**   রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে জাতিসংঘে যা বলল মিয়ানমার **   রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে উলিপুরে আলেম-ওলামাদের মানববন্ধন **   এবার যে কারণে বিতর্কে সানি লিওন **   ধর্ষক রাম রহিমের পালিত কন্যা হানিপ্রীত গ্রেফতার **   ভূরুঙ্গামারীতে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করায় শিক্ষক বরখাস্ত **   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান

রোহিঙ্গা ইস্যুতে তৎপর এরদোগান, সুচিকে টেলিফোন

1504614299

যুগের খবর ডেস্ক: তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইপ এরদোগান গত সপ্তাহে বলেন, মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ‘গণহত্যা’ চলছে। আর গতকাল মঙ্গলবার এরদোগান সরাসরি ফোন করেছেন মিয়ানমারের সবচেয়ে ক্ষমতাবান রাজনৈতিক নেত্রী অং সান সুচিকে।

বার্তা সংস্থা এএফপি এবং রয়টার্স প্রেসিডেন্টের মুখপাত্রদের উদ্ধৃত করে জানাচ্ছে, ফোনালাপে এরদোগান মিস সুচির কাছে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ‘মানবাধিকার লঙ্ঘন’ নিয়ে উদ্বেগ এবং নিন্দা জানিয়েছেন।
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট মিস সুচিকে বলেন- রোহিঙ্গা সঙ্কট পুরো মুসলিম বিশ্বের জন্য গভীর উদ্বেগ তৈরি করেছে।তিনি বলেন, ‘নিরপরাধ মানুষের ওপর সন্ত্রাসীর তৎপরতার নিন্দা করছে তুরস্ক। মিয়ানমারে যে মানবিক সঙ্কট তৈরি হয়েছে সেটি উদ্বেগ এবং ক্ষোভের বিষয়।’
মিজ সূচির উত্তর বা প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে এখন পর্যন্ত কিছু জানা যায়নি।
রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে তুরস্ক বিশেষ তৎপর হয়ে উঠেছে।ঈদের ছুটির সময় প্রেসিডেন্ট এরদোগান এই সঙ্কট নিয়ে বিভিন্ন মুসলিম দেশের নেতাদের সাথে টেলিফোনে কথা বলেছেন। এমনকী জাতিসংঘ মহাসচিব অন্তোনিও গুতেরেজের সাথেও কথা বলেছেন তিনি।
তুরস্কের নেতা বলেছেন এ মাসের শেষে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভায় তিনি রোহিঙ্গা ইস্যুটি তুলবেন।
রোহিঙ্গা পরিস্থিতি দেখতে আগামী বৃহস্পতিবার বাংলাদেশে আসছেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসগলু। তিনি মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের সাম্প্রতিক সংঘাতে বিপর্যস্ত রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের মানুষের অবস্থা দেখতে কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করবেন। তুরস্কের সরকারি বার্তা সংস্থা আনাদলু জানিয়েছে, রোহিঙ্গা পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখতে এবং কথা বলতে প্রেসিডেন্ট এরদোগান তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলুকে আজ বুধবার বাংলাদেশের পাঠাচ্ছেন।গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাও এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যক্তিগত জেটে বাংলাদেশে আসছেন। কক্সবাজারে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে বাংলাদেশর পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর যাওয়ার কথা রয়েছে।
রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানিয়ে গত শুক্রবার বিবৃতি দেন এরদোগান। মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে ‘গণহত্যা’ সারা বিশ্ব উদাসীনভাবে তাকিয়ে দেখছে বলে উল্লেখ করেন এরদোগান। বিষয়টি নিয়ে তিনি ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি)’র ২০ দেশের সঙ্গে আলোচনা করেছেন বলেও জানান।
সোমবার আঙ্কারায় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে ওআইসি’র ২০টি দেশের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছি। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর আমরা বিষয়টি জাতিসংঘে তুলবো এবং বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করবো। দুঃখজনক হলো মিয়ানমারে মুসলমানদের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালানো হলেও এ ব্যাপারে বিশ্ব উদাসীন।’
প্রেসিডেন্ট এরদোগান বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদকে বৃহস্পতবিার রাতে টেলিফোন করেছিলেন। টেলিফোনে তিনি বর্তমানে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বিরাজমান পরিস্থিতি ও  রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর দেশটির সেনাবাহিনীর চালানো নিপীড়ন ও অভিযানের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন।তিনি এ যাবতকালে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সহায়তায় এবং চলমান সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের গৃহীত পদক্ষেপের প্রশংসা করেন এবং বাংলাদেশের প্রতি তুরস্কের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি রোহিঙ্গা বিষয়ক সমস্যাটি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামের আলোচনায় উপস্থাপনে তুরস্কের প্রয়াস অব্যাহত থাকবে বলেও আশ্বাস দেন।
রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ অত্যাচার ও দমন-পীড়নের শিকার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর জন্য ৩০ বৎসরেরও বেশী সময় ধরে বাংলাদেশের গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে অবহিত করে বলেন, সীমিত সম্পদ ও অন্য সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক আইন ও রীতি-নীতি অনুযায়ী মিয়ানমার থেকে আগত রোহিঙ্গা মুসলিমদের সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান করেছে।বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অবস্থানের ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকায় পরিবেশগত ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশ তাদের প্রতি খাদ্য, বাসস্থান, ওষুধ, শিক্ষা ও অন্য সব সুবিধাদি প্রদান অব্যাহত রেখেছে। তিনি অবিলম্বে সহিংসতা থেকে রক্ষার উদ্দেশ্যে মায়ানমারের সাধারণ নাগরিকদের জন্য সুরক্ষা নিশ্চিত করা এবং কফি আনান কমিশনের সুপারিশগুলো অবিলম্বে বাস্তবায়নের তাগিদ দেন।
এ বিষয়ে আবদুল হামিদ ওআইসি ও জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে তুরস্কের অব্যাহত সহায়তা কামনা করেন এবং তুরস্কের ভবিষ্যত সহায়তার অভিপ্রায়কে স্বাগত জানান।
এর পরদিন গত শুক্রবার এরদোগান রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমার বাহিনীর শুদ্ধি অভিযানের যথেষ্ট পরিমাণ খবর প্রচার না করায় বিশ্বের গণমাধ্যমগুলোর তীব্র সমালোচনা করেন।
উদ্বাস্তুদের ব্যয়ভার বহনের প্রস্তাব: তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইতোমধ্যে বাংলাদেশের প্রতি পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য সীমান্ত খুলে দেওয়ার আহ্বান জানান এবং শরণার্থীদের ব্যয় বহনের প্রস্তাব দিয়েছে। গত শুক্রবার ঈদুল-আজহা’র এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলু এই ঘোষণা দেন বলে তুরস্কের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম ‘আনাদুলো’ জানায়।
চাভুসোগলু বলেন, ‘মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশ সীমান্ত খুলে দিলে তুরস্ক এর ব্যয়ভার বহন করতে রাজি আছে। তিনি বলেন, আমরা ওআইসি’কে সংগঠিত করছি। এ বছর আরাকান নিয়ে একটি শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজন করা হবে। এই সমস্যার একটি চূড়ান্ত সমাধান আমাদেরকে খুঁজে বের করতে হবে।’ চাভুসোগলু বিষয়টি নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিব ও রাখাইন কমিশনের প্রধান কফি আনানের সঙ্গেও টেলিফোনে আলাপ করেছেন।
গত ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দেশটির রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে রোহিঙ্গারা আশ্রয়ের জন্য ব্যাপকহারে প্রতিবেশি বাংলাদেশে পালিয়ে যেতে শুরু করে। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের এই ঢল এখনো অব্যাহত রয়েছে। সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়, মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সর্বশক্তি নিয়ে দমন অভিযান শুরু করেছে। এতে হাজার হাজার রোহিঙ্গা ঘরবাড়ি হারিয়েছে। সেনারা মর্টার ও মেশিনগান দিয়ে রোহিঙ্গাদের বাড়িঘর গুড়িয়ে দিচ্ছে।
রাখাইনের রোহিঙ্গা-সংখ্যাগুরু মংডু উপশহরে গত অক্টোবরে নিরাপত্তা বাহিনী দমন অভিযান শুরু করে। এসময় নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যাপকভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ আনে জাতিসংঘ। বিশ^সংস্থার রিপোর্টে মিয়ানমার বাহিনীর কর্মকা-কে ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।
জাতিসংঘের রিপোর্টে মিয়ানমার সেনাদের বিরুদ্ধে গণধর্ষণ, গণহত্যা, নির্দয় প্রহার, গুমসহ বিভিন্ন অপারাধ সংঘটনের অভিযোগ করা হয়। এই অভিযানকালে এক হাজার রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয় বলে জাতিসংঘ বলেছে।
ওদিকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উদ্বেগের মাঝেই মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে ঘর পালানো রোহিঙ্গাদের ঢল অব্যাহত রয়েছে। জাতিসংঘ বলছে গত ১১ দিনে ১২৩,০০০ রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ঢুকেছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪