আমি দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে ও কল্যাণে প্রয়োজনে জীবন দিতে প্রস্তুত আছি -শেখ হাসিনা

Kurigram PM Photo, 20-08-17

হুমায়ুন কবির সূর্য্য, কুড়িগ্রাম থেকে: দেশের প্রতিটি মানুষের খাদ্য, চিকিৎসা, আবাসন ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বর্তমান সরকার সব কিছু করছে। এ সরকার আওয়ামীলীগের সরকার। এ সরকার জনগণের সরকার। এ সরকার আপনাদের সরকার। আমার বাবা (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান) দেশের মানুষকে বেশী ভালবাসতেন। তাই তিনি দেশের মানুষের জন্য জীবন দিয়েছে। আমি দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে ও কল্যাণে জীবন দিতে প্রস্তুত আছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার বিকেলে কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার পাঙ্গা হাই স্কুল মাঠে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। তিনি চলতি বন্যায় নিহত শিশুসহ অন্যদের আতœার মাগফেরাত কামনা করে বলেন পর্যাপ্ত ত্রাণ রয়েছে। সবাইকে ত্রাণ পৌঁছে দেয়া হবে। আগামী মাস থেকে দেশের ৫০লাখ মানুষকে ১০টাকা কেজি দরে ৩০ কেজি করে চাল তিন মাস দেয়া হবে। দেশে যেন খাদ্য ঘাটতি না হয় সে জন্য চাল আমদানীর উপর ২৮ভাগ ট্যাক্স কমিয়ে ২ভাগ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ১৫লক্ষ টন খাদ্য আমদানী করা হয়েছে। কাজেই কোন সংকট নেই। আমি ১৯৮১ সাল থেকে কুড়িগ্রামের প্রতিটি উপজেলায়, ইউনিয়নে ঘুরে বেড়িয়েছি। মানুষের দুঃখ কষ্ট দেখেছি। তখন এ অঞ্চলে দুর্ভিক্ষ, মঙ্গা লেগে থাকত। সরকারে না থেকেও তখন মানুষের পাশে ছিলাম। লঙ্গরখানা খুলেছি। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে এ জেলার জন্য অনেক উন্নয়ন কর্মসুচি নিয়েছি। যাতে করে গ্রামের মানুষটিও ভাল থাকতে পারে। অল্প সময়ে কুড়িগ্রামকে খাদ্য উদ্বৃত্ত করতে সক্ষম হই। এখন আর মঙ্গা নেই। আমরা মাঝে ক্ষমতায় ছিলাম না। ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসে দেখি আবারও দেশে ৪০লাখ মেট্রিক টন খাদ্য ঘাটতি। আমাদের চেষ্টায় দেশ আবারও ৩০লাখ মে.টন খাদ্য উদ্বৃত্ত হয়েছে।
কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত এ ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এমপি, খাদ্য মন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাফর আলী, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক এমপি। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, পানি সম্পদ মন্ত্রী ব্যারিষ্টার আনিছুল হক, পররাষ্ট্র মন্ত্রী এইচ মাহমুদ আলী, সাবেক মন্ত্রী জাহাঙ্গির কবির নানক এমপি, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, এ্যাডভোকেট সফুরা খাতুন এমপি, রুহুল আমিন এমপি, এ কে এম মোস্তাফিজার রহমান এমপি, সাবেক মন্ত্রী মোতাহার হোসেন এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম মঞ্জু মন্ডল, লালমনিরহাট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান, আবু নুর মোঃ আক্তারুজ্জামান প্রমুখ। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন জেলা প্রশাসক আবু ছালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান।
শেখ হাসিনা এনজিওদের উদ্যেশে বলেন, যারা ঋণ দিয়েছেন, (কিস্তি আদায়ের ব্যাপারে) দয়া করে বন্যা কবলিত মানুষদের অত্যাচার ও জুলুম করবেন না। তিনি উপস্থিত জনতাকে প্রশ্ন করেন আমার উপর আস্থা আছে? সবাই তার কথায় সাড়া দেয়। বলে আস্থা আছে। ‘আপনাদের ধৈর্য্য ধরতে হবে। আমাদের প্রতি আস্থা রাখতে হবে। বিশ^াস রাখতে হবে। বাংলার মানুষের জন্য আমি যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য প্রস্তুত।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এটা আগষ্ট মাস। এ মাসে দেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্ব-পরিবারে হত্যা করা হয়। আমি ও আমার ছোট বোন (রেহানা) দেশের বাইরে থাকায় প্রাণে বেঁচে যাই। জিয়া তখন একজন মেজর ছিল। জাতির পিতা তাকে মেজর জেনারেল করেন। কিন্তু তিনি অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেন। এমনকি আমার ছোট বোন যেন দেশে আসতে না পারে এ জন্য তাঁর পাসপোর্ট রেনু করতে দেয়নি।
তিনি বন্যায় কুড়িগ্রামের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কথা উল্লেখ করে বলেন, টানা বৃষ্টিপাতের কারণে উত্তরাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলায় বন্যা হয়েছে। আমি দিনাজপুরের বন্যাদুর্গত এলাকা দেখে এবং ত্রাণ বিতরণ করে আসলাম। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামীণ সড়ক, মহাসড়ক ও বাঁধের কাজ শুরু করার নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে আশ্রয় কেন্দ্র ও ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মেরামতের কাজ করা হবে। আপনারা যারা স্থানীয় তাঁরা দেখে নেবেন কাজ যেন ঠিকমত হয়। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ধানের চারা বিতরণ করা হবে। চারার ব্যবস্থা আমরা করে রেখেছি। সার, বীজ সব দেয়া হবে। বন্যায় যাদের ঘরবাড়ি নষ্ট হয়েছে তাদেরকে ঘর করে দেয়া হবে। ভূমিহীনদের স্থায়ীভাবে ঘরবাড়ি করে দেয়া হবে।
দেশকে ভিক্ষুক মুক্ত কর্মসুচি নেয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, ভিক্ষুক জাতির কখনও মাথা উচুঁ করে দাঁড়াতে পারেনা। ভিক্ষুক জাতির কোন সম্মান থাকে না। আমরা কারো কাছে মাথা নোয়াব না। হাত পাতবো না।
সরকার প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বিনা মূল্যে বই বিতরণ করা হয়। অভিভাবকদের বোঝা কমাতে। এখন বন্যায় যাদের বই নষ্ট হয়েছে, তাদেরকে আবারো বিনামুল্যে বই দেয়া হবে। এ সময় তিনি অভিভাবকদের উদ্যেশে বলেন, ছেলে-মেয়েরা যেন বিপদগামী না হয়, জঙ্গি, মাদক সেবী না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক ও সচেতন থাকবার পরামর্শ দেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪