকারের স্ত্রী আশা খাতুন, ড্রাইভার জিতু ও দেহরক্ষী মুন্না পুলিশি অভিযানের আগেই পালিয়ে গেছে। পাবনা শহরের ওই বাড়িটি তুফান সরকারের শাশুড়ি রুমি বেগমের  আত্মীয়ের বাড়ি। এদিকে গোয়েন্দা পুলিশের আরেকটি দল উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে জানতে পারে তুফানের স্ত্রী আশা খাতুন ব্যক্তিগত প্রাইভেট কারযোগে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছে। এরপর পুলিশের আরেকটি দল গভীর রাতে ঢাকার হেমায়েতপুর এলাকা থেকে আশা খাতুন, গাড়ি চালক জিতু ও দেহরক্ষী মুন্নাকে গ্রেফতার করে। সোমবার বিকালে বগুড়া শহর থেকে গ্রেফতার করা হয় তুফানের শ্বশুর জাহিদুল ও নাপিত জীবনকে।
গ্রেফতারকৃতদের বগুড়ায় নেওয়ার পর রুমকি পুলিশকে জানায়,  ধর্ষিতা কিশোরী ও তার মায়ের মাথার চুল ন্যাড়া করে দেওয়ার পর তারা বাড়িতেই ছিল। এর আগে গ্রেফতার হওয়া আতিকের মাধ্যমে তারা পুলিশি অভিযানের খবর জানতে পারে। পুলিশ যখন অভিযান শুরু করে তখনও তারা বাড়িতেই ছিল। পরে আশা নিজেদের প্রাইভেট গাড়ি নিয়ে এসে তাদের বের করে নিয়ে যায়। শুক্রবার রাতেই তারা পাবনা শহরে পালিয়ে যায়।
এদিকে পরে গ্রেফতারকৃত সাত জনের মধ্যে নাপিত জীবন ও তুফানের শ্বশুর ছাড়া অন্য পাঁচ জনকে সোমবার বিকালে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে বিচারক পৌর কাউন্সিলর রুমকিকে চার দিন ও অপর চার জনকে তিনদিনের করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গ্রেফতার হওয়া তুফানসহ চার জনের মধ্যে তিন জনকে  তিন দিনের রিমান্ড নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে রিমান্ড শেষ না হওয়া পর্যন্ত পুলিশের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোনো তথ্য দেওয়া হয়নি। পুলিশের বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, তুফান ওই কিশোরীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। তবে মা-মেয়েকে নির্যাতন করে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছে। তুফানের স্ত্রী-শাশুড়ি ও বড় শালিকা নিজেদের উদ্যোগে এ কাজ করেছে বলে রিমান্ডে দাবি করেছে।
অপরদিকে সোমবার শহরের সাতমাথায় বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন গ্রেফতারকৃতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে মানববন্ধন করেছে। এছাড়াও জেলা বিএনপির একটি প্রতিনিধিদল হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসাধীন মা-মেয়ের খোঁজখবর নিয়েছেন। জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলের সঙ্গে উপস্থিতি ছিলেন জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক পরিমল চন্দ্র দাস, অ্যাড. নাজমুল হুদা পপন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শাহ মেহেদী হাসান হিমু, শহর যুবদলের সভাপতি মাসুদ রানা, শ্রমিকদল নেতা লিটন শেখ বাঘা প্রমুখ।
জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, বিএনপি সব সময় নির্যাতিতদের পাশে আছে এবং থাকবে। তিনি বলেন, বর্বরোচিত এই নির্যাতন সভ্য সমাজে মেনে নেওয়া যায় না। তিনি সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে এ ঘটনার প্রতিবাদ করার আহ্বান জানান।
গত শুক্রবার শহরের চকসূত্রাপুর এলাকায় ধর্ষণের বিচারের নামে পৌর কাউন্সিলর রুমকি ধর্ষিতা ও তার  মাকে কাউন্সিলরের অফিসে নিয়ে যায়। এরপর সেখানে তাদের মারপিট করে নাপিত ডেকে এনে মাথা ন্যাড়া করে দেয়। এ ঘটনায় শনিবার ১০ জনের নামে মামলা হলে পুলিশ সোমবার পর্যন্ত এজাহারভুক্ত নয় জন এবং এজাহারের বাইরে আরো দুজনকে গ্রেফতার করে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪