চিলমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের ভরসা নার্স-আয়া ও ভাড়াটে ডাক্তার

haspatal 27-09-17

স্টাফ রিপোর্টার: কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের প্রায় ২ লাখ মানুষের চিকিৎসা সেবার জন্য একমাত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির বেহাল দশা। দিনে কদাচিৎ দু’একজন চিকিৎসক মিললেও রাতে নার্স আয়া নির্ভর হয়ে পড়ছে গোটা হাসপাতাল। ইদানীং ভাড়াটে ডাক্তার দ্বারা হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দেয়ারও প্রমাণ মিলছে। সার্বক্ষনিক চিকিৎসক না থাকা এবং রাতে নির্ধারিত ডাক্তারের পরিবর্তে ভাড়াটে ডাক্তার দ্বারা চিকিৎসা দেয়া, দীর্ঘদিন যাবৎ হাসপাতালটিতে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার পদ শূন্য থাকায় বর্তমানে অগোছালো স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির প্রশাসনিক চেইন অব কমান্ড ভেঙ্গে পড়েছে।
৫০ শয্যার এই হাসপাতালটিতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ মোট চিকিৎসকের পদ ২৫টি থাকলেও সেখানে মাত্র ৩জন চিকিৎসক দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালটি খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে। সম্প্রতি আরএমও এবং স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা ডাঃ মোস্তারী বেগম ২মাসের প্রশিক্ষনে গেলে ডাঃ আব্দুস সালাম হাসপাতালটির সার্বিক দায়িত্ব পান। তিনি রাতে ক্যাম্পাসে নির্দিষ্ট বাসা থাকলেও থাকেন রাজারহাট উপজেলায় তার নিজ বাড়ীতে। বাকী সময় দু’ একজন মেডিকেল এ্যাসিসটেন্ট থাকলেও তারা নিজ খেয়াল খুশি মতো আসা যাওয়া করেন। ফলে রোগীদের একমাত্র ভরসা হয়ে উঠেন নার্স ও আয়ারা। ৬ ইউনিয়নের উপজেলার তিনটি ইউনিয়নই ব্রহ্মপুত্র নদ দ্বারা বিচ্ছিন্ন। বিভিন্ন চরাঞ্চল থেকে রোগীরা অনেক কষ্টে হাসপাতালে এসে চিকিৎসকের অভাবে বিনা চিকিৎসায় ফিরে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। প্রতিদিন নানা রোগ নিয়ে দেড় থেকে দুইশ’ রোগী এ হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে আসেন। প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসক না থাকা এবং যারা আছেন তাদের গাফিলতির ফলে চিকিৎসা সেবা জোটেনা অনেক রোগীর ভাগ্যে। নিরুপায় রোগিদের অনেকেই বাড়তি পয়সা খরচ করে চিকিৎসা নিচ্ছেন বেসরকারি ক্লিনিক কিংবা অন্যত্র। বেশ কিছু দিন যাবৎ অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছিল, সরকারী চাকুরী করেন না এবং এমবিবিএস পাশ করেননি-জেলা সদরের বিভিন্ন ক্লিনিক থেকে এমন জাতীয় লোক ভাড়া করে রাতে হাসপাতালটি চালানো হচ্ছে। গত সোমবার রাতে হাসপাতালটিতে গিয়ে এই অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে।
সোমবার সন্ধ্যায় ইসমত আরা নামে এক জরুরী রোগী হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে গেলে মোস্তাইন বিল্লাহ নামে এক ব্যক্তিকে সেখানে চিকিৎসা সেবা দিতে দেখা যায়। তার পরিচয় জানতে চাইলে তিনি নিজেকে সেকমো হিসাবে পরিচয় দিয়ে  বলেন, আমার সরকারী চাকুরী হয়নি। ডাঃ সালাম ভাই আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। তিনি কুড়িগ্রাম সদরের সেবা ক্লিনিকে কাজ করেন মর্মে জানান।
ভাড়াটে ও সরকারী নিয়োগহীন ব্যক্তি দ্বারা হাসপাতাল চলছে বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় জনসাধারনের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ভাড়াটে যে ব্যক্তিটি চিকিৎসাসেবা দিচ্ছিল তার চিকিৎসা দেয়ার বৈধতা আছে কি না তা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। হাসপাতালে চাকুরীজীবি নন এমন ব্যক্তিকে রাতে গোটা হাসপাতালের দায়িত্ব দেয়ার বিধান আছে কি নেই এবিষয়ে জানতে চাইলে ডাঃ সালাম মোবাইলে জানান, আমি টিএইচও’র দায়িত্বে আছি, তাই আমার ডিউটি নেই। ডাক্তার না থাকায় নিজ অর্থায়নে মোস্তাইনকে দায়িত্ব দিয়েছি। তবে তাকে দায়িত্ব দেয়ার বিধান নেই।
এব্যাপারে কুড়িগ্রাম সিভিল সার্জন ডাঃ আমিনুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, মোস্তাইন বিল্লাহকে দিয়ে আউটডোর দেখানো যেতে পারে, জরুরী বিভাগে থাকা যাবে না। আমি এখনই ডাঃ সালামকে পাঠিয়ে দিচ্ছি।
বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মির্জা মুরাদ হাসান বেগ এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলেছি, তিনি ডাঃ সালামসহ রাতেই চিলমারী আসছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাতে তিনি কিংবা ডাঃ সালাম চিলমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন নাই। যে সব রোগীরা আর্থিক কারণে অন্যত্র চিকিৎসা নিতে পারেন না তারা অগত্যা এই হাসপাতালে থেকে যান। তাদের সব ঔষুধ বাইরে থেকে কিনতে হয় মর্মে অভিযোগ আছে। ফলে প্রতিদিন প্রাথমিক চিকিৎসা টুকুও  না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে হতভাগ্য অনেক রোগীকে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪