চিলমারীতে আমন ক্ষেতে পোকার ব্যাপক আক্রমন ॥ কৃষকরা দিশেহারা

jomi-2

এস, এম নুআস: কুড়িগ্রামের চিলমারীতে প্রায় ৩ হাজার হেক্টর আমন ক্ষেতে ব্যাপকভাবে পোকার আক্রমণ দেখা যাচ্ছে। রোগ বালাই নাশক বিভিন্ন প্রকার কীটনাশক ঔষধ প্রয়োগ করেও প্রতিকার না হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে কৃষকরা।
স্থানীয় কৃষি অফিসের সূত্র মোতাবেক, এবারে চলতি আমন মৌসুমে প্রায় ৮ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চারা রোপন করা হয়। কিন্তু মৌসুমের শুরুতেই কয়েক দফা বন্যা হওয়ায় কৃষকদের বিভিন্ন প্রকারের ফসলহানিসহ ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। তারপরও কৃষকরা জীবন বাঁচানোর তাগিদে ধার দেনা করে দূর-দূরান্ত থেকে অত্যন্ত চড়া দামে আমন ধানের চারা সংগ্রহ করে রোপন করেন। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে পরিচর্যার মধ্যদিয়ে পূর্ণাঙ্গ ক্ষেতে পরিণত করে। কিন্তু গত দু’সপ্তাহের প্রাকৃতিক বৈরী আবহাওয়ার কারণে আমন ক্ষেতে শুরু হয় পাতা মোড়ানো পোকা, পাতা পোড়া রোগ ও মাজরা পোকার আক্রমণ। নিমিশেই তা ছড়িয়ে পরে ব্যাপক আকার ধারন করে। উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের দক্ষিন খামার এলাকার আব্দুল মজিদ (৫০) প্রায় ২ একর জমিতে আমন ধান রোপন করে। এরমধ্যে এক’শ বিশ শতক জমিতে পোকা আক্রমণ করে বিনষ্ট করেছে। একই এলাকার ইসাহক আলী ( ৫৫) মোনাফ আলী (৪৫), নুরু মিঞা (৪০), মাজেদুল ইসলাম (৫২) জানান, তাদের সকলের ক্ষেতে ব্যাপক পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। থানাহাট ইউনিয়নের জাহেদুল (৪০), মশিউর রহমান (৫২) ও সাজু মিঞা (৫০) জানান, তাদের জমিতে পোকার আক্রমণে প্রায় সম্পূর্ণ ক্ষেতের ধানই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কীট নাশক ঔষধ প্রয়োগ করেও কোন লাভ হচ্ছে না।  ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা জানান, যে সব ক্ষেতে পোকার আক্রমণ হয়েছে, সে সব ধানক্ষেত দূর থেকে দেখলে মনে হয় ধান পাকার পর পাতা শুকিয়ে গেছে। কিন্তু তা নয়, ধানের শীষ বেড় না হতেই ধান গাছের পাতা শুকিয়ে যায়। আবার কিছু কিছু ধান ক্ষেতে ধান বের হওয়ার পর এ রোগ আক্রমণ করায় সব শীষের ধান চিটা হচ্ছে। বাধ্য হয়ে কৃষকরা রোগ প্রতিরোধের জন্য বিভিন্ন কীটনাশক ঔষধ প্রয়োগ করেও ফল না পাওয়ায় উপজেলা কৃষি বিভাগে যোগাযোগ করছেন। কৃষি বিভাগের পরামর্শ মোতাবেক ডাচবান, মর্টার, সেবিন, মেলাথিওন জাতীয় কীট নাশক ঔষধ জমিতে স্প্রে করেও তেমন কোন ফল পাচ্ছেন না। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ খালেদুর রহমান জানান, এই উপজেলায় মাত্র ৫ হেক্টরের মতো জমিতে পোকার আক্রমণ হয়েছে, যা তুলনামূলকভাবে অনেক কম। কৃষকদের জমি শুকিয়ে নিতে হবে। জমিতে পাখি বসার জন্য শুকনো ডাল পুঁতে দিতে হবে, আলোক ফাঁদ কার্যক্রম চালাতে হবে মর্মে কৃষকদেরকে পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। উপজেলায় ৬টি ইউনিয়নে ইতোমধ্যে পরামর্শ কেন্দ্র খোলা হয়েছে। আশা করছি খুব শীঘ্রই কৃষকরা এই রোগ বালাইয়ের আক্রমণ থেকে কাটিয়ে উঠবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪