সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের ১ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ

Kurigram-Sayed-Samsul-Haque-photo-2-26.09.17

আরিফুল ইসলাম সুজন: সব্যসাচী লেখক, কথাশিল্পী, কবি সৈয়দ শামসুল হকের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বুধবার। শিল্পকলা একাডেমিসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটিকে নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে পালন করবে।
দেশ বরেন্য এ লেখক গত বছরের (২০১৬) ২৭ সেপ্টেম্বর ৮২ বছর বয়সে রাজধানী ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। এর আগে তিনি প্রায় ৪ মাস লন্ডনের রয়্যাল মার্সডেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ফুসফুসের সমস্যা দেখা দিলে ২০১৬ সালের ১৫ এপ্রিল তাকে লন্ডন নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষার তার ফুসফুসে ক্যান্সার ধরা পড়ে।
তার ইচ্ছানুযায়ী জন্ম শহর কুড়িগ্রামের সরকারী কলেজ মাঠে গত বছর ২৮ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়। কলেজ চত্বরে কবির সমাধীকে ঘিরে স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মান করে তার সকল সাহিত্য কর্ম সংরক্ষন করার দাবী এ জেলার মানুষের।
১৯৩৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর কুড়িগ্রাম শহরের থানা পাড়ায় জন্ম গ্রহন করেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। হোমিও চিকিৎসক সৈয়দ সিদ্দিক হোসেন ও মাতা নুর জাহানের ৫ সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন সবার বড়। ধরলা নদীর পাড়ে শৈশব কাটানো এ কবি শহরের রিভার ভিউ হাই স্কুলে নবম শ্রেনী পর্যন্ত পড়ালেখার পর পাড়ি জমান ঢাকায়। সেখানে লেখাপড়ার পাশাপাশি মনোযোগী হন লেখালেখিতে। একে একে তার পদচারনা হতে থাকে গল্প, কবিতা, গান ও নাটকসহ সাহিত্যের সকল অঙ্গনে। তার লেখায় ফুটে ওঠে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনসহ সাধারন মানুষের কথা। রচনা করেন নাটক নুরুলদীনের সারা জীবন, পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়সহ হায়রে মানুষ রঙ্গীন ফানুসের মত জনপ্রিয় গান। গুনী এ লেখক তার সাহিত্য কর্মের মধ্য দিয়েই বেঁচে থাকবেন মানুষের মাঝে। এখন অপেক্ষা সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় তার স্মৃতি ধরে রাখা। কলেজ চত্বরে কবির সমাধীকে ঘিরে স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মান করে তার সকল সাহিত্য কর্ম সংরক্ষন করার দাবী জানিয়েছেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট কুড়িগ্রাম জেলা শাখার আহবায়ক শ্যামল ভৌমিক।
কবিতা, উপন্যাস, নাটক, ছোটগল্প, চলচ্চিত্র, গান, অনুবাদসহ সাহিত্যে-সংস্কৃতির বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাঁর সাবলীল পদচারণার জন্য তাঁকে ‘সব্যসাচী’ লেখক বলা হয়ে থাকে। তার লেখকজীবন প্রায় ৬২ বছরব্যাপী বিস্তৃত।
সংস্কৃতি কর্মী দুলাল বোস, ইমতে আহসান শিলু সব্যসাচী এ লেখককে তার জন্ম শহর কুড়িগ্রামের কলেজ মাঠে সমাহিত করায় গর্ব বোধ করেন।
কুড়িগ্রাম সরকারী কলেজের সহকারী অধ্যক্ষ, মির্জা নাসির উদ্দিন বলেন, কবির সমাধিকে ঘিরে স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মিত হলে বহুমাত্রিক এ লেখককের সাহিত্য চিন্তা সমৃদ্ধ করবে কুড়িগ্রাম সরকারী কলেজের শিক্ষার্থীসহ দেশের সকল সাহিত্য অনুরাগীদের।
সম্প্রতি কবির সমাধি স্থল পরিদর্শন করে সমাধী ঘিরে এক একর জমির উপর সৈয়দ শামসুল হক স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মানের সরকারী সিদ্ধান্তের কথা জানান সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর।
অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, বাঙালী মধ্যবিত্ত সমাজের আবেগ-অনুভূতি-বিকার সবকিছুই খুব সহজ কথা ও ছন্দে সৈয়দ হক তার লেখনীতে তুলে এনেছেন। তিনিই প্রথম নতুন উদ্দীপনায় মধ্যবিত্তের কথা ভালো করে বললেন এবং মধ্যবিত্ত জীবনের বিকারকেও ধরলেন।
তাঁর আগের বড় লেখকেরা সকলেই গ্রামকেন্দ্রিক উপন্যাস বা গল্প লিখেছেন। কিন্তু তিনি তাঁর রচনায় সমসাময়িক বাংলাদেশকে তুলে এনেছেন।
কথাশিল্পী আনিসুল হক বলেন, সৈয়দ শামসুল হকের প্রবন্ধ, উপন্যাস তাকে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করেছে। ভাষার ব্যবহার ও নিয়ম নিয়ে তিনি একাধিক বই লিখেছেন। বিদেশে এ ধরণের অনেক বই পাওয়া যায়, কিন্তু বাংলাদেশে লেখালেখির করণ কৌশল, কিভাবে লিখতে হয়, সে বিষয়ে তেমন কোন বই ছিল না। সৈয়দ হকই একমাত্র লেখক যিনি এ বিষয়ে আমাদের দৃষ্টি প্রথম আকর্ষণ করেন।
নাট্যব্যক্তিত্ব নাসিরউদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু বলেন, নাট্যকার হিসেবেও সৈয়দ হক ছিলেন দারুণ সফল। বিশেষ করে তাঁর রচিত দুটি কাব্যনাট্য ‘নুরলদিনের সারাজীবন’ এবং ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’ বাংলা নাটকে একটি বিশেষ স্থান দখল করে রয়েছে।
কবি অধ্যাপক মোহাম্মদ সামাদ বলেন, সৈয়দ হক তাঁর কবিতা দিয়ে বারবার সাড়া ফেলেছেন। ১৯৭০ সালে প্রকাশিত তাঁর কাব্যগ্রন্থ ‘বৈশাখে রচিত পঙক্তিমালা’, আধুনিক সময়ের কোন কবির এত দীর্ঘ কবিতা বেশ বিরল। তার এই কাব্যগ্রন্থের কারণে তিনি তখন আদমজী পুরস্কার লাভ করেন। তার আরেক বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থ ‘পরানের গহীন ভিতর’ দিয়ে তিনি তাঁর কবিতায় আঞ্চলিক ভাষাকে উপস্থাপন করেছেন।
তাঁর প্রথম লেখা একটি গল্প, যা ১৯৫১ সালে ফজলে লোহানী সম্পাদিত ‘অগত্যা’ নামে একটি ম্যাগাজিনে ছাপা হয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালে তাঁর প্রথম উপন্যাস ‘দেয়ালের দেশ’ প্রকাশিত হয় ১৯৫৬ সালে। ১৯৬৬ সালে তিনি মাত্র ২৯ বছর বয়সে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন। বাংলা সাহিত্যে অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ সরকার তাঁকে একুশে পদক এবং ২০০০ সালে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত করেন।
তিনি ১৯৫৯ সালে মাটির পাহাড় চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য লিখেন। এরপর তোমার আমার, শীত বিকেল, কাঁচ কাটা হীরে, পুরস্কার, ক খ গ ঘ ঙ, বড় ভাল লোক ছিলসহ আরও বেশ কিছু চলচ্চিত্রের কাহিনী, চিত্রনাট্য ও সংলাপ লিখেন। ‘বড় ভাল লোক ছিল’ ও ‘পুরস্কার’ এ দুটি চলচ্চিত্রের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।
চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য লেখার পাশাপাশি তিনি চলচ্চিত্রের জন্য গানও রচনা করেছেন। এখানেও তিনি সফল হয়েছেন এবং পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।
তিনি ১৯৭১ সালের নভেম্বর মাসে বাংলাদেশ ত্যাগ করে লন্ডন চলে যান এবং সেখানে বিবিসির বাংলা খবর পাঠক হিসেবে কাজ করেন। তিনি ১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আত্মসর্মপণের খবরটি পাঠ করেছিলেন। পরে ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত বিবিসি বাংলার প্রযোজক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
সৈয়দ হকের প্রথম মৃত্যু বাষিকী উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন, কুড়িগ্রাম সরকারী কলেজ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান নানা কর্মসূচীর আয়োজন করেছে।
গুনী এ লেখকের সকল সৃষ্টি তরুন প্রজন্মসহ সকল মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে তার সমাধীকে ঘিরে দ্রুত স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মান করবে সরকার, এমনটাই চাওয়া তার জন্মশহর কুড়িগ্রামের মানুষের।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪