**   লাইন্সেস, পরিবেশ সনদ ছাড়াই ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের হাট ।। উলিপুরে প্রতারিত হচ্ছে রোগিরা **   এবার ‘রেস ফোর’ নিয়ে আসছেন সালমান! **   জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে বেরিয়ে গেল যুক্তরাষ্ট্র **   আন্দোলন নয়, নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বিএনপির প্রতি আহ্বান নাসিমের **   শেষ ষোলোয় রাশিয়া, বিদায় মিসরের **   সিটি করপোরেশন নির্বাচন সবার দৃষ্টি গাজীপুরে **   দেহ ব্যবসায় জড়িত সাদিয়া! **   প্রকল্প কাজে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ ॥ ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পে ফের ধস ॥ একদিনে ১২ পরিবারের ১৭ঘর নদীতে **   ১০ জনের কলম্বিয়াকে হারালো জাপান **   উলিপুরে সহিংসতা না করার শপথ করলেন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ

একজন মাদার তেরেসাঁ-বিলকিস বানু

Golap Kha News

হাফিজুর রহমান হৃদয়, নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) থেকে: বিলকিছ বানু। একজন আদর্শবান মমতাময়ী মা। শত শত অনাথ, দুস্থ, এতিম ও অসহায় শিশুর মা তিনি। একজন মাদার তেরেসাঁ।  স্বপ্ন দেখেন মাদার তেরেসাঁর আদর্শে শিুদের লালন-পালনের। সে আদর্শকে লালন করে শত শিশুর মা হয়েছেন তিনি। পেটে ধারন করা সন্তান থেকে কম চোখে দেখেন না পালিত শিশুদের। তাদের একটা প্লাটফর্ম তৈরি করতে আদর্শবান নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে নাগেশ্বরীতে গড়ে তুলেছেন গোলাপ খাঁ শিশু সদন। নাগেশ্বরী কলেজে সংলগ্ন এ প্রতিষ্ঠিানে অনাথ দুস্থ ও অসহায় শিশুদের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করে দিয়েছেন একজন আদর্শ মা হয়েই। আর বাবা হয়ে আছেন রবিউল ইসলাম রবি। এই সুখি দ¤পতি একটি সুখি পরিবার হিসেবে গড়ে তুলেছেন গোলাপ খাঁ শিশু সদনটি। যে পরিবারে এখন শিশুর সংখ্যা ৬৬জন। যাদের আÍ কর্ম সংস্থান করে দেয়া পর্যন্ত খাওয়া, পরা, শিক্ষা চিকিৎসা থেকে শুরু করে সব ধরণের সুযোগ সুবিধা দিয়ে যাচ্ছেন এই দ¤িপতি। ১৯৯৮ সাল। ৪জন অনাথ শিশুকে নিজের বাড়িতে রেখে খাওয়ান পরান। এরপরই যোগ হয় প্রীতিলতা। একদমই অনাথ। বাবা নেই। মা ঝরনা বেগম মানসিক ভারসাম্যহীন। পরিচিত ঝরনা পাগলি নামে। রাস্তায় পরে থাকা শিশুটিকে বুকে তুলে নেন মমতাময়ী মা বিলকিছ বানু। শুরু হয় মায়ের পরম আদর যতœ। স্বপ্ন দেখেন এরকম হাজারো শিশু আছে যাদের মা নেই, কারো বাবা নেই। আবার কারো বা মা-বাবা কেউ নেই। কারো মা বাবা থেকেও নেই। স্বপ্ন দেখেন এদেরকে পুনর্বাসনের। চিন্তা করেন শুধু পুনর্বাসন নয়, একজন আদর্শ মা পেটে ধারণ করা সন্তানের জন্য যতটা করেন ঠিক সেভাবে অধিকার দিয়ে তাদেরকে লালন পালনের। যেই ভাবা সেই কাজ। ৫ জন শিশুকে নিয়েই শুরু হয় পথ চলা। তখন বাড়ির বারান্দায় পড়াতেন শিশুদের। ধীরে ধীরে চলতে থাকে কার্যক্রম। প্রথমে অনাথ শিশুদের ভরন পোষনের জন্য আয়ের উৎস হিসেবে কলেজ মোড়ের নিজস্ব জমিতে প্রীতিলতার নাম দিয়েই গড়ে তোলেন প্রীতিলতা সুপার মার্কেট। এরপর ২০০৯ সালে ১৩ জন শিশু নিয়ে কলেজ সংলগ্ন নিজস্ব ২ বিঘা জমির উপর প্রতিষ্ঠা করেন গোলাপ খাঁ শিশু সদন প্রতিষ্ঠিা করে যাত্রা শুরু করেন। আয়ের উৎস হিসেবে প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সহকারী অধ্যাপক রবিউল ইসলাম খানের মায়ের নামে কালেজরে পাশেই দাঁড় করান রেজিয়া খানম ছাত্রী নিবাস। বর্তমান এখানে রয়েছে ৬৬ জন শিশু। এদের প্রত্যেকেই অনাথ অসহায় ও এতিম। যাদের আপন বলতে কেউ ছিলো না এমনকী মাথা গোঁজার ঠাঁই ছিলো না এতটুকু। এদের নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্র এখন এই দ¤পতির øেহ-ভালোবাসায় পরিপূর্ণ বুকের জমিন। এরাই এখন এই অনাথ শিশুদের বাবা মা। এরা এখন কেউ আর অনাথ নয়। কারণ বাবা মা থেকে কোনো অংশেই কম কিছু পান না তারা। বুঝতেই পারে না কোনো অভাব। কোনো প্রকার সরকারি কিংবা বেসরকারি অনুদান ছাড়াই স¤পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালিত হচ্ছে স্বেচ্ছাসেবী এই প্রতিষ্ঠানটি। অনেকটা হিমশিম খেতে হয় ব্যয়ভার বহন করতে। তবুও শিশুদের মৌল মানবিক চাহিদা পূরণের যথাসাধ্য চেষ্টার কোনো ত্র“টি করেন না। তাদের খাদ্য বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও ”িত্তবিনোদনসহ যাবতীয় সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করেন না কখনো। শিক্ষা দেয়া হয় একাডেমিকসহ ধর্মীয়, সামাজিক ও নৈতিক শিক্ষার। আগে অন্য স্কুলে গেলেও এখন আর সে কষ্টও নেই ছেলে মেয়েদের। এখন রয়েছে নিজস্ব স্কুল। প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয়। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা রয়েছে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় করারও। রয়েছে নামাজ ঘর। ভোরে ফজরের নামাজর ও কোরান তিলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয় কার্যক্রম। সকালে শরিচর্চার পরে নাশতা হিসেবে থাকে ছোলা, জব, কলা ও ডিমসহ নানা পুষ্টির খাবার। স্কুল শুরুতে থাকে জাতীয় সঙ্গীত, মাঠপার্চ পড়াশোনা ইত্যাদি কার্যক্রম। এখানকার শিশু কিশোর কিশোরীরা এককেজন এককে শ্রেণিতে পড়াশোনা করছে। গত ১৬ সালের অনুষ্ঠিতব্য জেএসসি পরীক্ষায় ৯জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে ৩জন জিপিএ-৫ এবং বাকী ৬জন জিপিএ ৪ পেয়ে প্রতিষ্ঠানটি এগিয়ে নিতে অনুপ্রাণিত করে। চলতি ২০১৭সালের জেএসসি পরীক্ষায়ও অংশ নেবে ৯ শিক্ষার্থী। এবারই প্রথমবারের মতো এসএসসিতে অংশ নেবে প্রীতিলতাসহ ৩ শিক্ষার্থী। ১ম শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত চলে পড়াশানা। এজন্য রয়েছে ১৩জন শিক্ষক শিক্ষিকাও। রয়েছে ক্লিনার, দাঁড়োয়ান, সিস্টার। রান্নার জন্য রয়েছে আলাদা একজন রাঁধুনীও। শুধু এতেই শেষ নয়। অনাবাসিক হিসেবে এ প্রতিষ্ঠানে বিনা খরচে পড়াশোনার সুযোগ পেয়েছে ১শ ৬৫জন কিশোর-কিশোরী। এমনকী স্কুল ড্রেস ও দুপুরের খাবারও ফ্রি পাচ্ছে অনাবাসিক শিক্ষার্থীরা। শুধু একাডেমিক শিক্ষাই নয় এখানে চলে হামদ, নাথ, আবৃত্তি, নাচ, গান, অভিনয়, ফুটবল, ভলিবল, ক্রিকেটসহ নানান প্রশিক্ষন। এসব প্রশিক্ষনের জন্য রেখেছেন আলাদা শিক্ষকও। যার অংশ হিসেবে ২০১০ সালের ১৬ ডিসেম্বর উপজেলা কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে প্রতিযোগতায় ২য় স্থান, ২০১১ সালের ২১ ফেব্র“য়ারি কুচকাওয়াজে  উপজেলা পর্যায়ে ১ম স্থান ও শারীরিক কসরতে ২য় স্থান অধিকার করার গৌরব অর্জন করে। চলতি বছরের বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা’২০১৭ এ ৭টি ইভেন্টে অংশগ্রহণ করে একটিতে ১ম স্থানসহ ৭ টিতেই পুরস্কার ছিনিয়ে নেয় শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও এম মানবতামূলক কাজের জন্য “মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন” কর্তৃক “মানুষের জন্য মানবাধিকার-২০১০” এওয়ার্ড অর্জন করেন মা বিলকিস বানু। প্রতিষ্ঠানে প্রতি মাসে ব্যয় হচ্ছে গড়ে ৩ লাখ টাকা। শিশু কিশোর-কিশোরীদের এভাবে মনোমুগ্ধকর পরিবেশে লালন পালন ও শিক্ষাদানের জন্য স্থানীয়সহ বিভিন্ন উপজেলা ও জেলার অনাথ শিশুদের এখানে রাখার জন্য অনুরোধ করছেন অসহায় অভিভাবকগন। কিন্তু জায়গা সংকুলান না হওয়ায় আর কোনো শিশুকে আশ্রয় দিতে পারছেন না।  কোনো সহযোগিতা পেলে পরিসর বাড়িয়ে আরো বেশি করে শিশু যোগ করবেন বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠানের সহকারী পরিচালক আমিনা খাতুন, প্রাথিমিক বিদ্যালয় পর্যায়ের প্রধান শিক্ষক মেহেদী হাসান, সহকারী শিক্ষক জগদীস চন্দ্র রায় জানায় এসব শিশুদের শিক্ষাদানে তারাও অনেক আনন্দ অনুভব করেন। শিশুদের বাবা-মা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি মুহাম্মদ রবিউল ইসলাম খাঁন ও পরিচালক বিলকিছ বানু জানায় এখানকার শিশুরা আর তাদের জন্ম দেয়া সন্তান সবাই সমান। কাউকেই ছোট করে দেখেন না তারা। এসব সন্তান তাদের অনুভঁতি জুরে মিশে আছে। তাদের প্রত্যেককে এক একজন প্রতিষ্ঠিত নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবেন। এভাবেই  অসহায়দের পাশে থেকে তাদের কল্যাণে কাজ করে যাবেন এই দ¤পতি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪