প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ

Ulipur Picture 01

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়ম, অর্থ আত্মসাৎ, নিয়োগ বাণিজ্য ও ম্যানেজিং কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। ক্ষুব্ধ অভিভাবক ও এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষকের অপসারন ও শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবীতে গত রোববার থেকে বিদ্যালয়ে তালা ঝুঁলিয়ে দিয়েছেন। তিন দিন ধরে বিদ্যালয়টি তালা বন্ধ থাকলেও কর্তৃপক্ষ নিরব ভূমিকা পালন করছেন।
শিক্ষার্থী অভিভাবক ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ৩মাস থেকে বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের অনুপস্থিতি, স্বেচ্ছাচারিতা, দায়িত্বে অবহেলা, পরিচালনা কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্ব, অর্থ আতœসাৎ, নিয়োগ বাণিজ্য ও একাধিক মামলার কারণে বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। পরিচালনা কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে বিদ্যালয়ের জমিদাতা সদস্য আলহাজ্ব শওকত আলীর নাম বাদ দিয়ে প্রধান শিক্ষক গোপনে কমিটি অনুমোদন করান। এরই জের ধরে ওই দাতা সদস্য শিক্ষা অফিস ও জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ এবং আদালতে মামলা করেন। শিক্ষার্থী অভিভাবক নুর ইসলাম (৬০), মতিউল ইসলাম (৪৫), মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আলী (৬৬) ও নুর মোহাম্মদ (৫০) অভিযোগ করে বলেন, প্রধান শিক্ষক জয়নাল আবেদীন দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে বিদ্যালয়ে অনিয়ম ও দূর্নীতি শুরু করেন। বর্তমানে তিনি ৩ মাস থেকে বিদ্যালয়ে আসেন না। ফলে প্রধান শিক্ষকের অনুপস্থিতে অধিকাংশ শিক্ষকগণ নিজেদের খেয়ালখুশী মত পাঠদান করায় শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। প্রধান শিক্ষক কাউকে তোয়াক্কা না করে বিদ্যালয়ের ২টি শুণ্য পদে (অফিস সহকারী ও সহ-প্রধান শিক্ষক) নিয়োগ দেয়ার কথা বলে ১৮ জনের কাছ থেকে প্রায় ৪০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। বর্তমানে চাকুরী বঞ্চিত ওই প্রার্থীগণের দেয়া টাকা ফেরতের জন্য চাপ দিলে তিনি বিদ্যালয়ে আসা বন্ধ করে দেন। এছাড়াও সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক আব্দুল মজিদ ৪মাস ধরে স্কুলে আসেন না বলে অভিযোগ করেন। শিক্ষার্থী অভিভাবক আতাউর রহমান (৬৫) বলেন, আমার বাড়ি স্কুল থেকে ৩ কিলোমিটার দুরে খামার দামার হাট এলাকায়। আমার সপ্তম শ্রেনী পড়য়া সন্তান মোর্শেদুল হক সকাল ৮টায় নদী পাড় হয়ে স্কুলে আসে। কিন্তু স্কুলে কোন ক্লাস হয় না। ছেলের কাছে এ কথা শুনে আমি নিজে এসে দেখি স্যাররা স্কুলে থাকেন না। স্কুল চলাকালীন সময়ে পার্শ্ববর্তী বাজারের চায়ের দোকানে বসে আড্ডা দেন।
বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর ছাত্র সবুজ মিয়া, ৮ম শ্রেনীর ছাত্র এনামুল হক, রোকনুজ্জামান, সাকিল ইসলাম ও ৭ম শ্রেনির ছাত্র রনি মিয়া জানায়, আমাদের স্কুলে ক্লাস ঠিকমত হয় না, স্যাররাও আসেন না। অর্ধ-সাময়িক পরীক্ষার ফলাফল দেওয়া হয় না। মজিদ স্যারসহ কয়েকজন শিক্ষক স্কুলে এসে আমাদের সামনেই বিড়ি-সিগারেট ও গুল খায়। ঘন্টার পর ঘন্টা চলে যায় কিন্তু কোন স্যার ক্লাস নিতে আসেন না। ক্লাস না হওয়ায় ছাত্র উপস্থিতও কমে গেছে। ওই বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সদস্য আলহাজ্ব বকিয়ত উল্লাহ্, রুহুল আমিন খন্দকার জানান, প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য নিয়োগের সময় দাতা সদস্য কর্তৃক দানকৃত ৬ লাখ টাকার ভূয়া ভাউচার প্রদান করে আত্মসাত করেন। এছাড়া নিয়োগের ২০ লাখ টাকাও ওনারা আত্মসাত করেছেন। বিদ্যালয়েটিতে শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা ১৭ জন হলেও ৫/৬ জনের বেশি বিদ্যালয়ে আসেন না। অথচ নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলন করেন। এখানে ছাত্র সংখ্যা ৫’শ ৫৩জন হলেও শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় শিক্ষার্থী উপস্থিতির হার ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেনি পর্যন্ত ১শত নেমে এসেছে। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির ৬ জন সদস্য বিভিন্ন দপ্তরে প্রতিকার চেয়ে অভিযোগ করেছেন।
কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জয়নাল আবেদীন বিদ্যালয় ৩ দিন ধরে তালা ঝুলানোর কথা স্বীকার করে বলেন, ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের নিয়ে আলোচনা করে স্কুল খোলার ব্যবস্থা করা হবে। শিক্ষক নিয়োগ ও দাতা সদস্যের অনুদানের টাকার বিষয় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যরা জানেন। আমি অসুস্থ্য থাকায় ছুটিতে আছি।
ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুর আলম সিদ্দিক মিলনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বর্তমানে আমি ঢাকায় আছি। এ ব্যাপারে এলাকায় ফিরে কথা বলবো। মোবাইল ফোনে কথা বলতে তিনি অস্বীকৃতি জানান।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রব জানান, বিদ্যালয়টি ৩ দিন ধরে তালা বন্ধের কথা শুনেছেন। প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি পালিয়ে বেড়ানোর কারণে তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হচ্ছেনা। দাতা সদস্য মনোনয়ন ও নিয়োগ বাণিজ্যের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। এভাবে চলতে থাকলে এ মাস থেকে ওই বিদ্যালয়ের বিল বন্ধ করে দেয়া হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪