ইসিকে আস্তায় চায় আওয়ামী লীগ

1506353370
যুগের খবর ডেস্ক: নির্বাচন কমিশনের কাজই নির্বাচন করা। সংবিধানে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রতিষ্ঠানটিকে সুনির্দিষ্ট দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাই জাতীয় নির্বাচনের ক্ষেত্রে শুধু নির্বাচন কমিশনকেই মুরব্বি হিসেবে আস্থায় নিতে চান ক্ষমতাসীনরা। সংবিধান অনুযায়ী আগামী বছরের শেষ দিকে একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ঘোষিত রোডম্যাপ অনুযায়ী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিক সংলাপ করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এ পর্যন্ত ১৮টি রাজনৈতিক দল, গণমাধ্যম প্রতিনিধি ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করছে ইসি। আগামী ১৮ অক্টোবর সর্বশেষ দল হিসেবে সরকারি দলের সঙ্গে বসতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন।
আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক গণমাধ্যমকে বলেন, নির্বাচন কমিশনের ডাকা সংলাপে সংবিধানের মধ্যে থেকে আলোচনা করব। সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করার প্রয়োজনীয় প্রস্তাব দেব।
অনুষ্ঠিতব্য সংলাপের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগ এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। বন্যা, রোহিঙ্গা এবং দলীয় প্রধানের নিউইয়র্ক সফরকে কেন্দ্র এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত বিলম্বিত হয়ে পড়েছে। তবে, দলটির নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশনকে কীভাবে আরও বেশি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা যায় অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে তেমন একটি প্রস্তাব গুরুত্বের সঙ্গে উপস্থাপন করবে ক্ষমতাসীনরা। সংসদ নির্বাচন নিয়ে নানান দল, ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের মত আসছে। নির্বাচন কমিশনই যে নির্বাচনী আস্থার শেষ আশ্রয়স্থল, সেই সংস্কৃতি চালু করতে চায় আওয়ামী লীগ।
আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকদের মধ্যে সবার সিনিয়র আহমদ হোসেন। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, সংবিধানে নির্বাচন কমিশনকেই নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এমন একটি প্রতিষ্ঠানকে পাশ কাটিয়ে যারা নানা ধরনের ফর্মুলার খোঁজে সময় ব্যয় করছেন তারা সংবিধানকে অপমান করছেন। তিনি বলেন, যদি চলমান আইন-কানুন এবং সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে আনুষঙ্গিক কোনো পরিবর্তন-পরিবর্ধন করতে হয় সেটা ভিন্ন বিষয়। আমরাও সেদিকে খেয়াল রেখে প্রস্তুতি নিচ্ছি। দলের সর্বোচ্চ ফোরামে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।
সংবিধানের সপ্তম ভাগের পুরোটাই নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয়াবলি সম্পর্কে দিকনির্দেশনা দেওয়া আছে। ১১৯ অনুচ্ছেদের (১) দফায় নির্বাচন কমিশনের চারটি দায়িত্বের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথমত, রাষ্ট্রপতি পদের নির্বাচন অনুষ্ঠান, সংসদ সদস্যদের নির্বাচন, নির্বাচনী এলাকার সীমানা নির্ধারণ এবং রাষ্ট্রপতি এবং সংসদ নির্বাচনের জন্য ভোটার তালিকা প্রস্তুত করা। এর বাইরে আইন দ্বারা নির্ধারিত দায়িত্ব পালন করতে পারে ইসি।
সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদে ‘নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব পালনে সহায়তা করা সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষের কর্তব্য হইবে’। খোদ সংবিধানেই যেখানে নির্বাচন অনুষ্ঠানে নির্বাহী বিভাগকে সহায়তা করতে নির্দেশনা দেওয়া আছে, সেখানে নতুন কোনো কর্তৃপক্ষ বানানো চিন্তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় বলে দাবি করছে সরকারি দল।
আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তব্যের মাধ্যমেও নিজেদের অবস্থান পরিষ্কারভাবে বলছেন। নেতাদের দাবি, বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান থাকবেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নির্বাচনের সময় সেনাবাহিনীকে নির্বাহী ক্ষমতা নয়, স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে রাখার প্রস্তাব নির্বাচন কমিশনে রাখবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।
আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সফর শেষে এখন যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থান করছেন। সেখান থেকে লন্ডন হয়ে আগামী ২ অক্টোবর দেশে ফেরার কথা রয়েছে। শেখ হাসিনা দেশে ফিরলেই কার্যনির্বাহী বৈঠক ডেকে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপের বিষয়ে দলের পক্ষ থেকে উত্থাপনের জন্য চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
আওয়ামী লীগের মধ্যম সারির কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিদের মতবিনিময়ের আলোচনার দিকেও নজর রাখছে সরকারি দল। তবে, নির্বাচন কমিশনে সবার শেষে সংলাপ করার সুযোগ থাকায় বিএনপি ইসির কাছে কী ধরনের প্রস্তাব দেয় সেই বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে পর্যবেক্ষণ করতে চায় আওয়ামী লীগ। বিএনপির দেওয়া প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে প্রয়োজন হলে আওয়ামী লীগ তার প্রস্তাবের কিছু যোগ-বিয়োগ করতে পারে।
কিন্তু কিছু বিষয়ে আওয়ামী লীগ পূর্ব নির্ধারিত অবস্থান বদলাবে না। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীকে বাইরে রেখে নির্বাচনকালীন ‘সহায়ক সরকার’ এবং নির্বাচনের সাত দিন আগে সেনাবাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দেওয়ার মতো বিষয়গুলো আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রত্যাখ্যান করা হবে। তবে, ইভিএম ব্যবহার, অভিন্ন পোস্টারসহ বিভিন্ন প্রস্তাবে নমনীয় অবস্থানে থাকবে সরকারি দল।
গত ২৪ আগস্ট থেকে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করছে ইসি। তারই অংশ জাতীয় পার্টির সঙ্গে ৯ অক্টোবর, বিএনপির সঙ্গে ১৫ অক্টোবর ও আওয়ামী লীগের সঙ্গে ১৮ অক্টোবর সংলাপে বসবে নির্বাচন কমিশন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪