এমসিকিউ নয়, লিখিত পরীক্ষার পক্ষে ইউজিসি

1509454742

যুগের খবর ডেস্ক: লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সুপারিশ করতে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। প্রশ্নপত্র ফাঁস ও জালিয়াতি বন্ধে ইউজিসির বার্ষিক প্রতিবেদনে এ সুপারিশ চূড়ান্ত করা হয়েছে।
এমসিকিউ (বহুনির্বাচনী প্রশ্ন) পদ্ধতির পরিবর্তে আগের মতো লিখিত পরীক্ষা নেওয়ার এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে বিভিন্ন পাবলিক বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্যরা। একই সঙ্গে শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাঘব ও সঠিক মেধা যাছাইয়ে সমন্বিত বা গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সুপারিশ করবে ইউজিসি।
ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান আজকালের খবরকে বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় অনিয়ম ও জালিয়াতি বন্ধে আমরা কাজ করছি। প্রশ্নপত্র ফাঁস ও জালিয়াতি বন্ধে ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি পরিবর্তনে উপাচার্যরা একমত হয়েছেন। তাদের মতামত নিয়ে সুপারিশ করা হবে।
তিনি আরও বলেন, গত বছর বার্ষিক প্রতিবেদন আচার্য রাষ্ট্রপতির কাছে তুলে দেওয়ার সময় তিনি সমন্বিত পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষার পক্ষে ইচ্ছে প্রকাশ করেন। বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসিরা একমত না হওয়ায় এবার বাস্তবায়ন করা যায়নি। তবে আগামী বছর থেকে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিরা গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিতে সম্মত হয়েছেন। সমন্বিত বা গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন করতে শিগগিরই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের নিয়ে সভার আয়োজন করা হবে।
তিনি বলেন, এক এক বিশ্ববিদ্যালয় বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন করছেন। এতে করে সঠিক মেধার মূল্যায়ণ হচ্ছে না। শিক্ষার্থীরাও হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এসব সমস্যা দূর করতেই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
ইউজিসি সূত্রে জানা গেছে, উচ্চশিক্ষার মান উন্নয়নে প্রতি বছর ইউজিসি সকল বিশ^বিদ্যালয় পর্যবেক্ষণ করে বার্ষিক প্রতিবেদন তৈরি করে। ২০১৬ শিক্ষাবর্ষের বার্ষিক প্রতিবেদন তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আগামী ডিসেম্বরে প্রতিবেদনটি রাষ্ট্রপতির কাছে হস্তান্তর করা হবে।
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক শঙ্কট গুনগত শিক্ষার প্রধান অন্তরায় অভিহিত করে প্রতিবেদনে বেশ কিছু সুপারিশ করা হয়েছে। এগুলো হলো-শিক্ষকরা ছুটি নিলে বা শিক্ষক শঙ্কট দেখা দিলে অন্য বিশ^বিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের সেখানে পাঠাদানের ব্যবস্থা করা; দেশের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদদের লেকচার বা ক্লাসের পাঠদান মাল্টিমিডিয়া পদ্ধতিতে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রচারের ব্যবস্থা করা; ইউডিএলের (ইউনিভাসিটি ডিজিটাল লাইব্রেরি) মাধ্যমে দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে সংযোগ স্থাপন করা; ই-জার্নাল ও ই-বুক প্রযুক্তি সহজ করা। এছাড়া বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে শিক্ষক শঙ্কট থাকায় এ বিষয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব করা হয়েছে।
প্রতি বছরই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগ উঠে। এমসিকিউ প্রশ্ন হওয়ায় খুব সহজেই প্রযুক্তির মাধ্যমে পরীক্ষা চলাকালীন বাইর থেকে পরীক্ষার্থীদের উত্তর সরবরাহ করা হয়। এতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে উচ্চশিক্ষায়। প্রশ্ন তৈরি নিয়েও নানা বিতর্ক রয়েছে। গত বুধবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ‘আই’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ৭৬ নম্বর প্রশ্নে বলা হয়েছে, ‘পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ গ্রন্থের নাম কি?’ চারটি বিকল্প উত্তর হিসেবে দেওয়া হয়েছে-পবিত্র কোরআন শরিফ, পবিত্র বাইবেল, পবিত্র ইঞ্জিল ও গীতা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় বইছে। প্রতিবছরই এ ধরনের বিতর্কিত প্রশ্ন করা হয়।  এসব কারণেই এমসিকিউ পদ্ধতি বাতিল করে আগের মতো লিখিত পরীক্ষা নেওয়ার সুপারিশ তৈরি করেছে ইউজিসি।
ইউজিসির উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আকতারুজ্জান বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি বন্ধে ওপেন বুক পরীক্ষা পদ্ধতি বিভিন্ন দেশে চালু রয়েছে। আমাদের দেশেও এ পদ্ধতি চালু করা যেতে পারে। সমন্বিত ভর্তি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় ত্রæটির কারণে শিক্ষার্থীদের ইচ্ছার বাইরে ভিন্ন বিষয়ে  পড়তে হচ্ছে। শিক্ষার্থীকে জোর করে পড়িয়ে তার কাছে ভালো কিছু আশা করা যায় না।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, লিখিত পরীক্ষায় নম্বর কমবেশি দেওয়ার অভিযোগের প্রেক্ষিতে এমসিকিউ পদ্ধতি চালু করা হয়। এ পদ্ধতিও ক্রটিপূর্ণ। এভাবে পরীক্ষা নেওয়ার কোনো মানে নেই। মেডিকেলের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা না নিয়ে গুচ্ছপদ্ধতিতে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, সাধারণ পাবলিক, প্রযুক্তি ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়কে তিনটি গুচ্ছে ভাগ করে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন করা যেতে পারে। এতে করে শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষার জন্য দৌড়ঝাপ বন্ধ হবে। অভিভাবকদের অর্থের সাশ্রয় হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪