ইসির সংলাপ: সহায়ক সরকারসহ ৪ দফায় জোর দেবে বিএনপি

1506353278
যুগের খবর ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক দল ও সুশীলসমাজের সঙ্গে নির্বাচন কমিশন আয়োজিত সংলাপে যোগ দিবে বিএনপি। ১৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য ওই সংলাপে যোগ দিয়ে সব দলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারসহ চার দফার ওপর জোর দিয়ে প্রস্তাবনা দিবে। এই চার দফার প্রস্তাবনার মধ্যে আরও থাকবেÑ সবার জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিতকরণ, ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আরপিওর কতিপয় ধারার সংযোজন ও সংশোধন। দলের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।
ইসির সংলাপে দলের প্রস্তাবনার বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপে বিএনপি অংশ নেবে। বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে দেশের জনগণের সঙ্গে বিএনপিও মনে করে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের বিকল্প নেই। আর এজন্য সঙ্গত কারণেই সহায়ক সরকারের বিষয়টি আলোচনায় সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পাবে। এছাড়া আরপিওর বিভিন্ন ধারা সংশোধন, আসন পুনর্বিন্যাস, সেনাবাহিনী মোতায়েনসহ বিভিন্ন বিষয়ে সংস্কার প্রস্তাব দেওয়া হবে ।’
বিএনপি সূত্র মতে, ‘শুরুতে নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেও ইসির সঙ্গে সংলাপে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। সংলাপের জন্য এরই মধ্যে প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন করেছে দলটি। সংলাপে বিএনপি প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তার নেতৃত্বেই একটি টিম নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপে দলীয় প্রস্তাবনা তৈরি করেছে। এ টিমে আছেন দলের সিনিয়র কয়েকজন নেতাসহ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট অভিজ্ঞ এমন কয়েকজন সাবেক আমলা ও বুদ্ধিজীবী। প্রস্তাবনা তৈরির ক্ষেত্রে দলটি তৃণমূলের নেতাদেরও মতামত নিয়েছে। বিশেষ করে সীমানা জটিলতার সমাধান কোন পথে হতে পারে সে বিষয়ে চিঠি দিয়ে জেলা নেতাদের পরামর্শ নেওয়া হয়েছে।
দলের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, ইসির সংলাপে বিএনপির প্রস্তাবনার শিরোনাম হচ্ছেÑ ‘নির্বাচন কমিশনকে অধিকতর শক্তিশালী করার লক্ষ্যে করণীয়’। তবে প্রস্তাবনার ভূমিকায় এবং উপসংহারে সহায়ক সরকারের প্রয়োজনীয়তা ও নির্বাচন কমিশনের স্বাধীন ভ‚মিকার প্রয়োগের বিষয়টি সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকবে। এরপর নির্বাচন কমিশনকে অধিকতর কার্যকর ও শক্তিশালীকরণ এবং আরপিওসহ অন্যান্য নির্বাচনী বিধিবিধান সময় উপযোগী ও যৌক্তিকীকরণের জন্য প্রয়োজনীয় সংস্কার প্রস্তাব ধারাবাহিকভাবে তুলে ধরা হবে।
সূত্রটি আরও জানায়, নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জনের কারণেই বিএনপির প্রস্তাবনার সবচেয়ে বেশি প্রধান্য পাবে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের বিষয়টি। এর মাধ্যমে তাদের গত নির্বাচন বর্জনের যৌক্তিতা তুলে ধরতে চায়। যদিও এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের তেমন কোনো ভূমিকা রাখার সুযোগ নেই বিষয়টি জেনেও ইস্যুটিকে দাবি আদায়ের প্রধান হাতিয়ার হিসেবে সামনে রাখতে চায় বিএনপি। অন্যদিকে লেভেল প্লেয়িং বিষয়ে বিএনপির প্রধান দাবি থাকবে বর্তমান সংসদ ভেঙে দেওয়া এবং দলের নেতাকর্মীদের নামে চলমান মামলাগুলো নিঃশর্তভাবে প্রত্যাহার করা। সেনাবাহিনী মোতায়েেেনর বিষয়ে নির্বাচনের আগে ও পরে অন্তত সাত দিন ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন। এক্ষেত্রে সব নির্বাচনী এলাকায় টহলসহ ভোটকেন্দ্রে ও বিশেষ বিশেষ স্থানে মোতায়েনের ব্যবস্থা প্রহণ করতে হবে। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) সংশোধনের ক্ষেত্রে ‘ল ইনফোর্সিং এজেন্সির’ সংজ্ঞায় পরিবর্তন এনে সেখানে ডিফেন্স সার্ভিস অব বাংলাদেশ অর্থাৎ প্রতিরক্ষা বাহিনীকেও অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দেওয়া হবে। এছাড়াও সীমানা নির্ধারণের ক্ষেত্রে ভোটার অনুপাতে সীমানা পুনর্বিন্যাস কিংবা ২০০৮ সালের পূর্বের অবস্থানে ফিরে যাওয়ার বিষয়টিতে জোর দেবে।
অন্যদিকে প্রস্তাবনায় নির্বাচনের সময়সূচি ঘোষণার প্রাক্কালে নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় যেমন স্বরাষ্ট্র, অর্থ, তথ্য, জনপ্রশাসন, স্থানীয় সরকার, শিক্ষা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা, পররাষ্ট্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদ ও গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ১৯৭২-এর ৫ অনুচ্ছেদ অনুসারে নির্বাচন কমিশনের চাহিদা অনুযায়ী কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকতে হবে। সাধারণ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার তারিখ থেকে নির্বাচিত নতুন সরকার দায়িত্ব না নেওয়া পর্যন্ত এ ব্যবস্থা বলবৎ থাকবে।
একইভাবে নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রতিটি স্তরে নিরপেক্ষ কর্মকর্তার নিয়োগ নিশ্চিত করা এবং ভোট গণনার পদ্ধতিকে আরও আধুনিক করার বিষয়গুলোর ওপর জোর দেওয়া হবে।
প্রস্তাবনার বিষয়ে দলের ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘ইসি যতই শক্তিশালী হোক দলীয় সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে না। দেশে দলীয় সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত নির্বাচন দেখে জনগণ অন্তত সেটিই মনে করে। তাই ইসির সঙ্গে বিএনপির সংলাপে নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়টির ওপর আমরা ফোকাস করব।’
নির্বাচনকালীন সরকার কোন ধরনের হবে এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন কী ভ‚মিকা পালন করবে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন পরিচালনা করবে কমিশন, কিন্তু সেক্ষেত্রে তারা কোন ধরনের সরকারের অধীনে ভালো নির্বাচন আয়োজন করতে পারবে তার ওপর তাদের সদিচ্ছাও প্রকাশ হবে।
দুদু আরও বলেন, ‘এর বাইরেও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য বিএনপির পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনকে অধিকতর শক্তিশালী করার বিষয়ে আরও বেশ কিছু প্রস্তাব তুলে ধরা হবে সংলাপে।’

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪