আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের ভারসাম্য রাখতে জীবনের ছক বদলেছে নিম্ন মধ্যবিত্তের

235728kalerka

যুগের খবর ডেস্ক: ‘পেঁয়াজের কেজি ৯০ টাকায় ঠেকেছে খুচরা বাজারে। আগে যখন পেঁয়াজের দাম বাড়তো তখন তার বদলে তরকারিতে মিষ্টি কুমড়া দিতাম ঝোল ঘণ করার জন্য। এবার সে উপায়ও নেই। মিষ্টি কুমড়ার দামও ৪০ টাকা। বিলাসিতা নয় বেঁচে থাকার জন্য নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপন্যের অস্বাভাবিক দামের কারণে জীবনের সব ছক বদলে গেছে আমাদের মত নি¤œ মধ্যবিত্ত্ব পরিবারের মানুষদের’ – কথাগুলো বলছিলেন বগুড়া শহরের ঠনঠনিয়া এলাকার গৃহবধূ পলিন আকতার।

পলিন আকতারের মত একই কথা বললেন নামাজগড় রোডের কাগজের ব্যবসায়ী মোঃ শফিক আল হাসান । তিনি বলেন ‘আমাদের মত অল্প আয়ের মানুষের অবস্থা না ঘরকা না ঘাটকা। গেল এক বছরে চাল, আটা, সবজি, পেঁয়াজ ও গ্যাসের দামসহ প্রায় সব ধরনের নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্য পণ্যের দাম অস্বাভাবিকহারে বেড়েছে। সামনে আসছে ডিসেম্বর মাস। ছেলে-মেয়ের স্কুলের দুই মাসের বেতন একসাথে দিতে হবে। সেই সাথে বড় অংকের টাকার সেশন ফি তো আছেই। কিন্তু আমাদের বেতন এবং আয় সেই আগের মতই। মাসের খরচ মিটিয়ে বাড়তি এক টাকাও হাতে থাকে না। এই বাড়তি চাপ কেমন করে নেবো ?’

বগুড়ার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সেলস্ম্যানের চাকরি করেন হাবিব রহমান। থাকেন বগুড়ার কামারগাড়ীতে। তিনি বলেন ‘আগে শহরে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতাম আড়াই হাজার টাকায়। এবছর তা বেড়ে সাড়ে ৩ হাজার হয়েছে। ছেলে মেয়েদের স্কুল, প্রাইভেট, খাতা-কলম, যাতায়াত খরচ বেড়েছে। এরসাথে আছে জ্বালানি খরচ, বিদ্যুত বিল। এর ওপর সারা বছরের অস্বাভাবিক খাবার-দাবারের দাম বৃদ্ধি। আমরা কোথায় যাব ? কেমন করে চলবো ? কিছুই মাথায় আসে না।’

বলা হয়ে থাকে ঘরে যদি ভাত, আলু আর লবণ থাকে তবে আর কিছু না থাকলেও গরিবের চলে। সে প্রবাদকে পেছনে ফেলে এবছর ভোগ্যপণ্যের দামের শীর্ষে রয়েছে চাল। সারাটা দিন শহরে রিক্সা চালিয়ে আয় হয় ৩শ’ থেকে ৪শ’ টাকা। পরিবারের সদস্য সংখ্যা ৬জন। দিনে প্রায় ৪ কেজির মত চাল লাগে। চাল-ডাল, লবণ, মরিচ কিনে খালি হাতে বাড়ি ফিড়তে হয়। দুটো ছেলে মেয়ে স্কুলে পড়ে। তাদের খরচ, বৃদ্ধ মায়ের ওষুধ। এগুলো কই থেকে আসবে। প্রতিদিন হাত পাততে হয় ধারের জন্য মহাজনের কাছে।
বগুড়ার চাল ব্যবসায়ীরা জানান, এক বছরে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ১৩ টাকা থেকে ১৮ টাকা। বাজারগুলোতে বর্তমানে বিভিন্নজাতের চাল ৪৪ টাকা থেকে ৭০ টাকা।
গেল বছরের অক্টোবরের সাথে চলতি অক্টোবরের তুলনা করে সরকারি সংস্থা  টিসিবির হিসেব মতে, বিভিন্ন জাতের চালের দাম বেড়েছে ১৮ থেকে সাড়ে ২৩ শতাংশ, পেঁয়াজের দাম ১৬০ শতাংশ, আদা ৫২ শতাংশ, খোলা সাদা আটা ৯ শতাংশ, বোতলজাত সয়াবিন ৮ শতাংশ। টিসিবির হিসাবে মোটা চাল ৪৪ টাকা থেকে ৪৬ টাকা, সরু চাল ৫৮ থেকে ৬৫ টাকা, আটা ২৮ থেকে ৩৪ টাকা, ময়দা ৩৪ থেকে ৪৪ টাকা, ১লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল ১০৪ টাকা থেকে ১০৯ টাকা, দেশি মসুর ডাল ১০০ থেকে ১৩০ টাকা, মুগডাল ১০০ থেকে ১৫০টাকা, পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৮৫ টাকা,গরুর মাংশ ৫শ’ খাসির মাংশ ৭৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। টিসিবি’র এই হিসেবের বেশি দামে পণ্য বিক্রি হচ্ছে বাজারে।

এছাড়াও বিভিন্ন সবজি যেমন-বেগুন মানভেদে ৮০ টাকা, পটল, মূলা ৪০ ও ঝিংগা ৬০, কচুমুখি ২০ থেকে ২৫, করলা ও বরবটি ৬০, বাঁধাকপি ৬০, ফুলকপি ৮০, মিষ্টি লাউ ৪০, টমাটো ১৪০, ছিম ১২০, পেঁপেঁ ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। স্থিতিশীল আছে সব ধরনের আলুর দাম। কার্ডিনাল আলু ১৬ এবং পাকড়ি আলু ২৪ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা যায়। নতুন জাতের দেশি আদা ৭০ থেকে বেড়ে ৮০ এবং আমদানিকৃত ইন্দোনেশিয়ান আদা ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর পালংশাক ৬০ এবং লালশাক ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা যায়।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে গ্যাসের দাম ৬০ শতাংশ বাড়িয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন। তা গত মার্চ মাস থেকে কার্যকর করা হয় এ দাম। আগে আবাসিক গ্রাহকদের সিঙ্গেল চূলার দাম  ৬শ’ ও ডাবল চূলার দাম ৬শ’ ৫০ টাকা পরিশোধ করতে হতো। সেখানে বর্ধিত দর অনুযায়ী সিঙ্গেল চূলার দাম ৭শ’৫০টাকা আর ডাবল চুলার দাম ৮শ’ টাকা পরিশোধ করতে হচ্ছে। এছাড়াও আবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারা চলছে।

লাগামহীভাবে নিত্যপণ্যের  দাম বাড়ছে। বর্তমানে চালের দাম কিছুটা কমলেও তা এখনও গরিবের ধরা ছোঁয়ার বাইরে। দুই দফা বন্যার কারণে শীতের শুরুতে এসেও দামের ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই শাক-সবজির দামও। চালের সাথে সাথে কাঁচা মরিচ ও পিয়াজের ঝাঁঝ আছে প্রায় বছর জুড়েই। সবজির সহজ লভ্যতার দেশেও গরিবের সবজি কেনা এখন এক ধরনের বিলাসিতা হয়ে পড়েছে। এক বছরের ব্যবধানে প্রতিটি সবজির দামই বেড়েছে দ্বিগুণ। জীবন যাত্রার ব্যয় বাড়ার কারণে হিমসিম খাচ্ছে স্বল্প আয়ের মানুষ। আয়ের সঙ্গে তাই ব্যয়ের ভারসাম্য বজায় রাখতে গিয়ে কাট-ছাঁট করতে করতে জীবন চালানোই দায় হয়ে পড়েছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪