**   রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে জাতিসংঘে যা বলল মিয়ানমার **   রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে উলিপুরে আলেম-ওলামাদের মানববন্ধন **   এবার যে কারণে বিতর্কে সানি লিওন **   ধর্ষক রাম রহিমের পালিত কন্যা হানিপ্রীত গ্রেফতার **   ভূরুঙ্গামারীতে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করায় শিক্ষক বরখাস্ত **   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান

জড়িতদের বিচার দেখে মরতে চান ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় আহতরা

1503233450

জড়িত দুর্বৃত্তদের বিচার দেখে মরতে চান ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় আহতরা। গ্রেনেডের স্পিন্টারে ক্ষতবিক্ষত শরীরে আমৃত্যু যন্ত্রণা নিয়েও তাদের একটাই কামনা হামলার সঙ্গে জড়িতদের অন্তত শাস্তি হোক।
তারা বলেন, ‘জানোয়ারদের (গ্রেনেড হামলায় জড়িত) চূড়ান্ত বিচার দেখে যেতে পারলে মরেও শান্তি পেতাম। আমাদের জীবনে এই পঙ্গুত্বের অভিশাপ যারা বয়ে এনেছিল, বেঁচে থাকতে থাকতেই সে ঘাতকদের বিচার দেখে যেতে চাই।
তারা বলেন, ‘শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে এ বিচার হবেই।’ ঘাতকদেরও উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত হবে বলেও দৃঢ় বিশ্বাস আছে তাদের।

২১ আগস্টের ভয়াবাহ গ্রেনেড হামলায় আহতরা সে দিনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এমন কথা বলেন। সেদিনের হামলায় আওয়ামী লীগের ২৪ জন নেতাকর্মী নিহত হন। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় শরীরে স্পিন্টারের ভয়াবহ যন্ত্রণা নিয়ে এখনও বেঁচে আছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সাংবাদিকসহ চার শতাধিক আহত ব্যক্তি।

গ্রেনেড হামলায় আহতদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিবছর এ দিনটি এলেই ভয়ে আঁতকে উঠেন তারা, মনে পড়ে সেই নৃশংস হামলার স্মৃতি। ১৩ বছর ধরে গুরুতর আহত প্রায় সবাই অসহ্য যন্ত্রণার ঘানি টানছেন। ঘটনার পর তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া আর্থিক সহায়তায় অনেকেই চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের কেউ কেউ এখনও নানাভাবে আর্থিক সহায়তা পাচ্ছেন। বছরের পর বছর গ্রেনেডের স্পিন্টার বয়ে বেড়ানো আর শরীরের ক্ষতে ঘা, কিডনি, চর্মরোগসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে দিন পার করছেন ভুক্তভোগীরা। আহতদের কেউ হারিয়েছেন শ্রবণশক্তি, কেউ হারিয়েছেন চির জীবনের মতো কর্মক্ষমতা।
তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া সহায়তাসহ বিভিন্ন আর্থিক সাহায্য পেলেও সেই অর্থের প্রায় সবটাই খরচ হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন অসুখের চিকিৎসায়। ফলে গ্রেনেড হামলায় আহত ও তাদের স্বজনদের চরম অর্থ সংকটে দিন কাটছে। কারও বেলায় রোগের প্রকোপ এতটাই বেশি যে ‘২১ আগস্ট মৃত্যু হলেই ভালো ছিল’ এমন মন্তব্যও করছেন অনেকে।

বর্বরোচিত সে গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন এখনও ১০ থেকে ১২টি স্প্রিন্টার শরীরে বয়ে বেড়াচ্ছেন। সেদিনের সেই ভয়াবহ স্মৃতি মনে হলে এখনও আঁতকে ওঠেন তিনি। এ প্রসঙ্গে আলাপকালে এস এম কামাল হোসেন বাসসকে বলেন, বাঙালি জাতির ইতিহাসে যে কয়টি কালো দিন রয়েছে, তার মধ্যে ২১ আগস্ট অন্যতম একটি দিন। সেদিন আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করার জন্য এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যেই এ হামলা চালানো হয়-যার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল হাওয়া ভবনে বসে। এজন্যই বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকাকালে এ বিচার নিয়ে শুধু জজমিয়ার নাটকই তৈরি করেনি, বরং বিচারকে ভিন্ন খাতে নেয়ার জন্য তৎতকালীন সিআইডির অফিসারদের প্রমোশনের প্রলোভন দেখিয়ে সব আলামত নষ্ট করা হয়। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পরে আবারও এ বিচারের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আমরা জেনেছি বিচার প্রক্রিয়া একেবারেই শেষ পর্যায়ে। যে কোনো সময় রায় হবে বলেও আমরা আশাবাদী।
লিটন মোল্লা (৪৩) আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় আহত হয়েছিলেন তিনি। এখনও শরীরের নানা জায়গায় ক্ষত ও স্পিন্টার বয়ে বেড়াচ্ছেন। শ্রবণ শক্তিও প্রায় নেই বললেই চলে। অসুস্থতার কারণে অকর্মণ্য হয়ে পড়েছেন তিনি। পরিবার ও স্বজনদের সহায়তায় এবং প্রধানমন্ত্রীর দেয়া আর্থিক সহযোগিতায় কোনমতে সংসার চালিয়ে নিচ্ছেন তিনি। আবার এই টাকার বেশির ভাগ চলে যাচ্ছে চিকিৎসা খরচে।
হতাশ কণ্ঠে লিটন মোল্লা বলেন, আর পারছি না। দিনরাত শরীরিক যন্ত্রণা অসুস্থতা, অন্যদিকে আর্থিক অনটন। এভাবে বেঁচে থাকা যায়? তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমার আবেদন, যারা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় আহতদের মধ্য যারা কর্মক্ষমতা হাড়িয়েছেন তাদের জন্য যেন স্থায়ী ভাবে কিছু করা হয়। আর এখন একটাই চাওয়া বিচার যেন দ্রুত শেষ করা হয়।
রত্না আক্তার রুবী (৩৮)। প্রায় ৫০টি স্পিন্টার এখনও শরীরে বয়ে বেড়াচ্ছেন। স্বামী সবুজ হাওলাদার ও এক ছেলে এক মেয়ে নিয়ে থাকেন মিরপুরে। গ্রেনেড হামলায় মারাত্মক আহত হয়েছিলেন তিনি। ঘটনার কয়েক মাস পরেই তার শরীরের ডান দিকের অকেজো কিডনি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ফেলে দিতে হয়েছে। এ ছাড়া চর্মরোগ, পা ফুলে যাওয়াসহ নানা অসুখে ভুগছেন তিনি। অুসস্থতার প্রয়োজনে প্রতি মাসে ইনজেকশান এন্টিবায়োটিক বাবদ খরচ করতে হচ্ছে প্রায় ৩০ হাজার টাকা। ঘটনার পর আর্থিক সাহায্য যা পেয়েছিলেন তা চিকিৎসাতেই ব্যয় হয়েছে। স্বামীর ব্যবসায়ের আয়ে সংসার চলে রুবির। বর্তমানে চরম দুঃসহ দিন পার করছেন রুবি।

তিনি বলেন, সেদিন গ্রেনেড হামলায় আহত, রক্তাক্ত হই আমি। আমাকে মৃত মনে করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে ফেলে রাখা হয়েছিল। পরে জ্ঞান ফিরে পাবার পর দেখতে পাই আমি মর্গে অন্য লাশের পাশে। এরপরই ধীরে ধীরে কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠি। কিন্তু শরীরিক ও মানসিক যন্ত্রণা পিছু ছাড়েনি আমার। চিকিৎসকরা বলেছেন, যতদিন জীবিত আছি ততদিন এই যন্ত্রণা আমাকে পোহাতে হবে। এখন মনে হয় সেদিন মরে যাওয়াই ভালো ছিল।
পুরান ঢাকার মাজেদ সরদার রোডে বাস করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেত্রী রাশেদা আক্তার রুমা। শরীরে ক্যান্সার বয়ে বেড়াচ্ছেন। ২১ আগস্ট শেখ হাসিনা যে ট্রাকে দাঁড়িয়ে বক্তব্য দিচ্ছিলেন সেই ট্রাকের পেছনে ছিলেন তিনি। রুমা জানান, এখনও তার শরীরে প্রায় দুই হাজার স্পিন্টার রয়েছে। গ্রেনেডের আঘাতে ১৮টি দাঁত পড়ে যায় তার। ডান পা পচতে পচতে হাড়ে লেগেছে। এখন পচতে শুরু করেছে বাম পা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া অর্থসহ স্বামীর অর্থে চিকিৎসা চালাচ্ছেন তিনি।
তিনি বললেন, ক্যান্সারে পা পচে যাচ্ছে, শরীরের তীব্র জ্বালায় বাঁচতে পারছি না। গ্রেনেড হামলার ঘটনায় জড়িতদের এখনও বিচারকার্য শেষ হয়নি। জানোয়ারদের চূড়ান্ত বিচার দেখে যেতে পারলে মরেও শান্তি পেতাম। তিনি বলেন, এখন আর কোনো নেতাকর্মী আমার খোঁজ নেন না। একটিবারের জন্যও কেউ দেখতে আসেন না।- বাসস

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪