রাম রহিমের তখতে ছেলে যশমিত

1504505328

কারও সঙ্গে কথা বলছেন না ডেরা সচ্চা সওদা প্রধান গুরমিত রাম রহিম সিং। রোহতকের সুনারিয়া জেলে নিজের কুঠরির মধ্যে খালি পায়চারি করেছেন। আগের রাতে শুয়েছেন কম্বলের বিছানায়, পরেছেন কয়েদির পোশাক। পালিত কন্যা হানিপ্রীত সিং সঙ্গে থেকে ঘন ঘন রক্তচাপ আর রক্তে শর্করার মাত্রা মাপবেন, সেই আবদারও নাকচ হয়েছে। ফলে বাবাজির মেজাজ ঠিক থাকার কথাও নয়। উল্টো হানিপ্রীত চলে এসেছেন লোকের নজরে। সবাই অকথা কুকথা বলছে। যে কারণে গুরমিতের অবর্তমানে হানিপ্রীতেরই ডেরার দায়িত্বে আসার কথা প্রথমে শোনা গেলেও, সিদ্ধান্ত বদলেছে।

গুরমিতের মা, ৮২ বছরের নসিব কৌর ঘোষণা করেছেন, তার নাতি, গুরমিতের ছেলে যশমিত ইনসানই পরবর্তী ডেরা প্রধান। ২০০৭ সালে ধর্ষণ, যৌন নিগ্রহের দায়ে অভিযুক্ত হওয়ার পর গুরমিতই ছেলেকে মনোনীত করে রেখেছিলেন।
নসিব কৌর ডেরা অনুগামীদের বলেছেন, তরুণ যশমিতকে তারা আধ্যাত্মিক গুরু হিসেবে মেনে নিতে না চাইলে কোনও অসুবিধে নেই। কিন্তু ডেরার কাজকর্ম পরিচালনার দায়িত্ব যশমিতই সামলাবেন। ডেরা সচ্চা সওদার ৪৫ সদস্যের ‘কোর কমিটি’র এক জরুরি তলবি বৈঠকে যশমিত ইনসানকে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের পদ্ধতি চালু করতে বলেছেন নসিব কৌর। সেই সঙ্গে ভয়ঙ্কর বকাবকি করেছেন কমিটির সদস্যদের, তার ছেলের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার জোরালো অভিযোগ ওঠা সত্ত্বেও বিষয়টি হালকাভাবে নেওয়ার জন্য।
ডেরার দুই সাধ্বীকে ধর্ষণের দায়ে দোষী প্রমাণিত গুরু মহারাজকে ২০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়ার সময় সিবিআই আদালতের বিচারপতি জগদীপ সিং মন্তব্য করেছেন, বাবার আচরণ ছিল ‘পাশবিক’। নিজের আশ্রমের শিষ্যাদেরও রেহাই দেননি। এবং তদন্তে যা জানা গেছে, দুই মহিলা ভক্তকে টানা দু’বছর ধরে লাগাতার ধর্ষণ করে গেছেন গুরমিত। আদালতে মামলা চলার সময় নিজেকে বাঁচাতে অজস্র মিথ্যে বলেছেন। এমনকী নিজেকে ‘পুরুষত্বহীন এবং সঙ্গমে অক্ষম’ বলেও দায় এড়াবার চেষ্টা করেছেন। সোমবার সুনারিয়া জেলে বিচারপতি সিং যখন দণ্ডাদেশ পড়ে শোনাতে শুরু করেছেন, তখন টনক নড়েছে বাবাজির। মাটিতে বসে পড়ে, হাতজোড় করে কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন। কিন্তু ততক্ষণে নায়ক–গায়ক ‘রকস্টার বাবা’র পরবর্তী লীলাখেলার জন্য ২০ বছরে একটা তারিখও খালি নেই।
এবং সম্ভবত ২০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডেই দুর্ভোগ শেষ হচ্ছে না বাবা রাম রহিমের। তার কীর্তি ফাঁস করায় ডেরা–গুন্ডাদের হাতে খুন হন সিরসার ‘পুরা সচ’ পত্রিকার সম্পাদক রামচন্দ্র ছত্রপতি। গুরমিতের লালসার শিকার ওই ২ মহিলার একজনের ভাই ও ডেরা সচ্চা সওদার প্রাক্তন ম্যানেজার রঞ্জিত সিং ১৫ বছর আগের ওই ঘটনায় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীকে চিঠিতে সব জানান। ফলে ডেরা সাচ্চা সওদার আক্রোশের বলি হন তিনিও। কাজেই ২টি খুনের মামলা এখনও চলছে গুরমিতের নামে। প্রথমটির শুনানি ১৬ সেপ্টেম্বর। ওইদিনই সিবিআই ‘পুরা সচ’ সম্পাদক খুনের মামলায় চূড়ান্ত সওয়াল করবে। তারপরেই রায়দান। আর রঞ্জিত সিংয়ের মামলার শুনানিও এক নিম্ন আদালতে প্রায় শেষ পর্যায়ে।
সিবিআই মনে করছে, ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় রাম রহিমের বিরুদ্ধে খুনের মামলায় তাদের ঘুঁটি সাজাতে আরও সুবিধা হলো। খুনের মামলার বিচার প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত করতে পঞ্জাব–হরিয়ানা হাইকোর্টে ৬০টি আবেদন করেছিলেন গুরমিত। সব কটি খারিজ করে দেয় আদালত। নির্দেশ দেয়, অক্টোবরের মধ্যেই মামলাগুলির নিষ্পত্তি করতে হবে।‌- সংবাদমাধ্যম

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪