**   রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে জাতিসংঘে যা বলল মিয়ানমার **   রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে উলিপুরে আলেম-ওলামাদের মানববন্ধন **   এবার যে কারণে বিতর্কে সানি লিওন **   ধর্ষক রাম রহিমের পালিত কন্যা হানিপ্রীত গ্রেফতার **   ভূরুঙ্গামারীতে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করায় শিক্ষক বরখাস্ত **   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান

শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

bong

॥ এস, এম নুরুল আমিন সরকার ॥
বাঙালি, বাংলাদেশ আর মুক্তিযুদ্ধের সাথে অবিচ্ছেদ্যভাবে যার নামটি জড়িত তিনি হচ্ছেন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। মহাপুরুষ প্রতিদিন জন্ম নেননা। তারা আসেন যুগে যুগে। একজন মহামানবের জন্য একটি জাতিকে অপেক্ষা করতে হয় যুগ যুগ। বঙ্গবন্ধুর জন্য বাঙালিকে অপেক্ষা করতে হয়েছিল দু’শ বছরেরও বেশি। পরাধীন ঘুমন্ত জাতিকে তিনিই প্রথম স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখান। ‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম’, তার এই বজ্র নির্ঘোষ কন্ঠ সেদিন বাঙালি জাতিকে একটি বিন্দুতে এনে মিলিত করে। স্বাধীনতার অদম্য ইচ্ছায় পতঙ্গের মত জনতা সেদিন ঝাঁপিয়ে পড়েছিল বঙ্গবন্ধুর এই আহ্বানে।
ফলশ্র“তিতে ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ। যুদ্ধে বিজয়ী বাঙালি অর্জন করে একটি স্বাধীন ভূ-খন্ড এবং গর্বিত জাতীয় পতাকা।
আসলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয়, একটি ইতিহাস। যে মহানায়কের জন্ম না হলে পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামের এ স্বাধীন সার্বভৌম  দেশের অভ্যূদ্বয় কখনই হত না এবং বাঙালিরা একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে বিশ্ব সভ্যতায় মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারতো না।
আর যে স্বাধীনতা এবং লাল সবুজের গর্বিত পতাকা আমরা অর্জন করেছি সেই স্বাধীনতা কিন্তু একদিনে আসেনি। স্বাধীনতা অর্জনের প্রতিটি ধাপে ধাপে যিনি সেনাপতির ভূমিকা পালন করেছিলেন, জাতিকে উপহার দিতে পেরেছিলেন একটি স্বাধীন ভূ-খন্ড এবং লাল সবুজের পতাকা।
সমগ্র বিশ্বের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, প্রতিটি জাতির ক্রান্তিলগ্নে একজন মহামানবের আবির্ভাব ঘটে। সেই মহামানবের হাত ধরে সেই জাতি জেগে উঠে। নিজের শৌর্য-বীর্যকে প্রকাশিত করে বিশ্বে মাথা উচু করে দাঁড়ায়। নবাব সিরাজদ্দৌলার পতনের পর সিপাহী বিপ্লব, তিতুমীরের বাঁশের কেল্লা, সূর্যসেন, প্রীতিলতা, নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু, শেরে বাংলা, সোহরাওয়ার্দী, ভাসানী প্রত্যেকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে বাঙালি জাতির মুক্তির লক্ষ্যে কাজ করে গেছেন। কিন্তু অনেকেই সেই রক্তিম সূর্যের আভা দেখতে পারেননি। সেই মহেন্দ্রক্ষণে তাদের তৈরী পথের পেছন হতেই একেবারে সাধারণ মানুষের কাতার থেকে জেগে উঠেন এক মহামানব। বাঙালি কেন সারা বিশ্বই অপার বিস্ময়ে তাকিয়ে রইলো সেই বিশাল মানুষটির দিকে। যেনো শতবর্ষের অপেক্ষার অবসান ঘটল।
বাঙালি ভূল করেনি সেদিন। তাদের আকাঙ্খিত নেতৃত্বের সন্ধান পেয়ে অভিভূত বাঙালি জেগে উঠল। সেই ব্যক্তি আর কেউ নন শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কিন্তু তারপর? ‘রুটিন মাফিক ট্রিগার টিপা, তোমার বক্ষ বিদীর্ণ করে হাজার পাখির ঝাঁক পাখা মেলে উড়ে গেল, বেহেশতের দিকে…তারপর ডেডষ্টপ। তোমার নি®প্রাণ দেহখানি সিঁড়ি দিয়ে গড়াতে গড়াতে মেঝেতে হুমড়ি খেয়ে থামলো, কিন্তু তোমার রক্ত স্রোত থামলোনা। সিঁড়ি ডিঙ্গিয়ে বারান্ধায় মেঝে গড়িয়ে সেই রক্ত, সেই লাল টক্টকে রক্ত বাংলার দূর্বা ছোঁয়ার আগেই কর্ণেল সৈন্যদের ফিরে যাবার বাঁশি বাজালো।’-ঠিক যেন পলাশীর আম্রকাননের ঘটনার পুনরাবৃত্তি। আর ঘটনাটি ঘটেছে ’৭৫-এর ১৫ আগষ্টের কালোরাত্রিতে। ঘাতকের হিংস্র কালো থাবা কেড়ে নেয় সেই অমিততেজী ইতিহাসের মুকুটহীন সম্রাট বঙ্গবন্ধুর প্রাণ।
আজ সেই পনেরই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। এ শোকের মাঝে বাঙালি জাতির শুধু কান্না প্রবাহই সৃষ্টি করেনা, উত্তাল দুঃখবোধের বাসও এ শোকের মাঝে আছে। চিরঞ্জীব মহা মহাতœাজীবন স্পর্শ করার প্রত্যয়।
আগস্ট মাস মানেই বাঙালির ব্যর্থতার ইতিহাস, সিরাজের দ্বিতীয় পরাজয়, শৌর্য–বীর্য হারানোর লজ্জার ইতিহাস, নিজেকে ধিক্কার দেয়ার ইতিহাস। সেই দিনের সেই মর্মান্তিক হত্যাকান্ড এখনো জাতিকে আলোড়িত করে। ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে ঘটে যাওয়া সেই কলংকিত ঘটনায় জাতি হিসেবে মহান মুক্তিযুদ্ধে আমরা যা অর্জন করেছিলাম, স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যদিয়ে তা সমূলে বিনষ্ট করা হল। আমরা হারিয়ে ফেলি আমাদের জাতীয় চার মূলনীতি, মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধ, অর্থনৈতিক মুক্তির অগ্রযাত্রা, প্রগতিশীলতা এবং অসাম্প্রদায়িক চেতনা। ’৭৫ পরবর্তী এই ৪০ বছর কেটেছে ঘোর তমাশার মধ্যদিয়ে। বঙ্গবন্ধুর নাম মূখে উচ্চারণ ছিল নিষিদ্ধ সম্পাদীকায়’র মতো। ইতিহাসের চরম বিকৃতি ঘটিয়ে নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু এবং সত্য ইতিহাসকে দূরে সরিয়া রাখা হয়। শুধু তাই নয় আইন করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের পথ রুদ্ধ করা হয়। দীর্ঘ একুশ বছর জাতি এগুতে থাকে স্বাধীনতার জনক ছাড়া। বাংলাদেশের জন্য সংগ্রাম করার শাস্তি দেয়া হয়েছিল বঙ্গবন্ধুকে এবং তা ছিল মানুষের স্মৃতিতে এবং হৃদয়ে। সেখানেই আছেন বঙ্গবন্ধু, সেখানেই থাকবেন চিরকাল-ইতিহাসের সৃষ্টিরুপে এবং স্রষ্টারুপে। একুশ বছর পর বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া দল আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছিল। আবারও বাংলার জনগণ আওয়ামীলীগকে দেশ পরিচালনা দায়িত্ব দিয়েছে। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে সরকারী ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। শত ষড়যন্ত্রের বেড়াজাল ছিন্ন করে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ আজ একটি যুধবদ্ধ শব্দ।
হারানো সে মর্যাদা বঙ্গবন্ধু ফিরে পেয়েছেন, যে আসনে তাকে পুনঃ প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে, সেই আসন থেকে যাতে আর কখনো বিচ্যুত হতে না হয় তার জন্য আমাদেরকে অতন্দ্রপ্রহরী হিসেবে কাজ করতে হবে। জীবদ্দশায় বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখতেন সেই স্বপ্ন আদর্শের বাস্তবায়নেই বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা জ্ঞাপন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন দেখা সোনার বাংলা সত্যিকার অর্থেই যেদিন প্রতিষ্ঠা পাবে সেদিনেই শোধ হবে বঙ্গবন্ধুর ঋণ। এই মহান নেতার প্রতি রইলো আমাদের শ্রদ্ধা।
লেখক: সাংবাদিক ও কলামিষ্ট।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪