রোহিঙ্গা সঙ্কট: কূটনৈতিক সমাধানের পক্ষে যুক্তরাষ্ট্র

1509878180
যুগের খবর ডেস্ক: মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার চাইতে চলমান রোহিঙ্গা সঙ্কট কূটনৈতিক উপায়ে সমাধানের দিকেই নজর দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।
ঢাকা সফরে থাকা মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনীতি বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি টমাস শ্যানন বলেছেন, রোহিঙ্গা সঙ্কটের কূটনৈতিক সমাধানেই জোর দিচ্ছে তার দেশ।
রবিবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় ষষ্ঠ যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ অংশীদারিত্বমূলক সংলাপ শেষে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন শ্যানন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক।
মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নের মুখে গত অগাস্টের শেষ ভাগ থেকে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। আগে থেকেই আরো চার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে রয়েছে।
বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাকে ফেরত নিতে মিয়ানমারের ওপর সৃষ্টি করতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছে বাংলাদেশ।
এক প্রশ্নে শ্যানন বলেন, “এই মুহূর্তে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নয়, আমাদের সমস্যার সমাধান করতে হবে।”
আন্তর্জাতিক মহলে সমালোচনার মধ্যে মিয়ানমার ১৯৯২ সালের প্রত্যাবাসন চুক্তির আওতায় দ্বিপক্ষীয় ব্যবস্থাপনায় রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার কথা বলেছে। তবে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘকে যুক্ত করাসহ কয়েকটি প্রস্তাব রাখা হয়।
বাংলাদেশের প্রস্তাবের কোনো জবাব না দিয়েই গত ৩১ অক্টোবর রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে দেরির জন্য উল্টো বাংলাদেশকে দোষারোপ করেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর সু চির দপ্তরের মহা পরিচালক জ তাই।
তবে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে গত শুক্রবার বাংলাদেশে আসা যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রতিনিধিদলের নেতা সিমন হেনশ বলেছেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রক্রিয়া শুরু করার দায়িত্ব মিয়ানমার সরকারের।
গত বছর গণতন্ত্রে ফেরার পর মিয়ানমারের ওপর থেকে তুলে নেওয়া কিছু অবরোধ ফের আরোপের চিন্তাভাবনা করছে যুক্তরাষ্ট্র। এজন্য গত সপ্তাহে মার্কিন সিনেটে একটি প্রস্তাবও তোলা হয়।
প্রস্তাবটি পাস হলে রোহিঙ্গাদের উপর নৃশংসতার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া পর্যন্ত মিয়ানমারের জ্যেষ্ঠ সেনা কর্মকর্তাদের উপর সুনির্দিষ্ট অবরোধ ও ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ হবে এবং দেশটিতে যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ সামরিক সহায়তা বন্ধ হয়ে যাবে।
এর প্রতিক্রিয়ায় মিয়ানমার বলছে, অবরোধ পরিস্থিতি শুধু আরো খারাপই করবে।
  অবরোধের সুয়োগ তো রয়েছেই জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে শ্যানন বলেন, “কিন্তু আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে সমস্যার সমাধান করা এবং এই সঙ্কটের কূটনৈতিক সমাধান খোঁজা।”
মিয়ানমার থেকে পালিয়ে যারা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে তাদের মানবিক সহায়তা দেওয়ার বিষয়টিও তাদের অন্যতম লক্ষ্য বলে জানান শ্যানন।
রোহিঙ্গাদের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র যেভাবে কাজ করছে সেজন্য ধন্যবাদ জানান পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ‘শক্ত’ বলে মনে করেন তিনি।
তিনি বলেন, “তারা (যুক্তরাষ্ট্র) মানবিক সহায়তা দিচ্ছে এবং সঙ্কট সমাধানে অন্তত ৩১ ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে।”
যুক্তরাষ্ট্রের নেওয়া এসব পদক্ষেপ সঙ্কট সমাধানে কি ধরনের প্রভাব ফেলতে সক্ষম হয়েছে, জানতে চাইলে মার্কিন কূটনীতিক শ্যানন বলেন, এসব পদক্ষেপের কারণে সঙ্কট নিয়ে আলোচনার জন্য তাদের কূটনীতিক ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় মিয়ানমারে ঢোকার সুযোগ পেয়েছে।“রাখাইন রাজ্য পরিদর্শনের অনুমতিও পাওয়া গেছে,” বলেন তিনি।
 যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশের মধ্যে বার্ষিক এই অংশীদারিত্বমূলক সংলাপে মূলত দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন বিষয় স্থান পায়। তবে এবার আলোচনার বড় একটা অংশ জুড়েই ছিল রোহিঙ্গা সঙ্কট।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪